সর্বধর্ম সমন্বয়ের বার্তা দিয়ে মুম্বই রামকৃষ্ণ মিশনের পুজো সারল নবমীর যজ্ঞ

0
Arunava-Gupta
অরুণাভ গুপ্ত

বিচিত্র উপলব্ধির দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে মুম্বই রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের দুর্গাপুজোয় মিলল এক বিচিত্র অভিজ্ঞতা। মহানমবমীর যজ্ঞস্থলেও আবেদন উঠল সর্বধর্ম সমন্বয়ের। যার স্পষ্ট প্রভাব ধরা পড়ল পুরোহিতদের মন্ত্রোচ্চারণেও।

অষ্টমীর কুমারীপুজোর রেশ মিটতে না মিটতেই নবমীর যজ্ঞ দেখতে শামিল আসমুদ্র হিমাচলের অগণিত ভক্ত-দর্শনার্থী। যেখানে জাতপাতের নেই কোনো বালাই। শ্রীরামকৃষ্ণদেবের চিরস্থায়ী আদর্শকে পাথেয় করে স্বামী বিবেকানন্দের ভাবধারাই ঐতিহ্য এই পুজোর।

তা না হলে কি আর যজ্ঞে হিন্দুশাস্ত্রের সমস্ত দেব-দেবীর পাশাপাশি উচ্চারিত হয় বিশ্বব্য়াপী পূজিতদেরও নাম! এ দিন নবমীর যজ্ঞের মন্ত্রোচ্চারণে উঠে এল যিশু খ্রিস্ট-সহ অন্যান্য ধর্মের আরোধ্য দেবদেবীর নামও উচ্চারিত হল পূজারীদের স্তোত্রপাঠে।

সারা দেশ থেকেই এই বিশেষ সময়ে মঠ ও মিশনে এসেছেন অসংখ্য মানুষ। এঁদের থাকার জন্য গেস্ট হাউস রয়েছে। স্বামীজী-ব্রহ্মচারীদের পাশাপাশি নানান ভাষাভাষী গৃহস্থ মহিলারা ওখানে সকাল থেকে সমানতালে পুজোর আয়োজনে ব্যস্ত থাকছেন।

বৈদিক মতে দেবী দুর্গার আরাধনা, এত নিষ্ঠা আর ভক্তি সহকারে নিখুঁত মাতৃ আরাধনা দর্শনার্থীদের মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখে, মন্ত্রোচ্চারণে অপরিচিত অনুভূতি শরীর ও মন যেন ধ্যানমগ্ন হয়ে পড়ে।

সব শেষে যে কথা না বলে পারছি না- সন্ধ্যারতির বুঝি বা কোনো বিকল্প নেই। পুজারীদের নিঃশেষে নিজেকে মায়ের পায়ে সমর্পন করার মাধ্যমে সর্বজনীন মঙ্গল কামনা করা যেন নতুন ঊষার জন্ম দিচ্ছে। …দৃষ্টিকটু লেগেছে পুজো প্রাঙ্গণে ঢালাও ব্যবসার ঢল দেখে এবং তার সঙ্গে দর্শনার্থী দঙ্গলের পাল্লা দিয়ে খাওয়ার বহর, সুরের মাঝে অসুরের প্রবেশ ঘটিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here