কলকাতার ৮৮ ফুটের পর এবার বাংলাদেশের নোয়াখালিতে ৭১ফুট। বাংলাদেশে এর আগে এত বড় প্রতিমা হয়নি। সর্বোচ্চ সাত তলার সমান এই বিশাল প্রতিমাটি গড়া হচ্ছে নোয়াখালির চৌমুহানি সর্বজনীন বিজয়া দুর্গা মন্দিরের তত্ত্বাবধানে ও জেলা দুর্গাপুজা কমিটির সহযোগিতায়। দেবী দুর্গার সঙ্গে তাল মিলিয়ে অন্যান্য দেবতাদের মূর্তিও তৈরি করা হচ্ছে। ৫ অক্টোবরই দর্শকদের জন্য খুলে দেওয়া হবে মণ্ডপ।

bangladesh2মে মাসের মাঝামাঝি থেকে মৃৎশিল্পী অমল পাল ও তাঁর সহযোগীদের হাতে চলছে এই প্রতিমা তৈরির কাজ। প্রায় ৩০ জনের একটি দল প্রতি দিন প্রায় ১৬ ঘণ্টা লাগাতার কাজ করে গড়ে তুলছেন মাতৃ মূর্তি। প্রথমে বাঁশ, খড়, কাঠ আর লোহার রড দিয়ে দেবীর কাঠামো তৈরি করা হয়। তার ওপর মাটি দেওয়া হয়। শেষে সিমেন্টের প্রলেপ দিয়ে ঠাকুর তৈরি করা হয়েছে।

চৌমুহানি দুর্গা মন্দিরের পুকুরের মাঝখানের মঞ্চে ৭১ ফুটের দেবীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রয়েছেন ৪৫ ফুটের লক্ষ্মী, ৪০ ফুটের সরস্বতী, ৩৫ ফুটের গণেশ ও ৩০ ফুটের কার্তিকও। মোট খরচ হচ্ছে প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা। bangladesh1

পুজো কমিটির সাধারণ সম্পাদক তাপস পাল জানাচ্ছেন, নতুন কিছু করার লক্ষ্যেই এই বিরাট প্রতিমা গড়ার চিন্তা ভাবনা করা হয়েছিল। কাজ প্রায় শেষের মুখে। এর পর দেবী সেজে উঠবেন নানা রকমের গয়নাগাটিতে।

ছবি : বিবিসি বাংলা

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here