পুস্তক পর্যালোচনা : ক্যাম্বোডিয়া ইতিহাসের মৃত্যু পাথরে জীবন

0
ক্যাম্বোডিয়া ইতিহাসের মৃত্যু পাথরে জীবন

ক্যাম্বোডিয়া বলতেই চোখের সামনে প্রথমেই ভাসে ইতিহাস বইয়ে পড়া অঙ্কর ভাটের ছবি। মেকং নদীর তীরে অবস্থিত রাজধানী নম পেন থেকে ৩২৪ কিমি দূরে দ্বাদশ শতকের এই মন্দির খেমর স্থাপত্য শিল্পকলার অনুপম নিদর্শন। এই মন্দিরের বিশালত্ব এবং দেওয়ালের কারুকার্য রীতিমতো বিস্ময় জাগায়। অঙ্কর ভাটের এই মন্দির ক্যাম্বোডিয়ার জাতীয় প্রতীকে পরিণত হয়েছে। জন্মের লগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত ক্যাম্বোডিয়ার যত পতাকা হয়েছে, তার সব ক’টিতেই স্থান পেয়েছে অঙ্কর ভাটের মন্দির।
পাশাপাশি রয়েছে অঙ্কর থম তথা ‘মহান নগরী’ – দ্বাদশ শতকের রাজধানী নগরী। খেমর সাম্রাজ্যের সর্বাধিক স্থায়ী রাজধানী নগরী অঙ্কর থম প্রতিষ্ঠা করেছিলেন রাজা সপ্তম জয়বর্মণ। ন’ বর্গ কিমি এলাকা জুড়ে ছড়ানো এই নগরীতেও রয়েছে মন্দিরস্থাপত্যের বিস্ময়কর নিদর্শন।

অঙ্কর ভাট আর অঙ্কর থমের সঙ্গেই ক্যাম্বোডিয়া আরও একটি কারণে চিরস্মরণীয়। তা হল পল পটের শাসনকালে গণহত্যা। ঠিক ৪৫ বছর আগে ১৯৭৫-এর একদিন পল পটের নেতৃত্বাধীন খেমর রৌশ বাহিনী ক্যাম্বোডিয়ার ক্ষমতা দখল করে। দেশের নাম পালটে করে কাম্পুচিয়া। মুহূর্তের মধ্যে নম পেন-সহ সমস্ত শহর খালি করে শহরবাসীকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় গ্রামে। গ্রামীণ প্রকল্পে বলপূর্বক মজুর হিসাবে খাটানোর জন্য। একাদশ শতকের আদলে গ্রামীণ কৃষি ব্যবস্থা ঢেলে সাজার পরিকল্পনা করা হয়। যা কিছুর মধ্যে ‘পশ্চিমি’ ছাপ আছে বলে মনে করা হয়, তার সব কিছু ভেঙে গুঁড়িয়ে ফেলা হয়। ধ্বংস করে ফেলা হয় মন্দির, লাইব্রেরি। বাতিল করে দেওয়া হয় ‘পশ্চিমি’ ওষুধ। নির্বিচারে হত্যা করা হয় বুদ্ধিজীবীদের। কত মানুষকে যে মেরে ফেলা হয়, তার কোনো হিসাব নেই। বলা হয়, এই হত্যালীলায় ১০ লক্ষ থেকে ৩০ লক্ষ লোকের প্রাণ যায়।

পাঠককুলের কাছে এই ক্যাম্বোডিয়ার কাহিনি তুলে ধরেছেন অমল বন্দ্যোপাধ্যায়।

লেখক অমল বন্দ্যোপাধ্যায় – এক কথায় সর্ব গুণের সমাহার। এক দিকে বিজ্ঞানসাধক, অন্য দিকে সাহিত্যসাধক। সেই সঙ্গে তিনি বাচিকশিল্পী এবং ভ্রামণিকও। অমলবাবু যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসি বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান। ওষুধ সংক্রান্ত তাঁর প্রায় একশো গবেষণাপত্র বিশ্বের বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। ইউনেসকো ফেলোশিপ নিয়ে জাপানের কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা করেছেন। গবেষণার জন্য তিনি আচার্য পি সি রায় স্বর্ণপদক, রামমোহন পুরস্কার ইত্যাদি পেয়েছেন।
অমলবাবুর সাহিত্যসাধনা ছাত্রজীবন থেকেই শুরু। তখন থেকেই নানা পত্রপত্রিকায় লেখালেখি শুরু করেন। আজ বিভিন্ন সাহিত্যআসরে তিনি মধ্যমণি হয়ে বিরাজ করেন।

কর্মসূত্রে এবং ভ্রমণের নেশা থেকে প্রায় সারা বিশ্ব চষে ফেলেছেন অমলবাবু। তাঁর বিশ্বভ্রমণ শুরু সত্তরের দশকেই। সেই ভ্রমণ আজও সমানে চলেছে। সম্প্রতি পূর্ব ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ছাড়াও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ ঘুরে এসেছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ক্যাম্বোডিয়া। সেই ক্যাম্বোডিয়া- ভ্রমণের ফসল ‘ক্যাম্বোডিয়া: ইতিহাসের মৃত্যু পাথরে জীবন’। এই বইয়ের মাধ্যমে পাঠককুল যে ক্যাম্বোডিয়াকে ভালো করে চিনবেন, সেখানে যে তাঁদের মানস-ভ্রমণ হয়ে যাবে তা বলাই বাহুল্য।

বই: ক্যাম্বোডিয়া ইতিহাসের মৃত্যু পাথরে জীবন

লেখক: অমল বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রকাশক: রুপালি

দাম: ২০০ টাকা

বইটি কিনতে ফোন করুন ৯৪৩২০৬২৯২৮

ভ্রমণ সংক্রান্ত বই ছাড়াও আরও নানাধরনের বই প্রকাশ করে রুপালি। দেখতে এবং কিনতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

খবর অনলাইনে আরও পড়ুন :

পুস্তক পর্যালোচনা: মৃণাল সেনের অদ্বিতীয় পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে ‘মৃণাল সেন অ্যান আনরিভিল্ড মিস্ট্রি প্রাইড অব বেঙ্গল’ বইয়ে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন