pandal of ekdaliya evergreen
চলছে মণ্ডপ তৈরির কাজ। নিজস্ব চিত্র।
smita das
স্মিতা দাস

৭৬তম বর্ষে পা দিল একডালিয়া এভারগ্রিন। দক্ষিণ কলকাতার সেরা সাবেক পুজোগুলির মধ্যে একটি একডালিয়া। তবে সাবেক হলেও প্রতি বছরই মণ্ডপে থাকে নতুন চমক। বাদ যায়নি এই বছরও। এ বারের মণ্ডপ তৈরি হচ্ছে তামিলনাড়ুর তাঞ্জাভুরের বৃহদেশ্বর মন্দিরের আদলে তৈরি হচ্ছে বিশালাকার মণ্ডপ। এটি একটি বিশিষ্ট শিবমন্দির। মণ্ডপসজ্জার উপকরণ হিসাবে ব্যবহার হচ্ছে শুধুই ফাইবার।

সাধারণ সম্পাদক গৌতম বোস বলেন, এ বারের প্রতিমাশিল্পী সনাতন রুদ্র পাল। প্রতি বছরই মণ্ডপ করা হয় বিভিন্ন স্থাপত্যের আদলে। সেটাই এই মণ্ডপের ট্র্যাডিশন। কিন্তু ঠাকুর থাকেন বাঙালির সনাতন দুর্গাপ্রতিমার চেহারাতেই। সেই প্রথার নড়চড় হচ্ছে না এ বছরও। মণ্ডপ দক্ষিণ ভারতের এই মন্দিরের আদলে হলেও ঠাকুর দক্ষিণী বেশে নয়, বাঙালি বেশেই। ঠাকুর থাকছেন সাবেক চেহারাতেই। প্রতিমার পরণে থাকছে জরদৌসি বেনারসি শাড়ি। সব প্রতিমাকে শাড়ি পরাচ্ছে মোহিনীমোহন কাঞ্জিলাল।

inside the pandal.
ভিতরের কারুকাজ। নিজস্ব চিত্র।

এ বছরেও থাকতে পারে আলোকসজ্জায় নতুন কিছুর চমক। সেটা ঠিক কী জানতে গেলে অপেক্ষা করতে হবে মাঝের আর মাত্র কয়েকটা দিন। তার পরই ঢাকের তালে তালে শুরু পুজো। আর শুরু হয়ে যাবে মণ্ডপ, ঠাকুর দর্শন। তখনই জানা যাবে মণ্ডপ চত্বরে আর কী কী নতুন রয়েছে।

গত বছর ছিল চেন্নাইয়ের অষ্টলক্ষ্মী মন্দিরের আদলে মণ্ডপ। ২৮ ফুটের সাবেক প্রতিমার পরণে জরদৌসি বেনারসি শাড়ি। আলোকসজ্জায় ছিল ডিজনি ওয়ার্ল্ড। সেই ওয়ার্ল্ডে ছিল কঙ্কালের নাচ। যা খুশি করেছিল, আনন্দ দিয়েছিল মণ্ডপ দর্শনে আসা বাচ্চা থেকে বুড়ো প্রত্যেক দর্শনার্থীকেই।

আরও পড়ুন একঘেয়ে থিমের বাইরে বেরিয়ে ‘আলোর পথযাত্রী’দের শ্রদ্ধার্ঘ তেলেঙ্গাবাগানে
উদ্বোধন হবে মুখ্যমন্ত্রীর হাতে। তবে দিন এখনও জানা যায়নি।
পথনির্দেশ

গড়িয়াহাটে নেমে হাঁটা পথে একডালিয়া রোডে একডালিয়া এভারগ্রিনের মণ্ডপ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন