kolkata high court
প্রতীকী ছবি

কলকাতা: একটি অন্তর্বর্তী নির্দেশে এর আগে কলকাতা হাইকোর্ট স্পষ্টত জানিয়েছিল, হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত কমিটির মত যদি টেট প্রশ্ন-বিতর্কে মামলাকারী পরীক্ষার্থীদের পক্ষে যায়, তা হলেও আদালতে শুধুমাত্র মামলাকারীদের জন্যই রায় দেওয়া হবে। একই সঙ্গে রয়েছে সুপ্রিম কোর্টের বেশ কয়েকটি নির্দেশের নজিরও।

২০১৪ সালের টেট পরীক্ষা  ১১টি ‘বিতর্কিত’ প্রশ্নের ‘উত্তরপত্র’ নিয়ে বিশেষজ্ঞ রিপোর্ট জমা পড়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। প্রাথমিক রিপোর্ট দিয়েছেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য সবুজকলি সেন। জানা গিয়েছে, ১১টি প্রশ্নের মধ্যে ‘৬টি প্রশ্নের উত্তর নিয়ে সংশয় আছে’। রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষায় (টেট) মাল্টিপল চয়েস কোয়েশ্চনসের বিতর্কিত ১১টি প্রশ্নের মধ্যে ৬টিতেই ভুল ও ৪টি ঠিক। আগামী ৩ অক্টোবর আদালত চূড়ান্ত মতামত জানানোর পরেই ভুল প্রশ্নে পরীক্ষার্থীদের মার্কস দেওয়া হবে কি না, তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা জানাবে। এখন প্রশ্ন, কারা পাবেন ওই মার্কস?

আরও পড়ুন: আরও জটিলতা বাড়ল টেট ২০১৪-য়, প্রশ্ন বিতর্কে প্রাথমিক মান্যতা হাইকোর্টের

এ বিষয়ে আইনজীবীদের বক্তব্য, সুপ্রিম কোর্টের রায়কে সামনে রেখে দেখা যাচ্ছে, শুধু মাত্র যে কয়েকশো পরীক্ষার্থী নিজেদের বঞ্চিত মনে করে আদালতে মামলা করেছিলেন, আদালতের রায় বিশ্বভারতীর মতের অনুকূলে হলে তাঁরাই সুফল পেতেই পারেন। কারণ সর্বোচ্চ আদালতের অতীত রায় অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি যদি নিজেকে কোনও ভাবে বঞ্চিত মনে করেন, তা হলে তাঁকেই আদালতে আসতে হবে। সেখানে স্পষ্টতই বলা হয়েছে, অন্য কেউ মামলা করে ফল পেলে তা ইতিবাচক হলে তা দেখে নতুন করে মামলা করে সেই সুযোগ অন্যরা পাবেন না।

উল্লেখ্য, ২০১৪ জারি করা টেট বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী পরীক্ষা গৃহীত হয়েছিল ১১ অক্টোবর, ২০১৫ তারিখে। প্রশ্নপত্রে ত্রুটি রয়েছে অভিযোগ তুলে হাইকোর্টে মামলা করেন কয়েকশো পরীক্ষার্থী। তাঁরা প্রত্যেকেই ওই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছিলেন।

গত ২৭ জুলাই হাইকোর্টে ওই মামলার শুনানিতেই  পরীক্ষার ১১টি প্ৰশ্ন খতিয়ে দেখা এবং সেই সংক্রান্ত রিপোর্ট ১৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জমা করার নির্দেশ দেওয়া হয় ৷ এদিন বিশ্বভারতী উপাচার্যের জমা দেওয়া রিপোর্টে ১১ টির মধ্যে ১০ টি উত্তর দেখার পর বিচারপতি সোমশ্রী চট্টোপাধ্যায় জানান, ‘৬ প্রশ্নের উত্তর নিয়ে সংশয় আছে ৷ বাংলার ১০ প্রশ্নের উত্তর জানিয়েছে বিশ্বভারতী ৷ তার মধ্যে ৬টি উত্তর স্পষ্ট নয় ৷ প্রাথমিক পর্ষদের উত্তরে অস্পষ্টতা আছে ৷’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন