ওয়েবডেস্ক: থাকেন তাঁরা আর কতটুকু সময় বাড়িতে! যদিও বা থাকেন, একসঙ্গে থাকার সময় এবং সুযোগ তো বড়ো একটা আসে না। এক দিকে যেমন কর্তাটিকে ব্যাট হাতে নামতে হয় খেলার ময়দানে, অন্য দিকে তেমনই গিন্নিটি হাতের স্ক্রিপ্ট নামিয়ে রেখে এসে দাঁড়ান ক্যামেরার সামনে। তাও আবার কখনও এ দেশে, তো কখনও সে দেশে!

virushka

কিন্তু যতটুকু সময়ই একসঙ্গে থাকার সময় পান, সেই সময়টুকুর পুরো সদ্ব্যবহার করেন অনুষ্কা শর্মা! মানে, বিরাট কোহলিকে তটস্থ করে রাখেন শাসনে। পান থেকে চুনটিও খসার উপায় থাকে না এই সব একসঙ্গে থাকার দিনে এবং রাতে ক্যাপ্টেন কুলের জীবনে। তেমনটাই অন্তত এক সাক্ষাৎকারে দাবি করেছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক!

সাক্ষাৎকারে আসলে জানতে চাওয়া হয়েছিল- ভারতীয় ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন যেমন তিনি, তেমনই কি সংসারও চলে তাঁরই অধিনায়কত্বে? প্রশ্নটা শোনার পরেই আর নিজেকে স্থির রাখতে পারেননি বিরাট কোহলি। আর পাঁচটা বিবাহিত পুরুষমানুষ যেমন বউকে ডরান, তেমন করেই ঝেড়ে কেশেছেন। এবং সাফ জানিয়ে দিয়েছেন সত্যিটা!

virushka

“মাঠের বাইরে ক্যাপ্টেন অবশ্যই অনুষ্কা! সংসারে কী হবে, তা কী ভাবে চলবে- এই সব কিছু ওই ঠিক করে! বলতে দ্বিধা নেই, এই সব ব্যাপারে একদম সঠিক সিদ্ধান্তই ও নিয়ে থাকে! অনুষ্কাই আমার শক্তি, ওই আমায় চালনা করে! সত্যি বলতে কী, ব্যাপারটায় আমি বেশ খুশি, এবং কৃতজ্ঞও। এই রসায়নটা আছে বলেই তো স্ত্রীকে জীবনসঙ্গিনী বলা হয়”, দাবি বিরাটের!

কী মনে হচ্ছে, শাসনে মোটেই ভয় পান না, বিরক্ত হন না তিনি? না কি বেফাঁস কিছু বললে শাসনের মাত্রা বাড়তে পারে বলেই এত প্রশংসা?

যত দূর মনে হয়, বিরাট একটা পুরনো প্রবাদের কথাই মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন এ ক্ষেত্রে! শাসন করা তো তাঁকেই মানায়, যিনি সোহাগের দিকটাও ঠিক রাখেন! ভিডিওটা দেখুন, মনে হয় সে দিকেই ইঙ্গিত করেছেন খেলুড়ে!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here