Connect with us

দুর্গা পার্বণ

৪ কোটির টাকার সোনার গয়না পরছেন মা দুর্গা, যাচ্ছেন ত্রিপুরায়

ত্রিপুরার একটি পুজোমণ্ডপের ঠাকুর, তৈরি হচ্ছে হাবড়ার বানিপুর মহেশতলায়। রাজ্য পেরিয়ে ঠাকুর যাবে ভিন্‌ রাজ্যে, এ আর বড় কথা কী। তা তো হামেশাই হয়। কিন্তু এ প্রতিমা, যে-সে প্রতিমা নয়। রীতিমতো হিরে আর সোনায় মোড়া। প্রতিমা গড়ছেন হাবড়ার বানিপুরের মৃৎশিল্পী ইন্দ্রজিৎ পোদ্দার৷ গত বছর ত্রিপুরার এই পুজোকমিটি মুক্তোর ঠাকুর করে সাড়া ফেলে দিয়েছিল। সেই প্রতিমাও […]

Published

on

ত্রিপুরার একটি পুজোমণ্ডপের ঠাকুর, তৈরি হচ্ছে হাবড়ার বানিপুর মহেশতলায়। রাজ্য পেরিয়ে ঠাকুর যাবে ভিন্‌ রাজ্যে, এ আর বড় কথা কী। তা তো হামেশাই হয়। কিন্তু এ প্রতিমা, যে-সে প্রতিমা নয়। রীতিমতো হিরে আর সোনায় মোড়া। প্রতিমা গড়ছেন হাবড়ার বানিপুরের মৃৎশিল্পী ইন্দ্রজিৎ পোদ্দার৷habra-1

গত বছর ত্রিপুরার এই পুজোকমিটি মুক্তোর ঠাকুর করে সাড়া ফেলে দিয়েছিল। সেই প্রতিমাও তৈরি করেছিলেন হাবড়ার এই মৃৎশিল্পীই। এবার তাঁদের লক্ষ্য সোনার প্রতিমা করার। সেই লক্ষ্য পূরণ করতে হাবড়ার বানিপুরে মহেশতলা এলাকায় চলতি বছরের এপ্রিল মাস থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে তার তোড়জোড়। প্রথমে শুরু হয়েছে প্রায় ৮ ফুটের মাটির দুর্গাপ্রতিমা তৈরির কাজ৷ এর পর সেই দুর্গাপ্রতিমার উচ্চতায় মানানসই সোনার গয়না অর্ডার দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। অন্য দিকে ক্রমশ মাটির দুর্গাপ্রতিমার উপর ফাইবারের প্রলেপ দেওয়ার কাজও সম্পূর্ণ হয়েছে৷ তার পর আমেরিকান ডায়মন্ডের ছোটো ছোটো দানা দিয়ে তৈরি এক ধরনের চাদর দিয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে প্রতিমাটি৷ সবশেষে হচ্ছে গয়না পরানোর কাজ৷ মায়ের অলঙ্কার থেকে শাড়ির বিভিন্ন নকশা, পুরোটাই সোনার কাজে ভরিয়ে দেওয়া হয়েছে৷

শুধু কি মা একাই হিরে-সোনায় সজ্জিতা ? না। এক যাত্রায় পৃথক ফল নয়। লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ, সকলেই একই ভাবে মুড়ে থাকছেন সোনায়।

সোনার প্রতিমার মণ্ডপ তৈরি হবে দক্ষিণ ভারতের এক বিখ্যাত স্বর্ণমন্দিরের আদলে৷ সেখানেও থাকবে অসাধারণ কারুকার্য৷ মণ্ডপসজ্জায় ধাতু ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই ধাতুর ওপর থাকবে সোনার জলের প্রলেপ।

হাবড়ার এই গোটা কর্মকাণ্ডটি এবং আনুষঙ্গিক সব কাজ চলছে ত্রিপুরার ওই পুজো কমিটির অর্থানুকুল্যে। সমস্ত কাজটি নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করার জন্য সাহায্য নেওয়া হয়েছে রাজ্য পুলিশের। চব্বিশ ঘণ্টাই পুলিশি প্রহরায় চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ।

প্রতিমার যাবতীয় কাজে মোট কত কিলো সোনা ব্যবহার করা হয়েছে, তার কোন অনুমান না থাকলেও, শিল্পী জানান, এই প্রতিমা তৈরি করতে কমপক্ষে ৪কোটি টাকা মূল্যের সোনা ব্যবহার করা হয়েছে।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দুর্গা পার্বণ

উধাও হয়ে যাওয়া শ্রীরাধারমণ বিগ্রহ ফিরে পেতেই শান্তিপুরের বড়ো গোস্বামী বাড়িতে শুরু হয় কাত্যায়নীর আরাধনা

দেবীর বাহন সিংহ ঘোটকাকৃতি। প্রতিমার দশটি হাতের মধ্যে দুটি হাত বড়, আটটি হাত ছোটো।

Published

on

বড়ো গোস্বামী বাড়ির দুর্গাপূজা।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

শান্তিপুরের প্রাচীন ঐতিহ্যের মধ্যে অন্যতম এই অঞ্চলের দুর্গাপুজো, যা বহু বছর ধরে হয়ে আসছে বিভিন্ন বনেদিবাড়িতে। বৈষ্ণব এবং শৈব ধারার পাশাপাশি এখানে শাক্তমতের আড়ম্বরও লক্ষ করা যায়, ধুমধাম করে পালিত হয় দুর্গাপুজো, কালীপুজো।

এই অঞ্চলের একটি প্রাচীন পরিবারে রাস উৎসবের পাশাপাশি সাড়ম্বর পালিত হয় দুর্গাপুজো। শান্তিপুরনাথ অদ্বৈতাচার্যের পুত্র বলরাম মিশ্রের পুত্র মথুরেশ গোস্বামীর প্রথম পুত্র রাঘবেন্দ্র গোস্বামী থেকেই বড়ো গোস্বামী বাড়ির সৃষ্টি। এই বাড়িতে আজও নিত্য পূজিত হন অদ্বৈতাচার্যের সেবিত শালগ্রামশিলা এবং আরও অনেক দেবদেবী।

বড়ো গোস্বামী বাড়ির পূর্বপুরুষ মথুরেশ গোস্বামী তাঁর পিতার কাছ থেকে শ্রীশ্রীরাধামদনমোহন, প্রভু সীতানাথ, সীতামাতা ও অচ্যুতানন্দের সেবাভার পেয়েছিলেন। মথুরেশ গোস্বামী বাংলাদেশের যশোহর থেকে এনেছিলেন শ্রীরাধারমণকে  এবং সেই বিগ্রহ সেবা পান শান্তিপুরের বড়ো গোস্বামী বাড়িতে।

এই রাধারমণ একবার বাড়ির মন্দির থেকে রহস্যজনক ভাবে উধাও হয়ে যান। সেই বিগ্রহ ফিরে পেতেই বাড়ির মহিলারা ব্রত রাখলেন দেবী কাত্যায়নীর। কারণ বৃন্দাবনে গোপীরা যেমন কাত্যায়নীব্রত করে লীলাপুরুষোত্তমকে পেয়েছিলেন ঠিক তাঁদেরও তেমন বিশ্বাস ছিল যে তাঁরাও তাঁদের রাধারমণকে ফিরে পাবেন দেবীর ব্রতপূজা করলে। এবং পুজোর সময় স্বপ্নাদেশে জানতে পারা গেল, বাড়ি থেকে কিছুটা দূরেই রয়েছেন রাধারমণ। তখন বড়ো গোস্বামী বাড়ির সদস্যরা তাঁকে নিয়ে আসেন। এ ভাবেই প্রায় সাড়ে তিনশো বছর আগে বড়ো গোস্বামী বাড়িতে শুরু হয় কাত্যায়নী তথা মা দুর্গার আরাধনা, যা আজও নিষ্ঠার সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে।

বড়ো গোস্বামী বাড়িতে মা দুর্গার আরাধনা।

প্রত্যেক বনেদিবাড়ির দুর্গাপ্রতিমায় যেমন কিছু বৈশিষ্ট্য থাকে, বড়ো গোস্বামী বাড়িও তার ব্যতিক্রম নয়। এই বাড়িতে দেবীর বাহন সিংহ ঘোটকাকৃতি। প্রতিমার দশটি হাতের মধ্যে দুটি হাত বড়, আটটি হাত ছোটো। কার্তিক, গণেশ, লক্ষ্মী এবং সরস্বতী থাকে বিপরীত দিকে। দেবীর ডান দিকে থাকে কার্তিক ও লক্ষ্মী এবং বাঁ দিকে গণেশ ও সরস্বতী। এই পরিবারের পুজো হয় পূর্বপুরুষদের তৈরি করা বিশেষ পুথি দেখে এবং মহানবমীতে হয় বিশেষ প্রার্থনা।

এই বাড়িতে ভোগরান্না করেন বাড়ির দীক্ষিত মহিলারা। ভোগরান্নায় অন্য কারও অধিকার নেই। এই বাড়ির পুজোয় ৩৬ রকমের পদ দিয়ে ভোগ দেওয়া হয়। ভোগে থাকে সাদা ভাত, খিচুড়ি, নানা রকমের ভাজা, শুক্তানি, তরকারি, পোলাও, ধোঁকার তরকারি, ছানার ডালনা ইত্যাদি।

দশমীর দিন শান্তির জল দেওয়া হয়। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকেন এলাকার মানুষেরাও। সব থেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল এখানে মায়ের সকালবেলায় বিসর্জন হয়ে যায়। কারণ মা যতক্ষণ না বিসর্জিত হন ততক্ষণ বড়ো গোস্বামী বাড়ির ইষ্টদেবতা শ্রীশ্রীরাধারমণ জিউয়ের ভোগ রান্নার কাজ শুরু হয় না। মা চলে যাওয়ার পরেই তা শুরু হয়।

দশমীর দিন মায়ের বিসর্জনের আগেই রাসের খুঁটি পুঁতে রাস উৎসবের শুভ সূচনা হয়। এ ছাড়াও শ্রীশ্রীআগমেশ্বরী মায়ের পাটপুজো দেখে তার পর মা বিসর্জনে যান। বিসর্জনের পরে ঘাটে উপস্থিত প্রায় ৩০০-৪০০ জনকে মিষ্টিমুখ করানো হয়।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

বড়িশার আটচালায় কলকাতার প্রথম দুর্গাপুজো শুরু করলেন লক্ষ্মীকান্ত

Continue Reading

দুর্গা পার্বণ

দুর্গোৎসব বাংলাদেশে: সাংবাদিক বৈঠক ও মানববন্ধন করে ৩ দিন ছুটির দাবি

বর্তমানে বিজয়া দশমীর দিনে ছুটি রয়েছে। সঙ্গে অষ্টমী ও নবমী যোগ করে ৩ দিনের ছুটির দাবি জানান তাঁরা।

Published

on

press conference by hindu mahajot
সাংবাদিক বৈঠকে বক্তব্য রাখেছেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সভাপতি ড. প্রভাস চন্দ্র রায়।

ঋদি হক: ঢাকা

উৎসব মানেই প্রাণের মিলনমেলা। বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমন স্বপ্নই দেখতেন। বঙ্গবন্ধু কোনো দিনই ধর্ম হিসেবে কাউকে আলাদা করে দেখেননি। এই মহান মানুষটির দৃষ্টি জুড়ে ছিল ‘আমার বাঙলার মানুষ’। তাই তিনি ‘গণনায়ক’ হয়ে উঠতে পেরেছিলেন। বাঙালিকে যে ঐক্যের মন্ত্র তিনি শিখিয়ে গিয়েছেন, যে পথ তিনি দেখিয়ে গিয়েছেন, সেই পথই অনুসরণ করে চলেছেন তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বরাবরই বলে আসছেন, অশুভ শক্তির বিনাশ এবং সত্য ও সুন্দরের আরাধনা শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রধান বৈশিষ্ট্য। দুর্গাপূজা শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ের উৎসবই নয়, এটি বাংলাদেশের বুকে সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের নিরাপদ আবাসভূমি। তিনি এই উৎসব সম্পর্কে বলেন, “’আমার প্রত্যাশা, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ এ মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে আমরা সবাই একসাথে উৎসব পালন করব।” শেখ হাসিনা শারদ উৎসবে শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়ে থাকেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “সকলে মিলে যুদ্ধ করে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছি। তাই এই দেশ আমাদের সকলের। আমাদের সংবিধানে সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষের সমানাধিকার সুনিশ্চিত করা হয়েছে।”

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই বাণীর রেশ ধরেই সনাতন ধর্মাবলম্বীরা আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসব পালনে তিন দিনের ছুটি দাবি করেছেন। শুক্রবার রাজধানীর ঢাকার সেগুনবাগিচায় এক সাংবাদিক বৈঠক ডেকে এই দাবির কথা তুলে ধরেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের নেতৃবৃন্দ।

তাঁরা বলেন, সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমী উপলক্ষ্যে দিনরাত পুজো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করতে হয়। বর্তমানে বিজয়া দশমীর দিনে ছুটি রয়েছে। সঙ্গে অষ্টমী ও নবমী যোগ করে ৩ দিনের ছুটির দাবি জানান তাঁরা। ছুটির দাবিতে আগামী ২৩ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচিও ঘোষণা করে সংগঠনটি। একই দিনে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা প্রশাসকের কাছেও স্মারকলিপি প্রদানেরও কর্মসূচি রয়েছে।

সাংবাদিক বৈঠকে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি ড. প্রভাস চন্দ্র রায়, প্রধান সমন্বয়কারী প্রকৌশলী শ্যামল কুমার রায়, সিনিয়র সহসভাপতি ডি সি রায়, মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎ মৃধা, মহাসচিব এবং মুখপাত্র পলাশকান্তি দে প্রমুখ।

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের অপর অংশের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিকের নেতৃত্বে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন।

একই দাবিতে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের অপর অংশ এ দিন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে। সংগঠনের মহাসচিব আইনজীবী গোবিন্দ্র চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, তাঁরা তিন দিনের ছুটির দাবিতে আগেও কর্মসূচি পালন করেছেন। এ ব্যাপারে তাঁদের সাংবিধানিক অধিকারের কথাও তুলে ধরেন। তাঁদের আশা, শেখ হাসিনা অবশ্যই তাঁদের নিরাশা করবেন না।

করোনাকালীন সময়েও বাংলাদেশে প্রায় ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গোৎসব উদযাপনের আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। আয়োজনও চলছে পুরোদমে। কোথাও কোথাও প্রতিমা গড়ার কাজ সম্পন্ন। বাকি রয়েছে রঙ-তুলির আঁচড়।

পূজো উপলক্ষ্যে সর্বোচ্চ সতর্কতা নেওয়া হয়ে থাকে। পূজো শুরুর সপ্তাহখানেক আগে থেকেই আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর তরফে মণ্ডপ পরিদর্শন, অস্থায়ী ক্যাম্প বসানো ছাড়াও পূজা উদযাপন পর্ষদের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন। ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির, রমনা কালীমন্দির ও মা আনন্দময়ী আশ্রম, সিদ্ধেশ্বরী  কালীমন্দির, বরদেশ্বরী কালীমাতা মন্দির-সহ বিভিন্ন মন্দিরে পুলিশ ও র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্প বসানো হয়ে থাকে।

ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা উদযাপন পরিষদের দফতর সম্পাদক বিপ্লব দে  বলেন, ৫ দিনব্যাপী দুর্গোৎসবের শেষ দিন অর্থাৎ বিজয়া দশমীর দিন মাত্র এক দিনের ছুটি রয়েছে। কিন্তু অষ্টমীর দিন উপোসের নিয়ম ছাড়াও নবমীর দিন মায়ের বিদায়ের আয়োজনে ব্যস্ত সময় কাটাতে হয়। এ কারণে মোট তিন দিনের ছুটির দাবি তাঁদের।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির পরিদর্শনে বিএসএফ-এর ডিজি রাকেশ আস্থানা

Continue Reading

দুর্গা পার্বণ

‘দুর্গাপুজোর আনন্দ কোনো ভাবেই মাটি হবে না’, আশ্বস্ত করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

…মহালয়ায় আমি আপনাদের নিশ্চিত করছি, কেউ দুর্গাপুজোর আনন্দ থেকে বঞ্চিত হবেন না”, বললেন মুখ্যমন্ত্রী।

Published

on

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

কলকাতা: কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যেও আসন্ন দুর্গাপুজোর আনন্দ কোনো ভাবেই মাটি হবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এ দিন টুইটারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, “মহালয়ার শুভক্ষণে প্রত্যেককে শুভেচ্ছা জানাই। করোনার কারণে বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ থাকলেও দুর্গাপুজোর আনন্দ কোনো ভাবেই মাটি হবে না। মহালয়ায় আমি আপনাদের নিশ্চিত করছি, কেউ দুর্গাপুজোর আনন্দ থেকে বঞ্চিত হবেন না”।

একই সঙ্গে তিনি লিখেছেন, “আমি সবাইকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি, অভাবগ্রস্তদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন এবং সর্বত্র আনন্দ ছড়িয়ে দিন”।

এ বার মহালয়ার দিনেই বিশ্বকর্মা পুজো। শুভেচ্ছা জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, “শ্রমিক ভাই ও বোনেদের এবং তাঁদের পরিবার-পরিজনদের বিশ্বকর্মাপুজোর শুভেচ্ছা জানাই। তাঁরা আমাদের গর্ব। সমাজের উন্নয়নের জন্য তাঁরা নিরলস ভাবে পরিশ্রম করেন”।

আরও পড়তে পারেন: কোভিড রুখতে অনলাইন মাধ্যমকে হাতিয়ার করছে কলকাতার একাধিক পুজো

উল্লেখ্য, করোনার ত্রাসে নাজেহাল সকলেই, ক্রমশ বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। কিন্তু এর মধ্যেই আসছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। আর মাত্র মাসদেড়েকের অপেক্ষা। করোনা আবহের কারণে সামান্য কিছু বিধিনিষেধ থাকতে পারে এ বারের দুর্গাপুজোয়। বিস্তারিত পড়ুন এখানে: ২০২০-তে দুর্গাপুজো নয়, এ কথা আমরা বলেছি প্রমাণ করুন, ১০০ বার ওঠবোস করব: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Continue Reading
Advertisement
দেশ3 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৭৫০৮৩, সুস্থ ১০১৪৬৮

দেশ2 days ago

সোমবার থেকে স্কুল খোলা বাধ্যতামূলক নয়, দেখে নিন কোন রাজ্য কী সিদ্ধান্ত নিল

জীবন যেমন3 days ago

মাত্র কয়েক বারেই চুল সিল্কি করার দারুণ ৬টি ঘরোয়া উপায়

দেশ2 days ago

ব্যথার কারণ খুঁজতে হল এক্স-রে, বন্দির মলদ্বারে হদিশ মিলল চারটি মোবাইলের

partha chatterjee
কলকাতা3 days ago

ঐতিহ্যবাহী প্রতিভা গ্রন্থাগারের দ্রুত সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

রাজ্য2 days ago

জাতীয় গড়ের তুলনায় রাজ্যে সুস্থতার হার অনেকটাই বেশি, কেন্দ্রের প্রশংসা

sexting
প্রযুক্তি3 days ago

স্মার্টফোনের অ্যাপগুলিতে ৬২ শতাংশ ভারতীয় মহিলার মন মজেছে ‘সেক্সটিং’-এ: সমীক্ষা

mamata banerjee
রাজ্য2 days ago

সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্তরবঙ্গ সফর স্থগিত

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা6 days ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা2 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা2 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা4 weeks ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

kitchen kitchen
কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই ৮টি জিনিস কাজ অনেক সহজ করে দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজকাল রান্নাঘরের প্রত্যেকটি কাজ সহজ করার জন্য অনেক উন্নত ব্যবস্থা এসে গিয়েছে। তা হলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কষ্ট...

care care
কেনাকাটা1 month ago

চুল ও ত্বকের বিশেষ যত্নের জন্য ১০০০ টাকার মধ্যে এই জিনিসগুলি ঘরে রাখা খুবই ভালো

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পার্লার গিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার সময় অনেকেরই নেই। সেই ক্ষেত্রে বাড়িতে ঘরোয়া পদ্ধতি অনেকেই অবলম্বন করেন। বাড়িতে...

কেনাকাটা2 months ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

নজরে