স্ট্যাটিস্টিশিয়ান

0

মৈত্রী মজুমদার:

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সংখ্যার এক উল্লেখযোগ্য ভুমিকা আছে। সকালে উঠে ক’টা বাজে, কত বাজার আসবে, ক’টা কাপড় কাচতে যাবে থেকে শুরু করে দেশের মানুষের সুস্থতার বা সাক্ষরতার হার নির্ণয়, সব ক্ষেত্রে সংখ্যা এক গুরুত্বপূর্ণ  হাতিয়ার। তাই এই সংখ্যাতত্ত্বের চর্চা করতে পারলে যে কোনো লোকের  কর্মজীবন যে সুপ্রতিষ্ঠিত হতে পারে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

সংখ্যাতত্ত্ব বা স্ট্যাটিস্টিকস হল বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে সংগৃহীত তথ্যের গাণিতিক  বিশ্লেষণ এবং পরিবেশনের বিজ্ঞান। গণিতের সেই শাখা যা তথ্যের বিশ্লেষণ দ্বারা  কোনো না-হওয়া ঘটনারও গতি-প্রকৃতি বলে দিতে পারে, গণিতের ভাষায় যার নাম প্রোবাবিলিটি।

তাই কর্মক্ষেত্রের প্রায় প্রতিটি শাখা, যেমন, অর্থনীতি, ওষুষশাস্ত্র, বিজ্ঞাপন, মনস্তত্ত্ব, ভূগোল, ডেমোগ্রাফি ইত্যাদি বহু ক্ষেত্রেই স্ট্যাটিস্টিকস-এর ব্যবহার  অপরিহার্য বলা যেতে পারে।

আজকের এই ‘এজ অফ প্ল্যানিং’-এ সরকারি বেসরকারি সমস্ত ক্ষেত্রে আধিকারিক থেকে গবেষক, বড়ো বড়ো বহুজাতিক সংস্থা থেকে সমাজবিজ্ঞান নিয়ে কাজ করা  মানুষেরা প্রত্যেকেই স্ট্যাটিস্টিকস-এর ওপর নির্ভরশীল।

তাই আজ ব্যাঙ্কার থেকে বিমা কোম্পানি, সমাজসেবা থেকে শ্রমিক সংগঠন, অর্থ, বাণিজ্যনীতি থেকে রাজনীতিক — সবার কাছেই সংখ্যাতাত্ত্বিক বা স্ট্যাটিস্টিশিয়ান খুবই জরুরি ব্যক্তি।

কাজের সুযোগ

সংখ্যাতাত্ত্বিকদের কাজের ক্ষেত্র খুবই বিস্তৃত। যেমন আগেই আলোচনা করলাম,  কৃষি, শিল্প, শিক্ষা, অর্থনীতি, বাণিজ্য, স্বাস্থ্য, কম্পিউটার সায়েন্স… সর্বক্ষেত্রেই  সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থায় সংখ্যাতাত্ত্বিকদের কাজের সুযোগ আছে।

এ ছাড়াও, ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল সার্ভিস, ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস, ইন্ডিয়ান ইকোনমিক সার্ভিস ইত্যাদি বিভাগে পরীক্ষা দিয়ে উচ্চপদস্থ সরকারি চাকরি পাওয়ার  সুযোগ আছে।

এক জন সংখ্যাতাত্ত্বিকের স্ট্যাটিস্টিশিয়ান, লেকচারার, প্রফেসর, কন্টেন্ট অ্যানালিস্ট, স্ট্যাটিস্টিকস ট্রেনার, ডেটা সায়েন্টিস্ট, কনসালট্যান্ট, বায়ো স্ট্যাটিস্টিশিয়ান ইত্যাদি ভূমিকায় কাজ করার সুযোগ আছে।

আরও পড়ুন: কেরিয়ারের খোঁজে: কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং

কী পড়বে 

লজিক-এর ওপর ভিত্তি করে, গাণিতিক, সংখ্যাতাত্ত্বিক রিজনিং, ডেটা-র বিশ্লেষণ,  ইভ্যালুয়য়েশন এবং গবেষণা পদ্ধতি, এগুলোই সংখ্যাতত্ত্বের মূল শিক্ষণীয় বিষয়।

১০+২ ক্লাসে গণিত নিয়ে বিজ্ঞান শাখায় বা বাণিজ্য শাখায় পাস করা ছাত্রছাত্রীরা  স্ট্যাটিস্টিকস নিয়ে স্নাতক স্তরে পড়াশোনা করতে পারেন।

আবার, স্নাতক হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর স্তরে পড়াশোনা করারও সুযোগ আছে।

কোথায় পড়বে 

ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট কলকাতা, ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট বেঙ্গালুরু, ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউট  দিল্লি, সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ মুম্বই, লয়োলা কলেজ চেন্নাই।

এ ছাড়াও বিভিন্ন বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে সংখ্যাতত্ত্ব নিয়ে উচ্চশিক্ষা লাভের  সুযোগ আছে। কয়েকটির নাম, স্ট্যানফোর্ড ইউনিভারসিটি, ইউনিভারসিটি অফ অক্সফোর্ড, হার্ভার্ড ইউনিভারসিটি, ইউনিভারসিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া বার্কলে, ইউনিভারসিটি কলেজ লন্ডন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here