ju convocation
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসুকে সাম্মানিক ডি লিট প্রদান করছেন আচার্য-রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী ও উপাচার্য সুরঞ্জন দাস। ছবি রাজীব বসু।

নিজস্ব প্রতিনিধি: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬৩তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এসে মোদী সরকারের নোটবন্দি ও বড়োলোকেদের তোষণ বা লাভের মুখ দেখানো নীতি নিয়ে সমালোচনায় সরব হলেন কেন্দ্রীয় সরকারের প্রাক্তন প্রধান অর্থনীতি উপদেষ্টা কৌশিক বসু।

সোমবার সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সাম্মানিক ডি লিট দেওয়া হয় অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসুকে। তিনি তাঁর বক্তব্যে নিজের জীবনের নানা কথা বলার পাশাপাশি ২০১৬ সালের পর থেকে ভারতের অর্থনীতি যে ভালো জায়গায় নেই, সে প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। তাঁর মতে, ২০১৬ সালে নোট বাতিলের পর থেকে দেশ সমস্ত ক্ষেত্রেই ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। বড়ো ধরনের ক্ষতি হয়েছে কৃষিক্ষেত্রে। তবে তিনি মনে করেন, কৃষকদের ঋণমকুব করা কোনো স্থায়ী সমাধান নয়। কিছু ক্ষেত্রে করা যেতে পারে। যেমন, এখন দেশের কৃষকদের যা অবস্থা তাতে এটা দরকার ছিল। তবে ঋণমকুব নিয়মিত করা হলে অর্থনীতি ভেঙে পড়বে।

আরও পড়ুন ‘রথ’ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে প্রথমেই ধাক্কা খেল বিজেপি

জিডিপি-এর বর্তমান হারে চিন্তিত কৌশিক বসু এ দিন বলেন,  “জিডিপি বৃদ্ধির হার মন্থর। কিছু ক্ষেত্রে বেশ সমস্যা লক্ষ করা যাচ্ছে,  যেমন চাকরির সুযোগ কমেছে। কৃষিক্ষেত্র বিপর্যস্ত হয়েছে। এটা চিন্তার কার।”

মোদী সরকারের প্রতি তাঁর পরামর্শ, শুধু বড়ো কর্পোরেটগুলোর নজর দিলে চলবে না, গ্রামেগঞ্জে বিপর্যস্ত মানুষের দিকেও তাকাতে হবে। সীমিত দায়বদ্ধতা বলে একটা শব্দ আছে। আমেরিকা, রাশিয়াতেও মেনে চলা হয়। বিশেষ পরিস্থিতিতে সীমিত দায়বদ্ধতা কার্যকর হতে পারে।

আচার্য-রাজ্যপালের উষ্মা

বার বার ঘেরাও, আন্দোলন, মদ্যপানের ঘটনা ইত্যাদিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি যে কালিমালিপ্ত হচ্ছে, সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সে কথা স্মরণ করিয়ে দেন আচার্য তথা রাজ্যের রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী। তিনি বলেন, “এ সব ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়কে সতর্ক থাকতে হবে। ক্যাম্পাসে কী ঘটছে, সে দিজে নজর দিতে হবে।” অধ্যাপকদের উদ্দেশে রাজ্যপাল বলেন, তাঁরা জেন পড়ুয়াদের আদর্শ হয়ে ওঠেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস বলেন, “আমাদের যে আইনকানুন আছে, তার মধ্যেই আমরা চলব।” এ ছাড়াও ছাত্র আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক অধিকার সবার আছে। তবে কোনো আন্দোলন করতে গিয়ে অন্যদের গণতান্ত্রিক অধিকারে যাতে হস্তক্ষেপ না হয় সে দিকেও নজর থাকা দরকার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here