সেই ৩০০ বছর আগেকার কথা। প্রজাদের মঙ্গল কামনা করে উত্তর চব্বিশ পরগনার  গোবরডাঙার জমিদার বাড়িতে দুর্গাপূজা চালু করেন তৎকালীন জমিদার ফেলারাম মুখোপাধ্যায়। সেই থেকেই বংশপরম্পরায় এই পূজা হয়ে আসছে এখানে।

gobardanga-1

তবে সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বদলে গেছে অনেক কিছুই। আজ আর জমিদারি প্রথা নেই । কিন্তু দালানের প্রত্যেকটি ইঁটে আজও রয়ে গেছে জৌলুষের গন্ধ। পুরনো নিয়মেই আজও পুজো হয় এই বাড়িতে। সেই  আগের মতোই হয় এক চালার ঠাকুর, ডাকের সাজ। জন্মাষ্টমীর দিন কাঠামো পূজা  করে শুরু হয় প্রতিমা নির্মাণের কাজ। প্রতিপদ থেকেই এই ঠাকুর দালানে ঘট বসিয়ে পূজা করা হয়। বাকি সব পূজাচার  এক  থাকলেও শুধু বদলে গেছে বলিদানের প্রথা।

gobardanga-2

পূজা  ঘিরে আর আগের মতো জৌলুশ নেই, তবুও  আনন্দে একটুও ভাটা পরেনি। পূজার কয়েকটা দিন এই জমিদার বাড়ি থাকে দারণ জমজমাট। বাড়ির আত্মীয় স্বজনরা তো আসেনই। ঐতিহাসিক এই জমিদার  বাড়ির পূজা দেখতে হাজির হন বহু মানুষ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন