খবরঅনলাইন ডেস্ক: প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সেনা হাসপাতাল থেকে আজকের কলকাতার অ্যাংলো পাড়া। বৌবাজারের বো ব্যারাক। অতিমারি করোনার সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে বড়োদিনের উৎসব না করার সিদ্ধান্ত বো ব্যারাক রেসিডেন্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের।

কলকাতার বুকে পার্ক স্ট্রিটের পর এই বো ব্যারাকেই বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা মানুষের ঢল নামে বড়োদিনে। আলোকসজ্জায় ও উৎসবে মেতে ওঠেন লোকজন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে এই বছর বাইরের মানুষের এই আনন্দে শামিল হওয়ার অনুমতি নেই।

অতিমারির কারণে এখানকার বাসিন্দারাই উৎসব থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। ব্যারাকের বেশির ভাগ বাসিন্দাই বয়স্ক। তাই তাঁদের সুরক্ষার স্বার্থে অ্যাসোসিয়েশনের এই সিদ্ধান্তে তাঁরা খুশি।

তবে পরিবারের সদস্য, আত্মীয়, বন্ধুরাও এই কারণেই বাড়ি ফিরতে পারছেন না। দীর্ঘ অদর্শনের পর এই প্রতীক্ষার দিনটিও এই বছরে দিতে পারল না প্রিয়জনকে কাছে পাওয়ার স্বস্তি।

যদিও আলোয় সাজানো হচ্ছে ব্যারাক। বাসিন্দাদের বাড়ির ভেতর তৈরি হচ্ছে কেক ওয়াইন, তবুও হবে না ‘বো ব্যারাক ফেস্ট’। ফলে ফেস্টে কেক ওয়াইন বিক্রির সুযোগ পাবেন না ব্যারাকের সেই প্রস্তুতকারকরা।

তবে তাতে মন খারাপ করছেন না ব্যারাকের বাসিন্দা ও কেক ওয়াইন প্রস্তুতকারকরা। তাঁদের কথায়, এক বছর সুস্থতার কারণে যদি কেনাবেচা বন্ধ থাকে তাতে কোনো ক্ষতি নেই। কারণ সুস্থ থাকাটাই সব চেয়ে বড়ো কথা।

আরও – বড়োদিনে ঘর সাজাবেন? এইগুলি খুবই জনপ্রিয়: পর্ব ২

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন