কল্পনা মণ্ডলকে সম্মাননা প্রদান করছেন শান্তনু চট্টোপাধ্যায়। মঞ্চে রয়েছেন তাপস কুমার দে।

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: চারিদিকে নানা ধরনের মন খারাপ করা খবর। আর এত খারাপ খবরের ভিড়ে হারিয়ে যায় ভালো খবরগুলো। কথায় বলে না, খারাপ খবর অতি দ্রুত পৌঁছে যায়। আর ভালো খবর সৃষ্টির কারণ যাঁরা, তাঁরা যদি প্রচারের আড়ালে থেকে যান তা হলে তো সেই খবর পাওয়া আরও দুষ্কর হয়ে ওঠে।

তবে রয়েছে ‘স্পর্শ’। যাঁরা ভালো খবর সৃষ্টির কারণ হয়েও পাদপ্রদীপের আলো থেকে দূরে থাকেন, বা দূরে থাকতে পছন্দ করেন, তাঁদের খুঁজে আনে ‘স্পর্শ’। এবং তাঁদের সম্মানিত করে ধন্য হয়।

এই মানুষগুলো, সংগঠনগুলো লড়ে যাচ্ছেন সমাজকে আরও সুন্দর করার জন্য, সমাজকে আর একটু এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এ রকমই এক গুচ্ছ লড়াকু, ব্যতিক্রমী মানুষ আর সংগঠনকে সম্মানিত করা হল ‘স্পর্শ’-এর নবম বর্ষপূর্তির ‘হর্ষ’ অনুষ্ঠানে। গত ২৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় মধ্য কলকাতার সুবর্ণবণিক সমাজ হলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সমাজের সেই সব যোদ্ধাকে সম্মাননা জানানো হয়।

কান্তা চক্রবর্তীকে সম্মাননা প্রদান।

কান্তা চক্রবর্তীর কথাই ধরা যাক। দেড় দশক আগে দমদম স্টেশনের কয়েক জন কিশোর-কিশোরীকে পড়ানো শুরু করেন তিনি। প্ল্যাটফর্মেই শুরু হয়েছিল ক্লাস। তাদের অনেকেই আজ জীবনে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পথে। প্ল্যাটফর্মের ক্লাস আড়ে-বহরে আরও বেড়েছে। এ ভাবেই আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া ছেলেমেয়েদের শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে চলেছেন কান্তাদেবী।

সম্মানিত করা হল নীলাঞ্জন দত্ত ওরফে ‘প্যাডম্যান’কে, যিনি নারীদের স্বাস্থ্য-সচেতনতা বাড়ানোর জন্যে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন। পাহাড় থেকে সাগর পর্যন্ত স্বাস্থ্য সচেতনতা শিবিরের আয়োজন করেন নিয়মিত।

পর্বত অভিযাত্রী অমিয় কুমার বড়ুয়াকে সম্মাননা প্রদান করছেন ভীম নাগের অন্যতম কর্ণধার প্রয়াত প্রতাপ নাগের কন্যা ময়ুখী বোস।

১৯ বছর বয়সের কল্পনা মণ্ডলের কথা ধরা যাক। নোয়াপাড়া-ধর্মতলা রুটে ৩৪সি বাস চালান তিনি। দৈনন্দিন খরচ সামলাতে ও বাবার চিকিৎসার খরচ জোগাতে নিজেই ধরে নিয়েছেন সংসারের স্টিয়ারিং।

২৫টি পর্বত অভিযানের অভিজ্ঞতা রয়েছে অমিয়কুমার বড়ুয়ার ঝুলিতে। বদ্রীনাথ থেকে কেদারনাথ পর্যন্ত হারিয়ে যাওয়া পায়ে চলার পথের হদিশও করেছেন অমিয়বাবু।

এ ছাড়াও বিশেষ ভাবে সম্মানিত করা হল মালদা ব্লাড আর্মি ও নীলকন্ঠ অভিযাত্রী সংঘকে। এই দুই সংগঠনই নিয়মিত শিবিরের আয়োজন করে রক্তদান সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ায়।

বক্তৃতা করছেন ‘স্পর্শ’-এর সভাপতি সুজিত চক্রবর্তী।

তবে এই সব যোদ্ধাদের সম্মানিত করেই ক্ষান্ত থাকে না ‘স্পর্শ’। তারা নিজেরাও নিয়ত সমাজসেবায় মেতে থাকে। নানা ভাবে নিয়মিত সাহায্য করে চলেছে রামকৃষ্ণ অনাথ ভাণ্ডারকে। এ বার অনাথ ভাণ্ডার-এর শিশু-কিশোরকিশোরীদের জন্য পূজার পোশাক কিনে দিয়েছে ‘স্পর্শ’। আর সেই কাজ করতে ‘স্পর্শ’কে সাহায্য করেছে দুই বোন উন্মেষা চট্টোপাধ্যায় ও পূর্ণাশা চট্টোপাধ্যায়। সমাজের জন্য যে কিছু করা উচিত, সেই বোধ তাদের মধ্যে এখনই চারিত হয়ে গিয়েছে। তাই হাতখরচের পয়সা জমিয়ে সেই অর্থ ‘স্পর্শ’-এর হাতে তুলে দিয়েছে তারা।

দেবপ্রিয়া গুহর কণ্ঠে উদ্বোধনী সংগীত ও বিশিষ্ট অতিথিদের হাতে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। সমস্ত অতিথিকে বরণ করেন ‘স্পর্শ’-এর সাধারণ সম্পাদক তাপস কুমার দে, যাঁকে ছাড়া ‘স্পর্শ’ অসম্পূর্ণ। ‘স্পর্শ’-এর কাজকর্ম সম্পর্কে উপস্থিত জনমণ্ডলীকে অবহিত করেন সংগঠনের সভাপতি সুজিত চক্রবর্তী এবং মুখ্য উপদেষ্টা শান্তনু চট্টোপাধ্যায়।

অসহায়াদের বস্ত্র প্রদান।

ওই অনুষ্ঠানে আরও যাঁরা উপস্থিত ছিলেন তাঁদের মধ্যে রয়েছেন স্পর্শ’-এর সহ-সভাপতি দেবাশিস নাগ, প্রধান পরামর্শদাতা রাজেশ চন্দ্র, প্রধান পৃষ্ঠপোষক ড. শুভাশিস গুহ, কার্যনির্বাহী সভাপতি রঞ্জন সিনহা, উপদেষ্টা রাজকুমার মোদী ও রোহিত শুক্লা, সাংবাদিক শম্ভু সেন, কলকাতা পুলিশের ডিসি বুদ্ধদেব মুখোপাধ্যায়, গড়িয়াহাট থানার অ্যাডিশনাল অফিসার ইনচার্জ অরিজিৎ গাঙ্গুলি, ওয়াটগঞ্জ থানার অ্যাডিশনাল অফিসার ইনচার্জ অমিত ঠাকুর। বিশিষ্ট অতিথিদের মধ্যে ময়ুখী বোস ও সন্দীপ সিংহের নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখ্যযোগ্য।

সমগ্র অনুষ্ঠানটি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন সাম্য কার্ফা। ‘স্পর্শ’-এর মূল মন্ত্র সেবা, সম্মান, সংহতি। এ দিনের অনুষ্ঠান তারই জাজ্বল্য প্রমাণ।

আরও পড়তে পারেন

নাইরোবিতে বঙ্গকন্যার ভিন্ন স্বাদে দুর্গোৎসব পালন, কান্ট্রি ক্লাবে অনুষ্ঠান

 আগমনী গানের আসরে মেতে উঠল শ্রীরামকৃষ্ণ প্রেমবিহার, ‘আগমনীর আগমনে’ অ্যালবাম প্রকাশ

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন