badamtala ashaar sangha durgapuja 2017
স্মিতা দাস

পুজো এসে গেছে। আর মাত্র ক’ দিন বাকি। এর মধ্যে পুজোপ্রেমীরা মোটামুটি ছকে ফেলেছেন ঠিক কোন কোন পাড়ায় ঢুঁ দেবেন। তাঁদের উদ্দেশে জানাই এ বারের কালীঘাটের বাদামতলা আষাঢ় সংঘের মাঠে দেখতে পাবেন আমেরিকাকে।

ইন্দো-ইউএস টুরিজম ইয়ার ২০১৭-কে সেলিব্রেট করা হচ্ছে আষাঢ় সংঘে। তবে আমেরিকার কোনো বিশেষ শহরকে এখানে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে না। গোটা আমেরিকার বেশ কিছু স্থাপত্যকে তুলে ধরে একটা গোটা আমেরিকার ছবি বানানোর চেষ্টা হচ্ছে। বা বলা যায় এক টুকরো আমেরিকাকেই বাদামতলা আষাঢ় সংঘের মণ্ডপে নামিয়ে আনা হবে।

এই বছরের থিমের ব্যাপারে যাবতীয় তথ্য দিলেন এ বারের শিল্পী স্নেহাশিস মাইতি।

কেন এমন ভাবনা? শিল্পী  স্নেহাশিসবাবু বলেন, আমেরিকায় প্রচুর প্রবাসী বাঙালি বসবাস করেন। তাঁরা ওখানে দুর্গাপুজো করেন। এই সব কথা মাথায় রেখেই এই থিম ভাবা হয়েছে।

badamtala ashaar sangha durgapuja 2017

আমেরিকা গড়ে তুলতে কী কী ব্যবহার করছেন? বলেন, নানা রকম জিনিস থাকছে। কাঠ, বাঁশ, প্লাই, বিভিন্ন ধাতু। তবে অ্যালুমিনিয়ামের ব্যবহারটা বেশি।

প্রতিমা সম্পর্কে তিনি বলেন, মাতৃমূর্তির আদল বাঙালি মেয়েরই থাকবে। তাতে বিদেশিনি প্রভাব থাকবে না। ঠাকুরও হবে মাটির। তবে হ্যাঁ, একটা চমক তো থাকবেই দেবীর সাজবেশে।

আরও পড়ুন : বড়িশা সর্বজনীন দুর্গোৎসবে এ বার ‘শূন্যতে শুরু শূন্যতেই শেষ’ 

তিনি বলেন, এ বারের উদ্যোগটা যৌথ। তিনি দেখছেন থিম আর পুর্ণেন্দু দে নিয়েছেন প্রতিমার দায়িত্ব।

sandip-chakraborty
পুজো কমিটির সাধারণ সম্পাদক সন্দীপ চক্রবর্তী

গত বছরের থিম ছিল ‘রাশিচক্র’। পুজো কমিটির সাধারণ সম্পাদক সন্দীপ চক্রবর্তী জানান, সে বছর দায়িত্বে ছিলেন অনির্বাণ দাস। খবরের কাগজের সব খবর পড়ার পর মনে হয় আজকের দিনটা কেমন যাবে। সেই ভাবনা বা আগ্রহের জায়গা থেকেই এই ‘রাশিচক্র’। এই ব্যাপারটা ঠিক কী, সে নিয়েই একটা বিষয় দর্শকদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছিল।

সন্দীপবাবু জানান, প্রতিবারই বাজেট থাকে মোটামুটি ৩৫ থেকে ৪০ লক্ষ টাকা।

বাদামতলা আষাঢ় সংঘের কাছে স্মরণীয় বছর ২০১০। সেই বছর এশিয়ান পেন্টসের শারদ সম্মান পেয়েছিল এই পুজো। এর আগে ২০০১ আর ২০০৭-এ নাম গিয়েছিল কিন্তু শেষ অবধি পেয়ে ওঠা হয়নি। আর ১৯৯৯ সাল থেকে সাবেক ছেড়ে থিম আসে বাদাম তলা আষাঢ় সংঘ।

উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

রাসবিহারী ক্রসিং-এ নেমে একটু হেঁটেই গলির ভেতর মণ্ডপ। নিকটবর্তী মেট্রো স্টেশন কালীঘাট।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন