tridhara Durga Puja 2016
স্মিতা দাস

৭১তম বর্ষে বার্তা দেওয়া হবে আধুনিকতা যে ক্রমশ প্রকৃতিকে গ্রাস করে নিচ্ছে  সেই ব্যাপারে। তাই এ বছরের ট্যাগ লাইন হল ‘মরছি প্রতিদিন তবু নেই হুঁশ’। খবর অনলাইনকে বললেন ত্রিধারা সর্বজনীনের  সহকারী সাধারণ সম্পাদক মুকুল মান্না।

মুকুলবাবু বলেন, এই বছরের শিল্পী গৌরাঙ্গ কুইল্যা। গত পাঁচ বছর ধরে উনিই থিম আর ঠাকুর দু’টোই করছেন। এ বারেও তাই ওঁকেই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আধুনিকতা আর প্রকৃতি এই দু’টো কীভাবে তুলে ধরা হবে সেটা এখনই পরিষ্কার করে বলতে চান না শিল্পী। তাই ওটা এখনও রহস্য।

জানতে চাই গত বছরের থিম নিয়ে। মুকুলবাবু বলেন, গত বছর ছিল আফ্রিকান উপজাতিদের লাইভ শো। কারণ গত বছরের থিম ছিল শিকারের আগে উপজাতিদের বিশেষ উৎসব। উপজাতিরা শিকারে যাওয়ার আগে মাদল বাজিয়ে একটা উৎসব পালন করে। সেই উৎসবটা কেমন, তা-ই তুলে ধরা হয়েছিল থিমে। দেবীমূর্তিও ছিল তাল মিলিয়ে। মণ্ডপের যত্রতত্র ছিল শিকারের হাড়গোড়, খুলি ইত্যাদি। মোষের মাথা, আরও অনেক কিছু।

পুরস্কার? তা তো প্রচুর পায় এই পুজো। তবে সর্বাধিক পেয়েছিল দু’ বছর আগে। ৪৩টা পুরস্কার পেয়েছিল। তবে দর্শক ভালো বললে সেটা সব থেকে বড়ো পুরস্কার।

ত্রিধারার পুজো উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর বিসর্জনের বিশাল শোভাযাত্রা হবে বেশ ধুমধাম করে। গত বছরও হয়েছিল। সে বার দ্বিতীয় হয়েছিল এই পুজো। ৪-৫টা ট্যাবলো ছিল পুজোর থিমের সঙ্গে মিলিয়ে। এই বারও তাই থাকবে।

১৯৪৭ সালে পুজো শুরু হওয়ার পর থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়ে আসছে। সেটাই চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয় কোনো না কোনো ভাবে। তা ছাড়া সমাজসেবামূলক কাজও করা হয়। এ ছাড়া পুজোর সময় বস্ত্র, কম্বল, বই ইত্যাদি বিতরণ করা হয়।

আরও পড়ুন: সোনারপুর রিক্রিয়েশন ক্লাবের পুজোয় দু’বেলা থাকবে ছৌ-এর লাইভ শো 

কালীঘাট মেট্রো স্টেশন বা রাসবিহারী মোড় থেকে গড়িয়াহাটের দিকে এলে প্রিয়া সিনেমা বা তার পরের স্টপে নেমে বাঁ দিকে একটু হাঁটলেই মণ্ডপ।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন