Connect with us

বইপত্তর

পুস্তক পর্যালোচনা: ‘জটায়ুকে যেমন দেখেছি’ বইয়ে পাঠক আরও কাছ থেকে চিনবেন তাঁদের প্রিয় ‘জটায়ু’কে

জটায়ু’কে নিয়ে অশোক বক্সীর ভাঁড়ারে রয়েছে অজস্র চমকপ্রদ কাহিনি। তেমনই কিছু কাহিনি তিনি পাঠকের কাছে পরিবেশন করেছেন তাঁর বইয়ে।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ফেলুদা মানা করে দিয়েছেন, কোনো প্রশ্ন করা চলবে না। তাই রাজস্থানের পথে উট দেখে মনে প্রশ্ন ঘাই মারছে, অথচ করতে পারছেন না। তাই স্বগতোক্তি করছেন, ‘কোনো প্রশ্ন নয়’, ‘কোনো প্রশ্ন নয়’। শেষ পর্যন্ত থাকতে না পেরে ফেলুদার কাছে অনুমতি চাইলেন এবং অনুমতি পেয়েই সেই বিখ্যাত প্রশ্ন, “উট কি কাঁটা বাছিয়া খায়?” লালমোহন গাঙ্গুলি তথা জটায়ু আমাদের আরও কাছে এলেন।

এর আগে ট্রেনেই লালমোহন গাঙ্গুলির আলাপপর্বটা সারা হয়ে গিয়েছে ফেলুদা-তপসের সঙ্গে। ফেলুদাদের অবাঙালি ভেবে বাঙালির হিন্দিতে অনর্গল বলে চলেছেন জটায়ু। ফেলুদা উপভোগ করছেন, তোপসেও। একটা সময় ফেলুদা পরিষ্কার বাংলায় যখন বললেন হিন্দিটা চালিয়ে যেতে, তখন তাঁর সেই অনাবিল হাসি আর ‘দূর মশাই’ বলা কি বাঙালি ভুলতে পারে? বাঙালির মনে চিরস্থায়ী জায়গা হয়ে গেল লালমোহন গাঙ্গুলি তথা জটায়ুর। বাঙালি ভুলেই গেল এই ভদ্রলোকের নাম সন্তোষ দত্ত, এক জন মস্ত বড়ো উকিল।

Loading videos...

তবে সন্তোষ দত্তের অভিনয় শুরু তার অনেক আগেই, ১৯৫৮-য় সত্যজিৎ রায়ের ‘পরশপাথর’ ছবিতে। সে দিন কি কেউ বুঝতে পেরেছিলেন বাংলা চলচ্চিত্র জগতে এক অসামান্য কমেডিয়ানের উদয় হল? অবশ্য সন্তোষবাবুকে শুধু কমেডিয়ান আখ্যা দিলে তাঁকে ছোটো করা হয়। আসলে তাঁকে আমরা, বাংলা চলচ্চিত্রের দর্শকরা, মূলত ‘জটায়ু’ হিসাবেই চিনি।

সেই ‘জটায়ু’কে খুব কাছ থেকে দেখেছেন আইনজীবী অশোক বক্সী। কারণ অশোকবাবুর আইনশিক্ষায় হাতেখড়ি সন্তোষ দত্তের কাছেই। তিনি সন্তোষ দত্তের প্রথম ও একমাত্র জুনিয়র।    

বাংলা ছবির দর্শক জটায়ুকে পেল কী ভাবে? অশোক বক্সীর স্মৃতিচারণা –

আর একটু হলেই ‘সোনার কেল্লা’ থেকে ছিটকে যাচ্ছিলেন জটায়ু সন্তোষ দত্ত! সন্তোষ দত্তের জুনিয়র হিসেবে কোর্টে যেতে শুরু করেছেন এবং তত দিনে অশোকবাবুর ‘সন্তোষদা’ হয়ে গিয়েছেন। একটা হত্যাকাণ্ডের মামলা নিয়ে সন্তোষ দত্তের তখন দিন রাত এক হয়ে গেছে। তার মাঝেই একদিন ফোন এল বিশপ লেফ্রয় রোডের বাড়ি থেকে। ফোন রেখে গম্ভীর মুখে সন্তোষদা বললেন, “এ তো মহা মুশকিলে পড়লাম দেখছি। মানিকদা ফোন করেছিলেন। আমাকে জটায়ু করার জন্য বললেন। রাজস্থানে এক মাসের শ্যুটিং। যেদিন যাবার কথা সেদিনই মামলার শুনানি। কী করি বলো তো?” তখনকার সময়ে আদালতে দিন পড়লে মুলতুবি নেওয়া অত সহজ ছিল না। সন্তোষদা সোজাসুজি ফোন করলেন মামলায় বিরোধী পক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটরকে। সব খুলে বললেন। চেয়ারের উল্টো দিকে বসে অশোকবাবু শুনতে পাচ্ছেন, ওপার থেকে উত্তর ভেসে আসছে, “অত ঘাবড়াবার কী আছে? শুনানি যাতে না হয় তার সব বন্দোবস্ত আমি করব। তুমি শুধু একটা পিটিশান করে নিয়ে এসো।” জজ সাহেব ছিলেন শচীন সান্যাল। পিটিশান নিয়ে ওঁর ঘরে অশোকবাবুরা তিনজনে হাজির। জজকে সত্যি কথাটাই বললেন সেই পাবলিক প্রসিকিউটর। সঙ্গে এও বললেন, “মামলাটা যদি এক মাস পিছিয়ে যায়, আমার কোনও আপত্তি নেই।” শচীন সান্যাল সব শুনে বললেন, “ঠিক আছে, আপনি ওঁর বিরোধী হয়েও যখন এ কথা বলছেন, আমি অ্যালাও করে দিচ্ছি।” এ ভাবেই ‘জটায়ু’র ছাড়পত্র পেয়েছিলেন সন্তোষদা।

‘জটায়ু’কে নিয়ে অশোক বক্সীর ভাঁড়ারে রয়েছে এ রকম অজস্র চমকপ্রদ কাহিনি। তেমনই কিছু কাহিনি তিনি পাঠকের কাছে পরিবেশন করেছেন ‘জটায়ুকে যেমন দেখেছি’ বইয়ে, তাঁর সহজ, সরল, সাবলীল গদ্যে। পাঠককুল আরও কাছ থেকে চিনতে পারবেন তাঁদের প্রিয় ‘জটায়ু’কে।   

বই: জটায়ুকে যেমন দেখেছি

লেখক: অশোক বক্সী

প্রকাশক: রুপালি

দাম: ৮০টাকা

বইটি অনলাইনে কিনতে হলে এখানে ক্লিক করুন

আরও পড়ুন : পুস্তক পর্যালোচনা: ঘনাদা আর টেনিদাকে নিয়ে সৃষ্টি ‘বাংলা সাহিত্যে দুই দাদা’

বইপত্তর

পুস্তক পর্যালোচনা: ভারতের বর্ণময় মেলা-পার্বণের পরিচয় করাবে ‘ইন্ডিয়া ইন সেলিব্রেশন’

কথায় বলে ‘বারো মাসে তেরো পার্বণ’। কিন্তু এই বাক্যবন্ধ তো উৎসবপ্রিয় বাঙালি এবং উৎসবমুখর বাংলার চরিত্র ও প্রকৃতি বোঝাতে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আমরা যদি এই বাংলার আঙিনা ছেড়ে ছড়িয়ে পড়ি আমাদের দেশের নানা প্রান্তে, তা হলে সেই পার্বণের সংখ্যা তেরো ছাড়িয়ে কোথায় যে পৌঁছোবে, তার তল পাওয়া মুশকিল।

Published

on

india in celebration

কথায় বলে ‘বারো মাসে তেরো পার্বণ’। কিন্তু এই বাক্যবন্ধ তো উৎসবপ্রিয় বাঙালি এবং উৎসবমুখর বাংলার চরিত্র ও প্রকৃতি বোঝাতে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আমরা যদি এই বাংলার আঙিনা ছেড়ে ছড়িয়ে পড়ি আমাদের দেশের নানা প্রান্তে, তা হলে সেই পার্বণের সংখ্যা তেরো ছাড়িয়ে কোথায় যে পৌঁছোবে, তার তল পাওয়া মুশকিল।

ভারতের স্লোগানই বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য। বর্ণময় ভারতবাসীর সব কিছুতেই বৈচিত্র্যের সমাহার। ভারতবাসীর উৎসবও এর ব্যতিক্রম নয়। কত উৎসব, কত পার্বণ, কত মেলা যে আমাদের দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বছরের নানা সময় ধরে অনুষ্ঠিত হয়, তার ইয়ত্তা নেই। আর এই সব মেলা-পার্বণ থেকেই বোঝা যায়, যত লড়াই, যত কষ্টেরই জীবন হোক, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ভারতবাসী জীবন থেকে আনন্দ খুঁজে নিতে জানে। কোনো কোনো মেলা-পার্বণ তো যুগ যুগ ধরে হয়ে আসছে, কোনোটা আবার তুলনায় নবীন। ধর্মীয় মেলা-পার্বণ যেমন হয়, তেমনই আবার এমন মেলা-পার্বণও আছে যার সঙ্গে ধর্মের কোনো সম্পর্ক নেই।

Loading videos...

ভারতের এই সব বর্ণময় মেলা-পার্বণের সঙ্গে পাঠককে পরিচয় করানোর চেষ্টা করা হয়েছে ‘ইন্ডিয়া ইন সেলিব্রেশন’ গ্রন্থে।
এটি একটি যৌথ উদ্যোগ – সজল ঘোষ ও ড. জায়েল সিলিম্যানের। ছবি তুলেছেন সজল ঘোষ এবং সে সব ছবির বিষয়বস্তুর সঙ্গে পাঠকদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন ড. জায়েল সিলিম্যান। আসুন পরিচয় করিয়ে দেওয়া যাক এই দু’ জনের সঙ্গে।

সজল ঘোষ কর্পোরেট জগতে সিনিয়র একজিকিউটিভ। কিন্তু সেটা তো তাঁর পেশাগত জীবন। তাঁর নেশা ফোটোগ্রাফি। আন্তর্জাতিক ও ভারতীয় ফোটোগ্রাফি ফেডারেশনের সদস্য। নিজের পছন্দমতো বিষয়কে ক্যামেরাবন্দি করার জন্য তিনি ভারত ও বিশ্বের নানা দেশ যথেচ্ছ ভাবে ভ্রমণ করেছেন। তাঁর আলোকচিত্র তাঁকে প্রচুর সমাদর ও সম্মান এনে দিয়েছে। কলকাতায় বেশ কয়েকটা একক প্রদর্শনীও হয়েছে তাঁর তোলা ছবি নিয়ে।

ড. জায়েল সিলিম্যান বিশিষ্ট লেখক ও সমাজকর্মী। তিনি আঁকতে ভালোবাসেন। গল্প-প্রবন্ধের বেশ কিছু বই লিখেছেন তিনি। ডিজিটাল আর্কাইভ www.jewwishcalcutta.in –এর কিউরেটর।
গ্রন্থটির মুখবন্ধ রচনা করে দিয়েছেন ড. শশী তারুর।

বই: ইন্ডিয়া ইন সেলিব্রেশন
ছবি: সজল ঘোষ, লেখা: ড. জায়েল সিলিম্যান
প্রকাশক: রুপালি
দাম: ২,২৫০.০০

অনলাইনে কিনতে হলে এখানে ক্লিক করুন

Continue Reading

বইপত্তর

পুস্তক পর্যালোচনা: সত্যজিৎ-মৃণাল-ঋত্বিকের নগরকেন্দ্রিক চলচ্চিত্র নিয়ে সৃষ্টি সৌমিক কান্তি ঘোষের ‘ট্রায়ো’

Published

on

ট্রয়ো

সত্যজিৎ রায়, মৃণাল সেন ও ঋত্বিক ঘটক – চলচ্চিত্রের ‘ত্রয়ী’। চলচ্চিত্র নিয়ে যে কোনো আলোচনায় এই ‘ত্রয়ী’র নাম প্রথমেই উঠে আসে। এঁদের সৃষ্টির ভাষা মূলত বাংলা হলেও এঁদের খ্যাতি ভারতবর্ষ ছাড়িয়ে পৌঁছে গিয়েছিল বিশ্বের চলচ্চিত্র অঙ্গনে। এই তিন পরিচালককে ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে নিউ ওয়েভ সিনেমার পথিকৃৎ বলা যায়।

সত্যজিতের জয়যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৫৫-য় বিভূতিভূষণের ‘পথের পাঁচালী’ চলচ্চিত্রায়নের মধ্য দিয়ে। বহুমুখী প্রতিভাসম্পন্ন এই মানুষটি তাঁর চলচ্চিত্রজীবনে তথ্যচিত্র, শর্ট ফিল্ম ও ফিচার ফিল্ম নিয়ে মোট ৩৬টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন।

Loading videos...

চলচ্চিত্রে মৃণাল সেনের কর্মকাণ্ডও শুরু হয়েছিল ১৯৫৫-য়, তাঁর পরিচালনায় মুক্তি পায় ‘রাত ভোরে’। ৪৭ বছরের চলচ্চিত্রজীবনে মৃণাল সেন বাংলা, হিন্দি, তেলুগু এবং ওড়িয়া ভাষায় মোট ২৭টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন।

মাত্র ৫১ বছর বয়সেই জীবনদীপ নির্বাপিত হয়েছিল আরও এক প্রতিভাধর চলচ্চিত্র পরিচালক ঋত্বিক ঘটকের। বয়সে সত্যজিৎ-মৃণালের সামান্য ছোটো হলেও চলচ্চিত্র জগতে ঋত্বিকের প্রবেশ তাঁদের কিঞ্চিৎ আগেই। তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি ‘নাগরিক’ (১৯৫২)। এর দু’ বছর আগেই অবশ্য চলচ্চিত্রে তাঁর আত্মপ্রকাশ অভিনেতা ও সহকারী পরিচালক হিসাবে ‘ছিন্নমূল’ ছবিতে।        

বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ তিন পরিচালকের ক্যামেরায় তাঁদের ছবিগুলি হয়ে ওঠে মহাকাব্যিক। বাংলা চলচ্চিত্রের এই তিন স্রষ্টার নগরজীবন কেন্দ্রিক ছবিগুলি নিয়েই সৌমিক কান্তি ঘোষের সৃষ্টি ‘ট্রায়ো’।

লেখক ও প্রাবন্ধিক সৌমিক কান্তি ঘোষ পেশায় অর্থনীতির অধ্যাপক। বেলুড় লালবাবা কলেজে কর্মরত। এ ছাড়াও তিনি রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণজ্ঞাপন বিভাগের সঙ্গে অতিথি অধ্যাপক হিসাবে যুক্ত। পড়াশোনা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি এবং ফিল্ম স্টাডিজ নিয়ে। হিউম্যান রিসোর্সে এমবিএ করেছেন। ‘মৃণাল সেন অ্যান আনরিভিল্ড মিস্ট্রি প্রাইড অব বেঙ্গল’, ‘মাল্টিপ্লেক্স অ্যান্ড ইন্ডিয়ান পপুলার সিনেমা’ ছাড়াও বেশ কিছু টেক্সট বইয়ের প্রণেতা সৌমিক। লেখকের আশা, বাংলা চলচ্চিত্রের ত্রয়ীর সৃষ্টি নিয়ে লেখা তাঁর এই বই পাঠককুলের মধ্যে বিপুল আগ্রহের সৃষ্টি করবে।

বই: ট্রায়ো

লেখক: সৌমিক কান্তি ঘোষ

প্রকাশক: রুপালি

দাম: ১৭০ টাকা

বইটি অনলাইনে কিনতে এখানে ক্লিক করুন।

এছাড়া কলেজ স্ট্রিটের দেজ পাবলিশিং হাউজ ও দে বুক স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: পুস্তক পর্যালোচনা: মৃণাল সেনের অদ্বিতীয় পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে ‘মৃণাল সেন অ্যান আনরিভিল্ড মিস্ট্রি প্রাইড অব বেঙ্গল’ বইয়ে

Continue Reading

বইপত্তর

পুস্তক পর্যালোচনা: ঘনাদা আর টেনিদাকে নিয়ে সৃষ্টি ‘বাংলা সাহিত্যে দুই দাদা’

টেনিদার খ্যাতি তাঁর খাঁড়ার মতো নাক, গড়ের মাঠে গোরা পেটানো, আর তার বিখ্যাত সংলাপ, ‘ডি-লা গ্রান্ডি মেফিস্টোফিলিস ইয়াক ইয়াক’-এর জন্য।

Published

on

দুই দাদা

বাংলা সাহিত্যে দুই অমর সৃষ্টি – ঘনাদা আর টেনিদা। ঘনাদার স্রষ্টা প্রেমেন্দ্র মিত্র আর টেনিদার স্রষ্টা নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়।
প্রেমেন্দ্র মিত্রের কলমে ঘনাদার আত্মপ্রকাশ ১৯৪৫ সালে। প্রকৃত নাম ঘনশ্যাম দাস। ঘনাদা বলেন, ইউরোপীয়রা তাঁকে ‘ডস’ নামে চেনে। ৭২ নম্বর বনমালি নস্কর লেনের এক মেসবাড়িতে ঘনাদার বাস। ঘনাদার অধিকাংশ গল্পই তাঁর মেসবাড়িতে বসে বলা। আর শ্রোতা হল ওই মেসের চার প্রতিবেশী শিবু, শিশির, গৌর ও গল্পের কথক সুধীর।

ঘনাদার ভাণ্ডারে কল্পবিজ্ঞান, অভিযান বা ঐতিহাসিক গল্পের বিপুল সমাহার। আর সেই সব গল্পের বেশির ভাগেরই নায়ক ঘনাদা স্বয়ং। ঘনাদার প্রতিবেশীরা নানা ভাবে তাঁকে প্রভাবিত করে তাঁর মুখে সেই সব গল্প শোনে আর আমরা, পাঠকরা, তার ভাগ পাই। এক দিকে ঘনাদার বাগাড়ম্বরতা, মুখেন মারিতং জগৎ, অন্য দিকে তাঁর বিপুল পাণ্ডিত্য, উপস্থিত বুদ্ধি আর উদ্ভাবনী প্রতিভা তাঁকে বিপুল জনপ্রিয় করেছে।

Loading videos...

নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়ের টেনিদা কিন্তু পড়াশোনায় ভালো ছিলেন না। সাত বারের চেষ্টায় ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন। বাস করেন উত্তর কলকাতার পটলডাঙায়। প্রকৃত নাম ভজহরি মুখার্জি। চার জনের একটি গ্রুপ, টেনিদা তার নেতা আর বাকিরা হল গল্পলেখক প্যালারাম, হাবুল আর ক্যাবলা। এই ‘চারমূর্তি’র প্রথম আত্মপ্রকাশ ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে।

আরও পড়ুন : পুস্তক পর্যালোচনা : ক্যাম্বোডিয়া ইতিহাসের মৃত্যু পাথরে জীবন

টেনিদার খ্যাতি তাঁর খাঁড়ার মতো নাক, গড়ের মাঠে গোরা পেটানো, আর তার বিখ্যাত সংলাপ, ‘ডি-লা গ্রান্ডি মেফিস্টোফিলিস ইয়াক ইয়াক’-এর জন্য। টেনিদার গল্প দু’ ধরনের – এক, নিজের তথাকথিত বীরত্বের বানানো গল্প, আর দুই, চার মূর্তির অ্যাডভেঞ্চার কাহিনি। টেনিদা সম্পর্কে প্যালারামের মূল্যায়ন – পাড়ার কারও আপদে-বিপদে টেনিদা সকলের আগে, লোকের উপকারে ক্লান্তি নেই, মুখে হাসি লেগেই আছে, ফুটবলের মাঠে সেরা খেলোয়াড়, ক্রিকেটের ক্যাপ্টেন, আর গল্পের রাজা।
বাংলা সাহিত্যে এই দুই অত্যন্ত জনপ্রিয় কাল্পনিক চরিত্রকে নিয়ে সৌমিক কান্তি ঘোষের সৃষ্টি ‘বাংলা সাহিত্যে দুই দাদা’। লেখক ও প্রাবন্ধিক সৌমিক কান্তি ঘোষ পেশায় অধ্যাপক। বেলুড় লালবাবা কলেজে অর্থনীতির লেকচারার হিসাবে কর্মরত। এ ছাড়াও তিনি রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণজ্ঞাপন বিভাগের সঙ্গে অতিথি অধ্যাপক হিসাবে যুক্ত। পড়াশোনা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি এবং ফিল্ম স্টাডিজ নিয়ে। ‘মৃণাল সেন অ্যান আনরিভিল্ড মিস্ট্রি প্রাইড অব বেঙ্গল’, মাল্টিপ্লেক্স অ্যান্ড ইন্ডিয়ান পপুলার সিনেমা’ প্রভৃতি তাঁর লেখা উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ। লেখকের আশা, ঘনাদা আর টেনিদাকে নিয়ে লেখা তাঁর এই বই পাঠককুল বিপুল আগ্রহ নিয়ে পড়বেন।

বই: বাংলা সাহিত্যে দুই দাদা
লেখক: সৌমিক কান্তি ঘোষ
প্রকাশক: রুপালি
দাম: ১৪৪ টাকা

বইটি অনলাইনে কিনতে এখানে ক্লিক করুন।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
ক্রিকেট11 mins ago

IPL 2021: স্পিনের জালে জড়িয়ে মুম্বইয়ের কাছে আত্মসমর্পণ করল হায়দরাবাদ

বাংলাদেশ22 mins ago

ভক্ত-সতীর্থদের চোখের জলে শেষ বিদায় কিংবদন্তি অভিনেত্রীকে

Remdesivir
দেশ3 hours ago

মধ্যপ্রদেশের সরকারি হাসপাতাল থেকে চুরি গেল কোভিডরোগীর চিকিৎসায় ব্যবহৃত রেমডেসিভির

Covid situation kolkata
রাজ্য3 hours ago

Bengal Corona Update: হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণ, তার মধ্যেও সামান্য কমল সংক্রমণের হার

দঃ ২৪ পরগনা4 hours ago

গুজরাত রেল পুলিশ ক্যানিং থেকে উদ্ধার করল ৮ কেজি চোরাই সোনার গয়না

রাজ্য4 hours ago

Bengal Polls 2021: ভোটের শেষ লগ্নে অসুস্থ মদন মিত্র

দেশ6 hours ago

করোনায় নাভিশ্বাস দশা রাজ্যের, ‘বাংলায় ব্যস্ত’ প্রধানমন্ত্রীকে ফোনে পেলেন না মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে

বাংলাদেশ6 hours ago

বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তির বিদায়, বনানী কবরস্থানে সমাহিত কবরী

রাজ্য12 hours ago

Bengal Polls Live: পৌনে ৬টা পর্যন্ত ভোট পড়ল ৭৮.৩৬ শতাংশ

পয়লা বৈশাখ
কলকাতা2 days ago

মাস্ক থাকলেও কালীঘাট-দক্ষিণেশ্বরে শারীরিক দুরত্ব চুলোয়, গা ঘেষাঘেঁষি করে হল ভক্ত সমাগম

রাজ্য3 days ago

স্বাগত ১৪২৮, জীর্ণ, পুরাতন সব ভেসে যাক, শুভ হোক নববর্ষ

কোচবিহার3 days ago

Bengal Polls 2021: শীতলকুচির গুলিচালনার ভিডিও প্রকাশ্যে, সত্য সামনে এল, দাবি তৃণমূলের

শিক্ষা ও কেরিয়ার24 hours ago

ICSE And ISC Exams: দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা পিছিয়ে দিল আইসিএসই বোর্ড

গাড়ি ও বাইক2 days ago

Bajaj Chetak electric scooter: শুরু হওয়ার ৪৮ ঘণ্টা পরেই বুকিং বন্ধ! কেন?

ক্রিকেট3 days ago

দুর্নীতির অপরাধে ক্রিকেট থেকে ৮ বছরের জন্য বহিষ্কৃত জিম্বাবোয়ের কিংবদন্তি হিথ স্ট্রিক

ক্রিকেট1 day ago

IPL 2021: দীপক চাহরের বিধ্বংসী বোলিং, চেন্নাইয়ের সামনে মুখ থুবড়ে পড়ল পঞ্জাব

ভোটকাহন

কেনাকাটা

কেনাকাটা4 weeks ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা2 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা2 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা3 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা3 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা3 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা3 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা3 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা3 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা3 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে