স্কুলে শিশুর শিক্ষায় প্রভাব ফেলছে জলবায়ু পরিবর্তন: গবেষণা

0
students
ইন্ডিয়া টুডে থেকে প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: বিশ্ব উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং বর্তমানে বিশ্বরাজনীতির একটি গরম বিষয়। অন্য দিকে চরম তাপমাত্রা পরিবর্তনের প্রভাবগুলি নিয়ে বিজ্ঞানীরা তাঁদের গবেষণা জারি রেখেছেন। সেই সমস্ত গবেষণা থেকেই তাঁরা সিদ্ধান্তে এসেছেন, বিশ্ব উষ্ণায়ন শুধুমাত্র বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধিই নয়, একই সঙ্গে আরও বেশি কিছু প্রভাব ফেলছে মানব সভ্যতাতেও।

বিশ্ব উষ্ণায়ন পৃথিবীর জলবায়ুকে প্রভাবিত করছে, এমন তথ্য অনেকেরই জানা, কিন্তু এমনটা শোনা গিয়েছে কি, এ বাভে জলবায়ুর পরিবর্তন শিশুদের শিক্ষাকেও প্রভাবিত করতে পারে?

এক দল গবেষক এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই ২৯টি ভিন্ন দেশ থেকে জলবায়ু এবং জনসমীক্ষার রিপোর্ট সংগ্রহ করেন। আফ্রিকা, লাতিন আমেরিকা, ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই প্রায় আড়াই ডজন দেশ থেকে তাঁরা তথ্য সংগ্রহ করে সেগুলির বিশ্লেষণ করে। বলে রাখা ভালো এই গবেষণায় প্রায় ১ কোটি ৩৮ লক্ষ শিশুর তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়। ওই তথ্য বিশ্লেষণ করে এই সিদ্ধান্তে এসে পৌঁছেছেন যে, চরম তাপমাত্রা এবং জলবায়ুর পরিবর্তন প্রতিকূলতা হিসাবে শিশুর স্কুল শিক্ষাকেও প্রভাবিত করতে পারে।

ওই গবেষণা রিপোর্ট বলছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় পাঁচ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুরা এর প্রভাবে পড়ছে। শৈশব বলতে যা বোঝায়, সেই বয়সেই জলবায়ু পরিবর্তনের শিকার হতে হচ্ছে এই অঞ্চলের দেশের শিশুদের। তবে মধ্য এবং পশ্চিম আফ্রিকা এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অধিক বৃষ্টিপাতযুক্ত দেশগুলিতে শিশুর শিক্ষায় ততটা প্রভাব ফেলতে পারেনি জলবায়ুর পরিবর্তন।

উল্টো দিকে হ্যারিকেন-প্রবণ এলাকা হিসাবে পরিচিত মধ্য আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের মতো এলাকার দেশগুলিতে আবার অত্যধিক বৃষ্টিপাতের কারণেই শিশুদের শিক্ষার মান ক্রমশ নিম্নমুখী হয়েছে। এ ধরনের তথ্যগুলির সৌজন্যেই গবেষকরা বলছেন, বিশ্ব জুড়ে আবহাওয়ার চরম পরিবর্তন শিশুদের শিক্ষার উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

আশ্চর্যজনক ভাবে, গবেষকেরা দেখেছেন, ওই বয়সের শিশুদের কারও কারও পরিবারে বা অথবা মায়ের মধ্যে যে কোনো একজন/দু’জনেই মাধ্যমিক স্তরে এসে জলবায়ুর পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাবের শিকার হয়েছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here