Connect with us

বাঁকুড়া

আকুইয়ের নেতাজি সংঘের রবীন্দ্রস্মরণ-এক মনোজ্ঞ সন্ধ্যা

Published

on

শ্রয়ণ সেন

বাঁকুড়ার মাটি পুণ্যভূমি। বাঁকুড়ার মাটির যে কী মাহাত্ম্য সেটা নিজের গলায় অসাধারণ ভাবে বুঝিয়েছেন লোকসংগীত শিল্পী সুভাষ চক্রবর্তী। সেই বাঁকুড়ার মাটিতেই আমার আদিবাড়ি এটা ভাবলে এমনিতেই কেমন যেন একটা শিহরণ জাগে আমার মনে। তার পর যখন দেখা যায় এখানে বিশ্বকবির জন্মদিন বিশেষ ভাবে পালন করা হয়, তখন যে কী গর্ব হয়, সেটা বোধহয় বলে বোঝানো যাবে না।

বাঁকুড়ার ইন্দাস থানার অন্তর্গত আকুই গ্রামের পশ্চিমপাড়ায় আমাদের বাড়ি। এই পশ্চিমপাড়ার হৃদয়ে বিশেষ জায়গা করে রেখেছে দু’টি জিনিস, হাটতলা এবং নেতাজি সংঘ। এই নেতাজি সংঘের উদ্যোগেই এক মনোজ্ঞ রবীন্দ্র জয়ন্তী-সন্ধ্যা উপভোগ করলাম বৃহস্পতিবার। চার ঘণ্টার এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, যেখানে গান আর কবিতায় মাতিয়ে রাখল পাড়ার খুদেরা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে কৃতি ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়ানো হল আর সেই সঙ্গে পরিবেশিত হল অসাধারণ এক  নৃত্য গীতিআলেখ্য।

এই নেতাজী সংঘের যাত্রা শুরু ১৯৬১ সালে। পশ্চিমপাড়ার কয়েক জন তরুণের হাত ধরে যাত্রা শুরু করল নেতাজি সংঘ। এই তরুণদলের মধ্যে একজন রমাপ্রসাদ সেন, আমার জেঠু। সেই সংঘ এখন ৬০ বছরে পদার্পণের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে। জেঠুরা এখন কেউ প্রৌঢ়, কেউ বৃদ্ধ। কিন্তু তখন যে ভাবে রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন হত, এখনও ঠিক সেই ভাবেই পালিত হচ্ছে, এই কথাটা বলতে গিয়ে জেঠুর যে কত গর্ব হচ্ছিল সেটা বলে বোঝানো যাবে না।

তবে শুধু কি রবীন্দ্রজয়ন্তী? নজরুলজয়ন্তী, কিংবা সরস্বতীপুজো, নেতাজি সংঘ পালন করবেই। জেঠুর পরের প্রজন্ম, অর্থাৎ আমার দাদা-দিদিরা এখন মূল হোতা, তবুও বিশেষ অতিথি হিসেবে তাঁর উপস্থিতি না হলে চলবেই না।

‘হে নতুন দেখা দিক আরবার…’

ঘড়ির কাঁটায় সন্ধ্যা সাতটা। উদ্বোধনী সংগীতের মধ্যে দিয়ে শুরু হল রবীন্দ্রজয়ন্তীর এ বারের অনুষ্ঠান। তার পর একে একে গান আর কবিতা পরিবেশন করে গেল পশ্চিমপাড়ার ছেলেপুলেরা। শহুরে জাঁকজমক ছিল না, কিন্তু ছিল একাত্মতা।

দর্শক আসন পুরোপুরি ভরে উঠেছে। একে একে গান গেয়ে, কবিতা পড়ে যাচ্ছে খুদেরা আর আমার মন আরও বেশি করে নিশ্চিন্ত হচ্ছে। আজকাল শহুরে ছেলেপুলেদের দেখি এখনই হাতে স্মার্টফোন চলে এসেছে। স্কুলের পথে যায় দিব্যি কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে। মাত্র বছর বারো আগে আমরা যখন স্কুলে যেতাম তখন এটা ভাবতেও পারতাম না। শহুরে খুদেদের মধ্যে ‘মল কালচার’ ঢুকে যাওয়ায় খুব সন্দেহ হত, ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কি তা হলে রবীন্দ্রনাথকে ভুলে যাবে? না, সেটা যে হবে না আকুইয়ের পশ্চিমপাড়াই বুঝিয়ে দিল।

প্রথম অংশে গান-কবিতা পাঠের পর অঞ্চলের কৃতী ছাত্রছাত্রীদের বিশেষ ভাবে সম্মান জানানো হল। এই সম্মাননা জ্ঞাপনে যার কথা আলাদা ভাবে বলতেই হয় সে অন্তরা পাত্র। রমাপ্রসাদ সেনের কথায়, সামাজিক ভাবে পিছিয়ে পড়া পাত্রপাড়ার অন্তরা অনন্য এক কীর্তি অর্জন করেছে। তার পাড়ার প্রথম মেয়ে হিসেবে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছে সে। ২০১৮ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে এখন সে পড়ছে আকুইয়ের নবনির্মিত মহিলা কলেজে।

সন্ধ্যার আসল আকর্ষণ অবশ্য তখনও বাকি ছিল। সেটা শুরু হল রাত ন’টার পর। প্রায় আধ ঘণ্টা ধরে নৃত্য-গীতিআলেখ্য ‘ঋতুরঙ্গ’ পরিবেশন করলেন, আকুই এবং আশেপাশের গ্রামের মেয়েরা। সৃজিতা দে, সমৃদ্ধি গুহ, চন্দ্রিমা চৌধুরী, শ্রেয়সী রক্ষিতদের অসাধারণ এই পরিবেশনটির সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন রনি মণ্ডল। আর গোটা গীতিআলেখ্যটি যোগ্য হাতে পরিচালনা করেছেন রনির বাবা তথা এলাকারই স্বনামধন্য সংগীত শিক্ষক রবীন মণ্ডল।

শেষলগ্নে একটি বিশেষ বার্তা দিয়ে রবীন্দ্র জয়ন্তীর মূল সুতোটা বেঁধে দিলেন খবর অনলাইনের এডিটর ইন-চিফ তথা এই গ্রামেরই সন্তান শম্ভু সেন। তাঁর কথায়, “রবীন্দ্রনাথ আন্তর্জাতিকতাবাদে বিশ্বাস করতেন। মানুষে মানুষে ভেদাভেদ মানতেন না। আজ দেশ এমনকি সারা বিশ্বে মানুষের মধ্যে এই ভেদাভেদের বাতাবরণ, এই পরিস্থিতিতে রবীন্দ্রনাথকে আরও বেশি করে আঁকড়ে ধরতে হবে আমাদের।”

জনতার সম্মতিসূচক হাততালিই বুঝিয়ে দিল, রবীন্দ্রনাথকে আরও বেশি করে আঁকড়ে ধরতে প্রস্তুত আমার গ্রাম।

সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইন্দ্রাণী সেন।

বাঁকুড়া

গেরুয়া শিবির ছেড়ে তৃণমূলে ফিরলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তুষারকান্তি ভট্টাচার্য

রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূলের বাঁকুড়া জেলা সভাপতি শ্যামল সাঁতরার হাত ধরে তৃণমূলে ফিরলেন তুষারকান্তি ভট্টাচার্য।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: বিজেপির সঙ্গে সম্পর্কে ইতি টেনে ফের তৃণমূলে যোগ দিলেন বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তুষারকান্তি ভট্টাচার্য।

শুক্রবার বাঁকুড়ার তৃণমূল ভবনে রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূলের বাঁকুড়া জেলা সভাপতি শ্যামল সাঁতরার হাত ধরে তিনি তৃণমূলে ফিরলেন।

১৯৬৫ সাল থেকে টানা ২৫ বছর বিষ্ণুপুর পুরসভার কাউন্সিলর ছিলেন তুষারকান্তিবাবু। ১৯৮৯ থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত বিষ্ণুপুর পুরসভার পুরপ্রধান ছিলেন। ১৯৯৮ সাল থেকে তিনি বাঁকুড়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব সামনে ছিলেন দীর্ঘদিন। মাঝে বেশ কয়েক বছর রাজনীতি থেকে দূরের থাকার পর ২০১৬ সালে বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী হয়ে বিধায়ক হন তিনি।

তবে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর আবার তিনি দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের হাত ধরে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান।


এ দিনে তৃণমূলে ফিরে তিনি বলেন, এক দিন অভিমানে ঘর ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। ফের তৃণমূলে ফিরে ভালো লাগছে।

তাঁর সঙ্গেই এ দিন তৃণমূলে ফিরে আসেন বেশ কয়েকজন অনুগামী। আগামী ২০২১ সালের রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের আগে এই দলবদল, এলাকায় তৃণমূলের সংগঠনকে অনেকটাই মজবুত করল বলে মত রাজনৈতিক মহলের।

আরও পড়তে পারেন: ‘ছাত্র-ছাত্রীদের স্বার্থই সর্বোচ্চ’ বলেছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর তিনি কী বললেন?

Continue Reading

বাঁকুড়া

বাঁকুড়ার যুবতীকে পুঁতে দেওয়ায় দোষী সাব্যস্ত ‘প্রেমিক’ উদয়ন দাসের যাবজ্জীবন

এ দিন বাঁকুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারক সুরেশ বিশ্বকর্মার এজলাসে ওই খুন ও দেহ লোপাটের মামলার শাস্তি ঘোষণা হয়।

Published

on

ফাইল ছবি

খবরঅনলাইন ডেস্ক: মধ্যপ্রদেশের ভোপালে আকাঙ্ক্ষা শর্মা (২৮) খুনের ঘটনায় বুধবার তাঁর ‘প্রেমিক’ উদয়ন দাসকে যাবজ্জীবন সাজা দিল বাঁকুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক আদালত।

গত মঙ্গলবার উদয়নকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। এ দিন বাঁকুড়ার ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারক সুরেশ বিশ্বকর্মার এজলাসে ওই খুন ও দেহ লোপাটের মামলার শাস্তি ঘোষণা হয়। বিচারক দোষীকে যাবজ্জীবন কারাবাসের নির্দেশ দেন।

ঘটনায় প্রকাশ, আমেরিকায় ইউনিসেফের কাজে যোগ দিতে যাচ্ছেন বলে ২০১৬-র ২৩ জুন বাঁকুড়ার রবীন্দ্রসরণির বাড়ি থেকে বেরোন ব্যাঙ্ক আধিকারিকের মেয়ে আকাঙ্ক্ষা। সঙ্গে ছিল সোশ্যাল মিডিয়ায় আলাপ হওয়া ‘প্রেমিক’ উদয়নের দেওয়া চাকরির ভুয়ো নিয়োগপত্র।

এর পর ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ভোপালের গোবিন্দপুরা থানার সাকেতনগরে উদয়নের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় আকাঙ্ক্ষা শর্মার দেহাবশেষ।

অভিযোগ, বচসার মধ্যে ১৫ জুলাই তাঁকে শ্বাসরোধ করে খুন করে উদয়ন। তার পরে বাড়ির মধ্যে তাঁর দেহটি টিনের বাক্সে ভরে সিমেন্টের বেদি গেঁথে দেয়। আকাঙ্ক্ষার ফোন থেকে তাঁর বাড়ির লোকজনকে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজে উদয়ন জানায়, সে আমেরিকায় পৌঁছেছে। সেখানকার সিম-কার্ড পায়নি বলে ফোন করতে পারছে না। শুধু মেসেজেই যোগাযোগ ছিল পরিবারের সঙ্গে।

এই সময়-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দীর্ঘ দিন আকাঙ্ক্ষা ফোন না ধরায় ধন্দে পড়ে তাঁর পরিবার। এর পর তাঁরা বাঁকুড়া সদর থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করে। পুলিশ আকাঙ্ক্ষার মোবাইল লোকেশন ট্র্যাক করে জানতে পারে, সেটি ভোপালের সাকেতনগরে রয়েছে।

আকাঙ্ক্ষার বাবা ও ভাই সেখানে গেলে, উদয়ন বা আকাঙ্ক্ষার দেখা পাননি। ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি উদয়নের বিরুদ্ধে আকাঙ্ক্ষাকে অপহরণের মামলা করেন তাঁরা। এর পর ভোপালে গিয়ে বাঁকুড়া পুলিশ উদয়নকে গ্রেফতার করে। উদ্ধার হয় আকাঙ্ক্ষার দেহাবশেষ।

এর পর চলে জেরা। জেরায় পুলিশ জানতে পারে, উদয়নের বাবা বীরেন্দ্রকুমার দাস ও মা ইন্দ্রাণী দাসকেও ২০১০ সালে খুন করে ছত্তীসগঢ়ের রায়পুরের বাড়ির বাগানে পুঁতে দিয়েছে উদয়ন। তাঁদের কঙ্কালও উদ্ধার করে পুলিশ। সেই জোড়া খুনের মামলার তদন্ত করছে ছত্তীসগঢ়ের দীনদয়াল উপাধ্যায়নগর থানা।

Continue Reading

বাঁকুড়া

বাঁকুড়ার প্রান্তিক পরিবারের বাক-শ্রবণশক্তিহীন মাধ্যমিক-উত্তীর্ণাকে সম্মাননা

Published

on

ইন্দ্রাণী সেন বোস

বাঁকুড়া: মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে বেশ কিছু দিন হল। বর্তমান সময়ে নম্বরের সহজলভ্যতা কোথাও যেন ম্লান করে দিয়েছে নিদারুণ লড়াই করে উঠে আসা তথাকথিত প্রান্তিক পরিবারের ছাত্রছাত্রীদের সাফল্যকে। তাদের কথা আস্তে আস্তে ভুলতে বসে প্রচারসর্বস্ব সমাজ। তবে কোনো কোনো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সৌজন্যে তাদের কথা আবার মনে পড়ে যায়। এমনই এক ব্যতিক্রমী ছাত্রী বুল্টি বৈরাগ্য।

বাঁকুড়া জেলার আকুই ননীবালা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়। স্বাধীনতা সংগ্রামী ননীবালা গুহর প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যই ছিল এলাকায় নারীশিক্ষার বিস্তার ঘটানোর। অক্ষরজ্ঞানহীন এই মহিলা চাননি তাঁর এলাকার মেয়েরা পিছিয়ে থাকুক। এ বছর ননীবালার মুকুটে আর একটি পালক যোগ করল বুল্টি।

ননীবালা স্কুলের বাক ও শ্রবণশক্তিহীন ছাত্রী বুল্টি বৈরাগ্য এ বার মাধ্যমিক উত্তীর্ণ হল। তার এই সাফল্যকে উদযাপন করতে এগিয়ে এল আকুই গ্রামেরই একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, মানবধর্ম অনুশীলন সমিতি। বৃহস্পতিবার তার বাড়িতে এক ঘরোয়া অনুষ্ঠানে বাক ও শ্রবণশক্তিহীন মাধ্যমিক-উত্তীর্ণাকে সন্মাননা জানাল এই সংগঠনের সদস্যরা।

উল্লেখ্য আকুই ননীবালা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী বুল্টি বৈরাগ্য ছোটো থেকেই শুনতে ও কথা বলতে পারে না। প্রান্তিক পরিবারে নুন আনতে পান্তা ফুরোনো বাবা-মায়ের অদম্য উৎসাহে আর পাঁচ জন সাধারণ ছাত্রীর সঙ্গেই সে পড়াশোনা চালিয়ে গিয়ে এ বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হল। সংসারে নিদারুণ অভাব। সেই কারণে শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী এই ছাত্রী বিশেষ স্কুলে ভর্তি হতে না পারেনি। আর পাঁচজন স্বাভাবিক মেয়ের সঙ্গে সে-ও যে মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়া ও উত্তীর্ণ হাওয়ার যে সাহস দেখিয়েছে, তার জন্য এলাকাবাসী তাকে কুর্নিশ জানায়।

বুল্টির বাবা মহানন্দ বৈরাগ্য বলেন, “এত দিন পর্যন্ত ও মেয়েদের স্কুলে পড়ত। এ বার ছেলেদের সঙ্গে পড়তে হবে শুনে বুল্টির খুব ভয় করছে। আমরা সবাই চাই ও ভয় কাটিয়ে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হোক।”

বিশেষ উল্লেখ্য, মাধ্যমিকে কোনো টিউশন ছাড়াই বুল্টি পাশ করেছে। উচ্চ মাধ্যমিকের পড়ার খরচ অত্যন্ত বেশি। কী ভাবে তা জোগাড় করা হবে, সেই চিন্তায় কপালে ভাঁজ এই প্রান্তিক পরিবারের সদস্যদের।

Continue Reading
Advertisement
দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৭৫০৮৩, সুস্থ ১০১৪৬৮

দেশ2 days ago

সোমবার থেকে স্কুল খোলা বাধ্যতামূলক নয়, দেখে নিন কোন রাজ্য কী সিদ্ধান্ত নিল

জীবন যেমন3 days ago

মাত্র কয়েক বারেই চুল সিল্কি করার দারুণ ৬টি ঘরোয়া উপায়

দেশ2 days ago

ব্যথার কারণ খুঁজতে হল এক্স-রে, বন্দির মলদ্বারে হদিশ মিলল চারটি মোবাইলের

partha chatterjee
কলকাতা3 days ago

ঐতিহ্যবাহী প্রতিভা গ্রন্থাগারের দ্রুত সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

রাজ্য2 days ago

জাতীয় গড়ের তুলনায় রাজ্যে সুস্থতার হার অনেকটাই বেশি, কেন্দ্রের প্রশংসা

sexting
প্রযুক্তি3 days ago

স্মার্টফোনের অ্যাপগুলিতে ৬২ শতাংশ ভারতীয় মহিলার মন মজেছে ‘সেক্সটিং’-এ: সমীক্ষা

mamata banerjee
রাজ্য2 days ago

সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্তরবঙ্গ সফর স্থগিত

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা6 days ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা2 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা2 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা4 weeks ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

kitchen kitchen
কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই ৮টি জিনিস কাজ অনেক সহজ করে দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজকাল রান্নাঘরের প্রত্যেকটি কাজ সহজ করার জন্য অনেক উন্নত ব্যবস্থা এসে গিয়েছে। তা হলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কষ্ট...

care care
কেনাকাটা1 month ago

চুল ও ত্বকের বিশেষ যত্নের জন্য ১০০০ টাকার মধ্যে এই জিনিসগুলি ঘরে রাখা খুবই ভালো

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পার্লার গিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার সময় অনেকেরই নেই। সেই ক্ষেত্রে বাড়িতে ঘরোয়া পদ্ধতি অনেকেই অবলম্বন করেন। বাড়িতে...

কেনাকাটা2 months ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

নজরে