সাবেকিয়ানার ঐতিহ্যে সাজবে হালসিবাগানের ৭৫তম বর্ষের ‘মা’

0
halsibagan
হালসিবাগান ২০১৮
smita das
স্মিতা দাস

৭৫তম বর্ষে ফের ফিরে যাওয়া সাবেকিয়ানায়। এমনটাই ঠিক করেছে হালসিবাগান সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটি। তবে গোটা মণ্ডপ তৈরি হচ্ছে এক কাল্পনিক রাজবাড়ির আদলে। সেখানেই রাজবাড়ির ঠাকুর লানে পূজিত হবেন দেবী। ঠাকুরও হবে বিষয়ের সঙ্গে মিলিয়ে এক চালচিত্রের। দেবীর পরনে থাকবে সাদা লাল পাড় বেনারসী শাড়ি।

কেন থিম থেকে সরে এলেন? এই প্রশ্নের জবাবে পুজো কমিটির কো-অর্ডিনেটার অমিত মুখার্জি বলেন, থিমের সঙ্গে মিলিয়ে নতুন ধনের প্রতিমার মধ্যে অনেকেই দেবীকে খুঁজে পান না। ভক্তি আসে না। তাই ৭৫তম বর্ষে পাড়ার সকলের অনুরোধেই আবার ফিরে যেতে হয়েছে সাবেকিয়ানায়। তবে গোটাটাই সাদামাটা নয়। মণ্ডপ সাজানো হবে রাজবাড়ির আদলে। এক কথায় এই বারের থিমের নাম দেওয়াই যায় সাবেকিয়ানার ঐতিহ্য ‘পরম্পরা’।

মণ্ডপের আনাচকানাচ সাজবে রাজবাড়ির ঠাকুরদালানের ধাঁচেই। তার জন্য নানান ধরনের প্রয়োজনীয় সামগ্রী ব্যবহার করা হবে।

এই বছরের মণ্ডপ তৈরির কাজ চলছে

গোটা মণ্ডপ, প্রতিমা ও সাজসজ্জার দায়িত্বে রয়েছেন মেদিনীপুরের শিল্পী বাসুদেব ভরা।  

গত বার হালসিবাগানের নিবেদন ছিল মানুষের সঙ্গে লোকশিল্পের পরিচয়। সে বারে হারিয়ে যাওয়া শিল্পের সঙ্গে পরিচয় করানোটাই ছিল মূল উদ্দেশ্য।

মহালয়ার পর থেকেই মণ্ডপ দর্শনার্থীদের জন্য প্রস্তুত হয়ে যায়। তবে উদ্বোধনের দিন উপস্থিত থাকবেন শশী পাঁজা ও মদন মিত্র।

নিরোদবিহারী মল্লিক রোড আর বদ্রীদাস টেম্পল স্ট্রিটের সংযোগস্থলে এই পুজো। খান্না থেকে শিয়ালদার দিকে যাওয়ার পথে, বাস স্টপেজ বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ। এখানে নেমে বাঁ-হাতে গলির ভেতর পুজো। আবার খান্না থেকে উলটোডাঙা যাওয়ার পথে অরবিন্দ সেতুতে ওঠার আগে গৌরীবাড়িতে নেমে ডান দিকের রাস্তা ধরে কিছুটা এগোলেই মণ্ডপ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here