খবর অনলাইন ডেস্ক: সৌন্দর্য এবং গ্ল্যামারের ক্ষেত্রে ভারত আন্তর্জাতিক স্তরে নিজের অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছে। মিস ওয়ার্ল্ড এবং মিস ইউনিভার্সের খেতাব বহুবার পেয়েছি আমরা। আমাদের দেশের মেয়েদের সৌন্দর্য শুধু শিরোপাতেই সীমাবন্ধ নয়, তার বিচ্ছুরণ সমাজের প্রতিটা ক্ষেত্রেই। যা থেকে বাদ পড়েনি রাজনীতিও। দেখে নেওয়া যাক, তাঁদের মধ্যে অন্যতম সাতজনের সংক্ষিপ্ত পরিচয়।

১. নুসরত জাহান

বাংলা ছবিতে নিজের বিশেষ জায়গা করে নিয়েছেন নুসরত জাহান। চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ ২০১১ সালে। আর সক্রিয় রাজনীতিতে ২০১৯-এ। গত বছরের লোকসভা ভোটে বসিরহাট থেকে জিতে সংসদে গিয়েছেন। ওই বছরেই তিনি নিখিল জৈনের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন।

Loading videos...

২. দিব্যা স্পন্দনা

দক্ষিণ ভারতের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী। কন্নড় চলচ্চিত্রের পাশাপাশি তামিল এবং তেলুগু ভাষার ছবিতেও অভিনয় করেছেন। জন্ম ২৯ নভেম্বর ১৯৮২, বেঙ্গালুরুতে। তাঁর অভিনীত প্রথম ছবি মুক্তি পায় ২০০৮ সালে। ২০১৩ সালে কংগ্রেসের প্রতীকে জয়লাভ করেন কর্নাটকের মাণ্ডা আসন থেকে।

৩.অলকা লাম্বা

নিজের সাবলীল ইমেজ ছাড়াও তাঁর সৌন্দর্যের জন্য পরিচিত অলকা লাম্বা। মাত্র ১৯ বছর বয়সে তিনি কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠনে উল্লেখযোগ্য দায়িত্ব পান। যুবদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে তিনি ‘গো ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন’ নামে একটি এনজিও চালু করেছিলেন। ২০ বছরেরও বেশি সময় কংগ্রেসে কাটানোর পরে তিনি আম আদমি পার্টিতে যোগ দেন এবং ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে চাঁদনি চক থেকে দিল্লি বিধানসভায় নির্বাচিত হন।

৪. আঙুরলতা ডেকা

আঙুরলতা ডেকা একজন মডেল এবং অভিনেত্রী। পাশাপাশি বিজেপি নেত্রী। তিনি মূলত বাংলা ও অসমিয়া ছবিতে কাজ করেছেন। পাশাপাশি চলচ্চিত্র পরিচালনাও করেন। তিনি ২০১৬ সাল থেকে অসমের বটদ্রোবার বিজেপি বিধায়ক।

৫. ডিম্পল যাদব

অত্যন্ত নম্র এবং সব সময়ই শাড়িতে দেখা যায় ডিম্পল যাদবকে। সুন্দরী এবং গ্ল্যামারাস রাজনীতিবিদ। তিনি কন্নৌজ থেকে দু’বার সমাজবাদী পার্টির সংসদ সদস্য হয়েছেন। উত্তরপ্রদেশের প্রভাবশালী রাজনৈতিক পরিবারের সদস্য ডিম্পল। তাঁর স্বামী অখিলেশ যাদব এবং শ্বশুর মুলায়ম সিং যাদব, দু’জনেই উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

৬. গুল পনাগ

গুল পনাগ একজন প্রাক্তন বিউটি কুইন, ভারতীয় অভিনেত্রী এবং রাজনীতিবিদ। ২০০৩ সালে ‘ধুপ’ ছবিটির মাধ্যামেই তিনি বলিউডে পা রাখেন। তার পর থেকে কাজ করেছেন অনেক ছবি ও টিভি সিরিয়ালে। তিনি ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচন চণ্ডীগড় থেকে আম আদমি পার্টির প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

৭. মিমি চক্রবর্তী

৩০ বছর বয়সি বছর মিমি চক্রবর্তী গ্ল্যামারাস রাজনীতিবিদ ও অভিনেত্রীদের মধ্য অন্যতম। অভিনয় জীবন শুরুর আগে মডেলিংয়ে হাত পাকিয়েছিলেন। সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দিয়েই চমক লাগিয়েছেন অভিনেত্রী। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে যাদবপুর কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হন।

আরও পড়তে পারেন: ভারতীয় রাজনীতির ৭ হ্যান্ডসাম পুরুষ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.