ওয়েবডেস্ক: ব্যাপারটা কি নেহাতই কাকতালীয়? অভিষেক বচ্চন ক্যামেরা হাতে ছিলেন বলেই বাদ পড়েছেন আদর্শ পারিবারিক ছবি থেকে?

abhishek bachchan

বলিউড কিন্তু তা কিছুতেই মেনে নিতে চাইছে না! বলছে, ব্যাপারটা ইচ্ছাকৃত! খুব সুপরিকল্পিত ভাবেই তিনি পরিবার আর তার সদস্য বলতে যা বোঝেন, সেই ছবি নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে পোস্ট করেছেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন!

aishwarya rai bachchan and abhishek bachchan

সত্যি বলতে কী, সেই সোনম কে আহুজার বিয়ের প্রীতিভোজ থেকে যে সমস্যা শুরু হয়েছিল জুনিয়র বচ্চন দম্পতির মধ্যে, তা যেন আর মিটতেই চাইছে না! বরং তা বেড়েই চলেছে ধাপে ধাপে- ফটোগ্রাফারদের সামনে অভিষেকের ঐশ্বর্যর হাত ছাড়িয়ে নিয়ে চলে যাওয়া, কানের চলচ্চিত্র উৎসবে ঐশ্বর্যর শুধু মেয়ে আরাধ্যার সঙ্গে লাল গালিচায় হাঁটা এবং স্বামীকে বিদেশের ক্যামেরার সামনে আসতে না দেওয়া, ঐশ্বর্যর রান্না নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিষেকের অভিযোগ- চলছে তো চলছেই!

সেই সমস্যা আরও জটিল আকার ধারণ করল যখন দেখা গেল, বচ্চন পরিবারও এ বার আর তাদের ছেলেকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে চাইছে না! অমিতাভ বচ্চন তো সংবাদমাধ্যমে স্পষ্ট ঘোষণা করেই দিয়েছেন, ছেলে নয়, বরং জীবনে একবারও ক্যামেরার সামনে না দাঁড়ানো মেয়ে শ্বেতাই পরিবারের সেরা অভিনেতা! পাশাপাশি, তিনি নিজে যেমন, সে রকমই ঐশ্বর্যও অভিষেককে ফলো করেন না ইনস্টাগ্রামে!

jaya bachchan and amitabh bachchan

এ সব জটিলতার মাঝেই বচ্চন পরিবারে এল খুশির মুহূর্ত! দাম্পত্যের ৪৫ বছরে পা দিলেন জয়া বচ্চন এবং অমিতাভ বচ্চন। এবং মা-বাবাকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য তাঁদের একটি সুখের মুহূর্তের ছবি নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে পোস্ট করলেন নায়ক! এবং শুরু হয়ে গেল বলিউডে কানাকানি- ইচ্ছা করেই শুধু মা এবং বাবার ছবি পোস্ট করেছেন তিনি। চাইলে স্ত্রী, মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে একটা গ্রুপ ফটো শেয়ার করতেই পারতেন, কিন্তু তা করেননি!

bachchan

তার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যই কি না কে জানে, ঐশ্বর্য এ বার জয়া আর অমিতাভকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য যে ছবি পোস্ট করলেন নিজের ইনস্টাগ্রামে, সেখান থেকে ছেঁটে দিলেন অভিষেককে। একটি আদর্শ পারিবারিক ছবি হিসাবে যা সবার চোখের সামনে নিয়ে এলেন নায়িকা, সেখানে জয়া, অমিতাভ, শ্বেতার ছেলে অগস্ত্য, মেয়ে আরাধ্যার সঙ্গে তিনিও আছেন, শুধু অভিষেকই নেই!

চাইলে কিন্তু অভিষেককে রাখাই যেত ছবিতে! সবাই মিলে একটা সেলফি তোলা কি এমন কিছু মুশকিলের ব্যাপার? আপনার কী মনে হয়?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here