ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভরতি হলে মিলবে আকর্ষণীয় ছাড়, এমনকি ল্যাপটপ-বাইকও!

ওয়েবডেস্ক: পড়ুয়া নেই। নির্দিষ্ট সংখ্যক আসন পূরণ করতে না পারলে অল ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর টেকনিক্যাল এডুকেশন (এআইসিটিই‌)-এর নিয়ামানুসারে অনুমোদন হারাতেও হতে পারে। যে কারণে, পড়ুয়াদের আগ্রহ বাড়াতে কলেজ কর্তৃপক্ষ দিচ্ছেন আকর্ষণীয় সব অফার।

এআইসিটিই প্রকাশিত পরিসংখ্যান থেকে দেখা গিয়েছে, গত ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে দেশের ৩২৯১টি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ১৫.৫ লক্ষ আসনের মধ্যে অর্ধেক খালি পড়ে ছিল পড়ুয়ার অভাবে। একই ভাবে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষেও ১৪.৭৬ লক্ষ আসনের অর্ধেকাংশ শূন্য ছিল। স্বাভাবিক ভাবেই কলেজ কর্তৃপক্ষের কপালে চিন্তার ভাঁজ ক্রমাগত প্রশস্ত হচ্ছে।

আহমেদাবাদ মিররে প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, গুজরাতে প্রথম রাউন্ডের ভরতি প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হওয়ার পর ৫৫,৪২২টি আসনের মধ্যে শূন্য হয়ে পড়ে রয়েছে ৩৬,৬৪২টি আসন। যে কারণে কলেজ কর্তৃপক্ষ ছাত্র-ছাত্রীদের টানতে দিয়ে চলেছে আকর্ষণীয় সব প্যাকেজ। যেমন কোনো ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বলছে বছরে মাত্র আড়াই হাজার টাকা ফি দিলেই পড়াশোনার সুযোগ করে দেবে। আবার কেউ বলছে, প্রথম সেমেস্টার পুরোপুরি বিনা মূল্যে। পরিবহণ ও ছাত্রাবাসের খরচ অর্ধেকে নামিয়ে আনার সুযোগও মিলছে কোথাও।

তবে এ সবের ঊর্ধ্বে আলোচনায় উঠেছে ল্যাপটপ বা মোটর বাইকও। কোনো কোনো কলেজের তরফে বলা হয়েছে, ভরতি হলে মিলবে বিনা মূল্যের ল্যাপটপ। আবার একটি কলেজ বলছে, এক সঙ্গে চার বছরের টাকা অগ্রিম জমা করলে পাওয়া যাবে মোটর বাইক।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.