সবার অলক্ষ্যে চলে গেলেন শাঁওলি মিত্র, ‘নাথবতী অনাথবৎ’ কন্যার প্রয়াণ

0
Shaoli Mitra

কলকাতা: মরণেও পিতার পথ অনুসরণ করলেন কন্যা। সবার অজান্তে চলে গেলেন শম্ভু মিত্র ও তৃপ্তি মিত্রের কন্যা শাঁওলি মিত্র। রবিবার দুপুরে তিনি প্রয়াত হন বলে খবরে জানা গিয়েছে। সিরিটি মহাশ্মশানে দাহকার্যের পর তাঁর মৃত্যুসংবাদ জানা যায়। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তাঁর প্রয়াণের খবরে শোকস্তব্ধ বাংলার নাট্যজগৎ।

পিতা শম্ভু মিত্র যেমন চেয়েছিলেন তাঁর মৃত্যুর খবর যেন শবদাহের পরে জানানো হয়, ঠিক তেমনটি চেয়েছিলেন শাঁওলিও। এ কথা তিনি তাঁর শেষ ইচ্ছাপত্রে জানিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁর নির্দেশ যাতে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে মানা হয় সে ব্যাপারে দায়িত্ব অর্পণ করেছিলেন তাঁর মানসকন্যা নাট্যব্যক্তিত্ব ও রাজনীতিবিদ অর্পিতা ঘোষ এবং মানসপুত্র সায়ক চক্রবর্তীর উপর। অর্পিতা ঘোষই শবদাহের পর তাঁর মৃত্যুসংবাদ দেন।

ধুমধাম করে, পুষ্পস্তবকে সাজিয়ে শোভাযাত্রা সহকারে তাঁর দেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার বিরোধী ছিলেন সমসাময়িক নাট্যদুনিয়ার বিখ্যাত অভিনেত্রী শাঁওলি। তাঁর মৃত্যুর পর কোনো প্রদর্শন হোক তা তিনি চাননি। চেয়েছিলেন, সাধারণ মানুষের মতোই সাদামাটা ভাবে চলে যাবেন তিনি। তাঁর সেই ইচ্ছা অক্ষরে অক্ষরে পালন করা হল।

ছোটোবেলা থেকেই বাংলা থিয়েটারের একনিষ্ঠ কর্মী ছিলেন শাঁওলি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাহিনি অবলম্বনে তৈরি ‘ডাকঘর’ নাটকে অমলের চরিত্রে অভিনয় করে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন ভবিষ্যতে তিনি একজন প্রথম সারির অভিনেতা হবেন। তবে সিনেমাতেও অভিনয় করেন তিনি। ঋত্বিক ঘটকের ‘যুক্তি, তক্কো আর গপ্পো’ বঙ্গবালার চরিত্রে শাঁওলিকে দেখা গিয়েছিল।

‘ডাকঘর’ ও ‘নাথবতী অনাথবৎ’ ছাড়াও শাঁওলি অভিনয় করেছেন ‘বিতত বীতংস’, ‘পুতুলখেলা’, ‘একটি রাজনৈতিক হত্যা’, ‘কথা অমৃতসমান’, ‘লঙ্কাদহন’, ‘পাগলা ঘোড়া’, ‘গ্যালিলিওর জীবন’-এর  মতো একাধিক স্মরণীয় নাটকে।

বাংলা থিয়েটারে অভিনয়ের জন্য ২০০৩ সালে তিনি সংগীত নাটক আকাদেমি পুরস্কার পান। ২০০৯ সালে তিনি ‘পদ্মশ্রী’ সম্মানে সম্মানিত হন। ২০১২ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে তাঁকে ‘বঙ্গবিভূষণ’ সম্মান প্রদান করা হয়। ২০১১ সালে তিনি রবীন্দ্র সার্ধশত জন্মবর্ষ উদযাপন কমিটির চেয়ারপার্সন ছিলেন হন। তিনি আমৃত্যু পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমির দায়িত্বে ছিলেন।

আরও পড়তে পারেন

১৫ হাজারের নীচে সংক্রমণ, টেস্ট কমলেও কমল সংক্রমণের হার, কলকাতার সংখ্যায় আরও পতন

করোনায় স্কুল বন্ধ রাখার পিছনে নেই কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি, বিতর্ক উসকে দিলেন বিশ্বব্যাঙ্কের ডিরেক্টর

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন