জাতীয় সংগীত ‘জনগণমন’ নিয়ে এই তথ্যগুলি কি আপনি জানেন?

0
anthem
জাতীয় সংগীত

ওয়েবডেস্ক: জানেন কি কোন রাগ আর কী তালে গাওয়া হয় জাতীয় সংগীত ‘জনগণমন’? গানটি ইমন রাগে আর কাহারবা তালে গাওয়া হয়।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সৃষ্টি এই গানটি। তবে ঠিক কবে কোথায় এই গান রচনা করেছিলেন তিনি সেই পাণ্ডুলিপি পাওয়া যায়নি। তবে একটি বিতর্ক আছে রবীন্দ্রনাথ পঞ্চম জর্জকে স্বাগত জানাতে এই গান রচনা করেছিলেন।

যা-ই হোক,  ১৯১১ সালে ২৭ ডিসেম্বর কলকাতায় অনুষ্ঠিত জাতীয় কংগ্রেসের ২৬তম বার্ষিক অধিবেশনে সমবেত কণ্ঠে এই গানটি প্রথম গীত হয়। এবং এর প্রথম স্তবকটি ১৯৫০ সালে স্বাধীন ভারতের জাতীয় সংগীত রূপে স্বীকৃতি লাভ করে। ১৯১১ সালে গানটি গাওয়ার আগে দিনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের নেতৃত্বে গানের রিহার্সাল হয়েছিল ডাঃ নীলরতন সরকারের হ্যারিসন রোড অধুনা মহাত্মা গান্ধী রোডের বাড়িতে।


রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

সোভিয়েত ইউনিয়ন ভ্রমণ কালে মস্কোয় পায়োনিয়ার্স কমিউনের অনাথ শিশুদের অনুরোধে রবীন্দ্রনাথ নিজেও এই গানটি গেয়ে শুনিয়েছিলেন।  


নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু

১৯৩৭ সালেই নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে প্রথম জনগণমন গানটির প্রস্তাব দেন। এর পর ১৯৪৩ সালের ৫ জুলাই আজাদ হিন্দ ফৌজ গঠনের কথা ঘোষণা করার সময়ই প্রথম জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে জনগণমন গাওয়া হয়। এর পর ২১ অক্টোবর সিঙ্গাপুরে আরজি হুকুমৎ-এ-হিন্দ প্রতিষ্ঠা হয়। এই দিনও জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে জনগণমন গাওয়া হয়েছিল। ১৯৪৪ সালের মার্চ মাসে আজাদ হিন্দ ফৌজ মৌডক রণক্ষেত্রে জয়লাভ করে। তার পর দেশের ফিরে প্রথম ভারতের মাটিতে ‘জনগণমন’ ভারতের জাতীয় সঙ্গীত রূপে বাজানো হয়।

অবশেষে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতার ভিত্তিতে ‘জনগণমন’ই ভারতের জাতীয় সঙ্গীতের মর্যাদা লাভ করে। ২৪ জানুয়ারি ১৯৫০ তারিখে ভারতের সংবিধান সভা এই গানটিকে জাতীয়সংগীত করার পক্ষে মত দেয়। ভারতের মুসলমান সমাজের কাছেও গানটি গ্রহণযোগ্যতা ছিল।

স্বাধীনতা দিবস নিয়ে আরও খবর পড়ুন

------------------------------------------------
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.