এই ৮টি মন্দিরে মা কালীর ভোগের ডালিতে কী কী পদ থাকে জানুন

0

কালীপুজোয় পশ্চিম বাংলার বিভিন্ন প্রাচীন বিখ্যাত মন্দিরগুলিতে ভোগের ডালিতে রাখা হয় বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার। অনেক জায়গায় ভোগে রাখা হয় বলির মাংস আবার কোথাও বা সোমরস (মদ)। কথিত আছে, দেবী কালী নাকি শিবের সাধ্বী স্ত্রী। তিনি সাধারণত ভগবান শিবের উচ্ছিষ্ট গ্রহণ করেন যা সম্পূর্ণ ভাবে নিরামিষ ভোজন। অর্থাৎ দেবী কালী আমিষ খান না।

অনেকে মনে করেন, যেহেতু শিব এবং কালীর আশ্রয় রয়েছে অনেক ভূত,পেত্নী, ডাকিনী, যোগিনী তাই তাদের জন্যই প্রয়োজন পড়ে রক্ত-মাংসের। কোথাও আবার দেবী কালী রক্তপান করছেন এমন মূর্তি দেখতে পাওয়া যায়। নবকালী বা পঞ্চমকালীর পুজো মণ্ডপগুলিতে দেবীর রূপের বিশেষত্বগুলো চোখে পড়ে। কোথাও ভোগে নিরামিষ আবার কোথাও বা আমিষ ভোগ দেওয়া হয়।

১। দক্ষিণেশ্বরের কালী মন্দির-

ভোরে দেবী ভবতারিণীর বিশেষ আরতি দক্ষিণেশ্বরের পুজোর বিশেষ আকর্ষণ। ঘট স্নানের পর মায়ের পুরনো ঘটেই নতুন করে গঙ্গার জল ভরে প্রতিষ্ঠা করা হয় কালীপুজোর দিন। দক্ষিণেশ্বরে মা ভবতারিণী ঠাকুর শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণের দেখানো পথেই পুজো পান। মায়ের ভোগও অতি সাধারণ। ভোগে নিবেদন করা হয় সাদাভাত, ঘি, পাঁচরকমের ভাজা, শুক্তো, তরকারি, পাঁচরকমের মাছের পদ, চাটনি, পায়েস ও মিষ্টি। তবে এখানে কারণবারির (মদ) বদলে ডাবের জল দিয়েই মায়ের পুজো হয়।

২। কালীঘাট কালী মন্দির- 

কলকাতার প্রাচীন কালীতীর্থ হল কালীঘাট মন্দির। সতীর একান্নপীঠের অন্যতম এই কালীঘাট। বেগুনভাজা, পটলভাজা, কপি, আলু ও কাঁচকলা ভাজা, ঘিয়ের পোলাও, ঘি ডাল, শুক্তো, শাকভাজা, মাছের কালিয়া, পাঁঠার মাংস ও চালের পায়েস। তবে রাতে মা লক্ষ্মীকে নিরামিষ ভোগ নিবেদন করা হয় কালীঘাটে। লুচি, বেগুনভাজা, আলু ভাজা, দুধ, ছানার সন্দেশ আর রাজভোগ থাকে কালীঘাটের ভোগে।

৩। তারাপীঠ কালী মন্দির- 

বীরভূমের তারাপীঠ সতীর একান্নপীঠের অন্যতম পীঠস্থান। সারাবছর দেবী মা তারা রুপে পুজো পেলেও কালীপুজোর দিন মা কালী রুপেই পুজিতা হন। অমাবস্যা তিথি মেনে গভীর রাতে নিশিপুজো হয় তারাপীঠে। কালীকে স্নান করিয়ে নতুন বেনারসী ও সোনার গহনায় সাজানো হয়। দুবেলা অন্নভোগ দেওয়া হয় এদিন। বিশেষ ভোগে নিবেদন করা হয় খিচুরি, পোলাও, পাঁচ রকমের ভাজা, তিন রকমের তরকারি, মন্দিরের বলির মাংস, পোড়ানো শোল মাছ, চাটনি, পায়েস ও মিস্টি। সন্ধ্যাবেলায় আরতিতে লুচি ও মিষ্টি নিবেদন করা হয় মা কালীকে।

৪। কালীকৃষ্ণ টেগোর স্ট্রিটের পুঁটে কালী-

কথিত, কোনো একবার হোমের সময় একটি পুঁটিমাছ হোমকুণ্ডে লাফিয়ে পড়লে সেই থেকে নামকরণ হয় পুঁটে কালী। কালীপুজোর দিন মাতৃআরাধনার জন্য দু’রকমের ভোগ দেওয়া হয়। নিরামিষ ভোগে থাকে খাস্তা কচুরি, চানাচুর, খিচুড়ি, পোলাও, লুচি, দু’ ধরনের তরকারি, চাটনি ও পায়েস। আমিষ ভোগে থাকে পাঁচ রকমের মাছ (পুঁটি, রুই, ইলিশ, বোয়াল ও ভেটকি)। কালীপুজোর পরের দিন সন্ধেবেলায় অন্নকূট ও কুমারীপুজো হয়।

৫। ঠনঠনিয়ার সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির-

আনুমানিক ১৭০৩ সালে উদয়নারায়ণ ব্রহ্মচারী নামে এক তান্ত্রিক সন্ন্যাসী সেই সময় জঙ্গলের মধ্যে পঞ্চমুণ্ডির আসনে ও ঘটে পুজো শুরু করেন। কালীপুজোর রাতে ভোগ দেওয়া হয়, লুচি, পটলভাজা, ধোঁকা বা আলুভাজা, আলুর দম ও মিষ্টি।

৬। বাগবাজারের সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির-

কালীবর তপস্বী নামে এক সন্ন্যাসী কুমোরটুলি অঞ্চলে হোগলাপাতার ছাউনিতে সিদ্ধেশ্বরী কালীমূর্তি করে পুজো শুরু করেন। শোভাবাজারের রাজা নবকৃষ্ণ দেবের আদেশ অনুযায়ী আজও শোভাবাজার থেকে অন্নভোগের জন্য সবজি আসে। খিচুড়ি, সাদাভাত ভোগে থাকে। ডাল, পাঁচ রকম ভাজা, ডালনা, ছ্যাঁচড়া, মাছের ঝোল, চাটনি, পায়েস ও নানা ধরনের মিষ্টি। সিদ্ধেশ্বরী তন্ত্রমতে পুজো হয়।

৭। বৌবাজারের ফিরিঙ্গি কালী মন্দির-

ঊনবিংশ শতাব্দীর কবিয়াল অ্যান্টনি এই মন্দিরে আসতেন বলে লোকমুখে তা ফিরিঙ্গি কালিবাড়ি বলে পরিচিত হয়েছে। ভোগে থাকে খিচুড়ি, পোলাও, পাঁচ রকমের তরকারি, আমসত্ত্ব, খেজুর বা আলুবোখরার সঙ্গে আমসত্ত্ব কিসমিসের চাটনি। চালকুমড়ো, শশা ও আখ বলি হয়।

৮। টালিগঞ্জের করুণাময়ী মন্দির-

১৭৬০ সালে টালিগঞ্জ পশ্চিম পুঁটিয়ারি অঞ্চলে দ্বাদশ শিবমন্দির সহ নবরত্ন কালীমন্দির স্থাপন করেন বড়িশার সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের নন্দদুলাল রায়চৌধুরী। তাঁর অকালপ্রয়াত কন্যার স্মৃতিতে এই মন্দির স্থাপন করেন বলে জানা যায়। কালীপুজোর দিন করুণাময়ী কালীকে কুমারী হিসেবে পুজো করা হয়। রাতে ভোগ দেওয়া হয় লুচি, ছোলার ডাল, ফুলকপির তরকারি, লাল নটেশাক সহ সাত রকম ভাজা, সঙ্গে খিচুড়ি, পাঁচ সবজির তরকারি, সাদা ভাত, মোচার ঘণ্ট, এঁচোড়ের ডালনা, পোলাও, সাত রকম মাছের পদ, আলুবোখরার চাটনি, পায়েস ও পান। যদুবাবুর বাজার থেকে আসে গলদা, ইলিশ, ভেটকি, ট্যাংরা, কাতলা, পাবদা ও পার্শে।

আরও পড়ুন: প্রসিদ্ধ এই কালীমন্দিরগুলোর পৌরাণিক কাহিনি জানেন কি?

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন