ওয়েবডেস্ক: ২০১৭ সালের ঘটনা! সেই সময় ‘অ্যান অর্ডিনারি লাইফ’ নামে একটি আত্মজীবনী লিখেও তা প্রত্যাখ্যান করে নিতে বাধ্য হন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি। যাঁরা আপত্তি জানিয়েছিলেন এই মিথ্যায় ভরা আত্মকথার বিরুদ্ধে, তাঁদের অন্যতম ২০০৫ সালের মিস ইন্ডিয়া খেতাবজয়ী সুন্দরী নীহারিকা সিং! নওয়াজ বইতে লিখেছিলেন, এক রাতে নীহারিকার বাড়িতে আমন্ত্রিত হয়ে যাওয়ার পরেই তিনি ওঁকে কোলে তুলে সোজা নিয়ে যান শোওয়ার ঘরে- নীহারিকাও আপত্তি করেননি যাতে! এর পর ঘন ঘনই শারীরিক ভাবে মিলিত হতেন তাঁরা!

সেই সময়ে ব্যাপারটাকে স্রেফ মিথ্যা বলে আইনজীবীর চিঠি পাঠিয়ে ক্ষান্ত থাকলেও #MeToo আন্দোলনের প্রেক্ষিতে অনেক কিছুই ফাঁস করে দিলেন নীহারিকা! শুধু নওয়াজই নয়, টি-সিরিজ কর্ণধার ভূষণ কুমারকে নিয়েও চাঞ্চল্যকর তথ্য পেশ করেছেন তিনি!

আরও পড়ুন: নেই রাখঢাক, যৌন কীর্তি নিজেই টুইটারে প্রকাশ করলেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি!

“মিস লাভলি’ ছবির শুটিং করতে গিয়ে আমার সঙ্গে আলাপ হয়েছিল নওয়াজের। আমায় তখন ‘বাইপাস’ নামে একটা ছবির সিডি দিয়েছিল। ধীরে ধীরে আমাদের আলাপ বাড়তে থাকে। এক দিন আমায় নিজের বাড়িতে নেমন্তন্ন করেও খাওয়ায়। এর পর এক দিন সকালে আচমকাই জানায় ফোন করে- ‘আমি তোমার বাড়ির সামনে আছি, দেখা করবে’? আমি ওকে বাড়িতে ডাকি! দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে নওয়াজ আমার শরীর খামচে ধরে। আমি ছাড়ানোর চেষ্টা করি, কিন্তু ও কিছুতেই ছাড়ছিল না! শেষে গায়ের সবটুকু জোর দিয়ে ধাক্কা মেরে ওকে সরাতে হয়! তখন বলে- ওর আসলে অনেক দিনের ইচ্ছে- মিস ইন্ডিয়ার মতো সুন্দরী ওর বউ হোক! আমার ঘটনায় বিরক্ত লাগলেও কথাটা শুনে মজা লেগেছিল”, বলছেন নীহারিকা!

তার পরে বলতে কসুর করেননি- “নওয়াজ আসলে একেক মেয়েকে একেক রকমের মিথ্যে কথা বলত! উত্তরপ্রদেশের এক গ্রামে লুকিয়ে বিয়েও করেছিল, সেখানে মোটা টাকা পণ চাওয়ায় এবং এটা নিয়ে বউকে অত্যাচার করায় মেয়ের বাড়ি ওর নামে মামলা ঠুকে দেয়!”

 

View this post on Instagram

 

We are bringing a special gift for all the lovable kids & their family… MOTICHOOR CHAKNACHOOR – A Romantic Wedding Comedy

A post shared by Nawazuddin Siddiqui (@nawazuddin._siddiqui) on

পাশাপাশি জানিয়েছেন, ভূষণ কুমারও কী ভাবে বলিউডে নবাগতাদের সুযোগ নেওয়ার জন্য মুখিয়ে থাকেন! “ইটস আ লাভ ইস্টোরি’ নামের একটা ছবিতে আমার কাজ করার কথা ছিল। সেই উপলক্ষ্যে আমি ওঁর অফিসে দেখা করতে যাই! উনি আমায় একটা খামে দু’টো ৫০০ টাকার নোট দেন! বলেন, পরে বাকিটা দেবেন! এর পর রাতে মেসেজ করে জানান, উনি আমায় ভালো ভাবে চিনতে-বুঝতে চান, তাই ডেটে ডাকছেন! আমি যখন বলি ব্যাপারটা দারুণ হবে, আপনার বউকেও নিয়ে আসুন, আমিও আমার বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে আসছি, তখন আর রিপ্লাই দেন না! এর পরে ছবির কাজটাও আমি পাইনি”, খোলাখুলি স্বীকারোক্তি তাঁর!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here