bamboo work in suruchi sangha
স্মিতা দাস

নব পালের প্রতিমা আর সুব্রত ব্যানার্জির শিল্পভাবনায় সুরুচি সংঘের এ বছরের বার্তা ‘বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্য’। এটাই থিম।

মহালয়ার দিন উদ্বোধন হল সুরুচির থিম, থিম সং, আর থিম ভিডিও। এই গানের কথা লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সুর করেছেন জিৎ গঙ্গোপাধ্যায় আর গেয়েছেন শ্রেয়া ঘোষাল।

ankush, raj chakraborty, nusrat, arup biswas, srijit and prosenjit present in inuagural ceremony
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাজির অঙ্কুশ, রাজ চক্রবর্তী, নুসরত, অরূপ বিশ্বাস, সৃজিত ও প্রসেনজিৎ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, অঙ্কুশ, নুসরত ও পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, সৃজিত মুখোপাধ্যায়, শ্রীকান্ত মহতা। এঁরা সবাই মিলে ঢাক বাজিয়ে পুজোর সূচনা করেন।

থিম কমিটির সদস্য সৌম্য সরকার বলেন, প্রতি বার কোনো একটা রাজ্যকে তুলে ধরে সুরুচি। কিন্তু এ বার পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতিতে দেশকে ঐক্যের বার্তা দিতে চেয়েছে সুরুচি। তাই এই বার দেশের বিভিন্ন রাজ্যের ১২ রকমের বাঁশ দিয়ে কাজ হচ্ছে। এখানেও ঐক্য। রয়েছে মুলি বাঁশ, কালকি বাঁশ ইত্যাদি। গোটা মণ্ডপটা বাঁশ, বেত, ধুধুল, কঞ্চি ইত্যাদি দিয়ে তৈরি হয়েছে। তা ছাড়া রয়েছে রঙের খেলা। বাঁশ দিয়ে ছোটো বড়ো বিভিন্ন মডেল তৈরি করা হয়েছে।

craftsmen are busy with their work
কাজে ব্যস্ত শিল্পীরা।

রয়েছে বিশ্ববাংলার প্রতীকও। ‘বিশ্ব’ শব্দের সঙ্গে ফুটবল জড়িয়ে, এটাও ঐক্যের চিহ্ন। এই প্রতীকের মধ্যে ফুটবল রেখে তার চার পাশে বিভিন্ন দেশের ফুটবলের জার্সি পরা মডেল গোল করে ঘিরে থাকছে। এটাও বাঁশের। থাকছে শিঙাধারী মডেল। শিঙা বাজানো হয় কোনো রকম বার্তা দেওয়ার জন্য। তেমনই ঐক্যের বার্তা দিতে মণ্ডপের সামনে এটা রাখা হবে।

পুজোর সভাপতি রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। তিনি বলেন, ভক্তিটাই পুজোর মূল বিষয়। সেটাই করে সুরুচি। ভক্তি ভরে বুদ্ধি করে পুজো করে। বাংলার হস্তশিল্প যে আন্তর্জাতিক মানের সেটাই তুলে ধরা হয়েছে এখানে। কম বাজেটেও যে ভালো পুজো করা যায় এ বারে সেটাই দেখাবে সুরুচি।

last year's durga pratima
গত বারের প্রতিমা।

সম্পাদক কিংশুক মৈত্র বলেন, গত বারে ছিল ভুটান। বাজেট ছিল ৩০ লক্ষ। ২০০৯ সাল ছিল সব থেকে মজার বছর। সে বার ঝাড়খণ্ড ছিল থিমে। জঙ্গলের মণ্ডপের ভেতর যে দেবী আছেন তা দর্শকরা বুঝতে পারছিলেন না। সে বার পুরস্কার পেয়েছিল ৬৫-৭০টা।

নিউ আলিপুর পেট্রোল পাম্প বাস স্টপে নেমে নিউ আলিপুর থানার উলটো দিকেই মাঠের ওপর মণ্ডপ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here