murchona
শিল্পী সপ্তর্ষী হাজরা

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের পারিবারিক সংগ্রহশালার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রতি বছরের মতোই ধুমধাম করে পালন করল সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার পরিষদ। এই উপলক্ষ্যে যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল প্রত্যেক বারের মতোই আয়োজকরা তার নাম দিয়েছিলেন ‘মুর্চ্ছনা – রাগ সঙ্গীত বৈঠক’। এ বার ছিল ৭ম বার্ষিক বৈঠক। অনুষ্ঠানটি সম্পূর্ণ সাংস্কৃতিক আর ইতিহাস আলোচনার মধ্যে দিয়ে পরিণতির দিকে এগিয়ে যায়। এ দিন বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা ও নির্দেশক নীলাদ্রি লাহিড়ী।

উৎসবমুখর এই সন্ধ্যায় উপস্থিত দর্শকদের দৃষ্টিনন্দন উচ্চাঙ্গ নৃত্যশৈলী উপহার দেন ওড়িষী নৃত্যশিল্পী মিতিল দাস। ঠুমরী আর খেয়াল গেয়ে শোনান আঁখি ভৌমিক। সেতারে ছিলেন সপ্তর্ষি হাজরা। তবলায় সহযোগিতা করেন পীযুষ ব্যানার্জি, হারমোনিয়াম বাজান দেবপ্রসাদ দে। গোটা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন দীপশিখা চৌধুরী।

শিল্পী মিতিল দাস

সর্বোপরি পরিষদের পক্ষ থেকে কলকাতার ইতিহাস আলোচনা করা হয়েছিল এই অনুষ্ঠানে। আলোচনা করেন সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবার পরিষদের সম্পাদক ও সাবর্ণ সংগ্রহশালার অধ্যক্ষ দেবর্ষি রায়চৌধুরী।

শিল্পী আঁখি ভৌমিক

দেবর্ষিবাবুর কথায় উঠে আসে, সেই সব ঐতিহাসিক বিষয় যা থেকে প্রমাণিত কলকাতার প্রতিষ্ঠাতা বা জনক জব চার্নক নন এবং ২৪ আগস্ট কলকাতার জন্মদিনও নয়। পাশাপাশি অ্যান্টনি ফিরিঙ্গি পরিবারের সঙ্গে যে সাবর্ণ পরিবারের একটি গভীর অন্তরঙ্গ সম্পর্ক ছিল সে কথাও তুলে ধরেন তিনি। আগামী প্রজন্মের কাছে যে কলকাতার ইতিহাসের যথাযথ তথ্য আর ব্যাখ্যা পৌঁছে দেওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন, সে কথাও বলেন দেবর্ষিবাবু। একমাত্র বাঙালি সংগ্রহশালার জন্মদিনটিতে ইতিহাসচর্চা করার জন্য সকলের কাছে আবেদন জানান তিনি। কারণ ইতিহাসের মধ্যেই থাকে শিকড়ের খোঁজ। আর তা ধরেই আগামী দিনে এগিয়ে চলা সম্ভব।

সাবর্ণদের আরও খবর পড়তে ক্লিক করুন

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here