দৌড়ে এক বছরে ১২৫ কেজি থেকে ৮৫-তে

0

খবর অনলাইন : শেখর বিজয়ন একটা বহুজাতিক কোম্পানির ট্রানজিশনস ম্যানেজার। বছর খানেক আগেও তাঁর ওজন হয়ে গিয়েছিল ১২৫ কেজি। চেন্নাইয়ে শ্বশুরবাড়িতে কোমোড ভেঙে ফেলে হাসির পাত্র হয়ে উঠেছিলেন। শেষ পর্যন্ত পণ করলেন যে ভাবেই হোক ওজন কমাবেন। কাজে তা করে দেখিয়েছেন শেখর। আজ তাঁর ওজন ৪০ কেজি কম। শারীরিক ভাবে সুস্থ এবং মানসিক ভাবে খুশি। কিন্তু মাত্র এক বছরে কী ভাবে এত ওজন কমিয়ে ফেললেন। না, কোনও জিমে গিয়ে তিনি শরীরচর্চা করেননি, ওজন কমানোর কোনও ওষুধও খাননি। তা হলে রহস্যটা কোথায় ? রহস্য কিছুই না। শেখর নিজেই জানিয়েছেন, তাঁর এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে হাঁটা। প্রথম প্রথম রোজ ২ কিমি করে হাঁটতে থাকেন শেখর। পরে এটাকে ৬ কিমিতে নিয়ে যান। এবং গোড়ায় গোড়ায় যেটা হাঁটা ছিল, সেটা হল দৌড়। নিজের কুকুরের পিছনে রোজ ৬ কিমি করে দৌড়তে লাগলেন শেখর। আজ তিনি রোজ ১৫ কিমি করে দৌড়ন, সকালে কিংবা রাতে, যখন অবসর মেলে। আর দৌড়নোর জন্য কোন ‘মোটিভেশন’ লাগে না, যেমন দৌড়ের সঙ্গী বা গান। নিজের জুতোর শব্দই তাঁর অনুপ্রেরণা। দৌড়নোর ফাঁকেই চলে কিছু ফ্রি-হ্যান্ড ব্যায়াম। তবে শুধু দৌড় বা ব্যায়াম নয়, কিছু ছাড়তেও হয়েছে শেখরকে। যেমন, সাদা রঙের খাবার অর্থাৎ নুন, চিনি, দুধ, ইডলি, দোসা, ভাত, ময়দা, মেয়োনিজ সস ইত্যাদি। ছাড়তে হয়েছে ঠান্ডা পানীয়, প্যাকেটজাত ফলের রস, ভাজা খাবার, ভুজিয়া, নিমকি, মাংস, চা ইত্যাদি। তা হলে খান কী শেখর ?  প্রয়োজনমতো সবুজ সবজি, ফল, গ্রিন টি, গ্রিলড্‌ চিকেন, মাছ ইত্যাদি। তাঁর কথায়, “আমি প্রাতরাশ করি ভারতীয় রাজার মতো, দুপুরের খাওয়া খাই মধ্যবিত্তের মতো আর রাতের খাবার খাই কপর্দকহীনের মতো।”

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন