কলকাতা : অন্নপূর্ণা, এক মধ্যবিত্ত গৃহবধূ। কোমায় আচ্ছন্ন ৪ বছরের মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতেই থাকে সে। বাবা রিটায়ার্ড। সংসার চালাতে স্কুলের বাচ্চাদের বাসে করে স্কুলে দিয়ে আসে, নিয়ে আসে আর বাকি সময়টা একটি বিউটি পার্লারে কাজ করে।

এক বিহারি-মুসলমান ছেলের সঙ্গে পরিবারের অমতে পালিয়ে বিয়ে করে সিরিয়ায় চলে গিয়েছিল অন্নপূর্ণা। কিন্তু হঠাৎই এক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে অন্নপূর্ণার ছোট্ট মেয়েটি কোমায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। গুরুতর আঘাত লাগে স্বামী আদিলেরও। আদিলকে সেখানে রেখে মেয়ের চিকিৎসার জন্য কলকাতায় নিজের বাপের বাড়িতে এসে ওঠে অন্নপূর্ণা। তার পর থেকে খোঁজ মেলেনি আদিলের। এক দিন আদিলের মৃত্যুর খবর এসে পৌঁছয়। সম্পূর্ণ ভেঙ্গে পড়ে অন্নপূর্ণা। জীবনকে শেষ করে দেওয়ার পথ বেছে নিতে চায় সে। গল্পের পরিণতিতে কোমায় আচ্ছন্ন মেয়েকে নিজের হাতে মেরে ফেলে অন্নপূর্ণা। ভালোবাসার শহরে ফিরে এসেও চরম ব্যর্থতা গ্রাস করে তাকে। এই হল পরিচালক ইন্দ্রনীল রায় চৌধুরীর স্বল্প পরিসরের ছবি ‘ভালোবাসার শহর’।

অভিনয়ে জয়া এহসান, ঋত্বিক চক্রবর্তী, সোহিনী সরকার এবং অরুণ মুখোপাধ্যায়।

ছবির গল্প ও সংলাপ লিখেছেন ইন্দ্রনীল রায় চৌধুরী এবং সুগতা সিনহা। এই ছবিতে অভিনয়ের পাশাপাশি সহ পরিচালকও ছিলেন সোহিনী সরকার।

এমন একটি সংবেদশীল চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে জয়া এহসান বলেন, এই চরিত্রটি তাঁর জীবনের অন্যতম প্রিয় একটি চরিত্র। “স্বল্প পরিসরের ছবিও যে এত গুছিয়ে করা সম্ভব, তা এই ছবিটি দেখলেই বোঝা যাবে”।

গোটা ছবি জুড়ে ঋত্বিক চক্রবর্তীর গলার আওয়াজ শোনা গেলেও পর্দায় একটি বারের জন্যই দেখা যাবে তাঁকে।

এ দিন ডিজিট্যালি মুক্তি পেল ৩০ মিনিটের এই শর্ট ফিল্মটি। পরিচালকের কথায়, ছবিটি সকলের ভালো লাগবে বলে আশাবাদী তিনি।

সোমবার ছবির স্পেশাল স্ক্রিনিং-এর আয়োজন করা হয়েছিল নন্দনে। উপস্থিত ছিল টিম ‘ভালোবাসার শহর’। এ ছাড়াও ছিলেন কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, অরিন্দম শীল, তনুশ্রী চক্রবর্তী, শ্রীকান্ত আচার্য, শ্রীজাত, জয় সরকার, পরমা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ সংস্কৃতি জগতের অন্যান্য বিশিষ্ট জন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here