bengali-mega-serial

কলকাতা: আর পাঁচটা সামাজিক আন্দোলনকে ঘিরে যে ভাবে গড়ে ওঠে কলকাতার নাগরিক সমাজের জনমত, বাংলা মেগা সিরিয়াল বন্‌ধ-এ সোশ্যাল মিডিয়ায় চোখে পড়ছে তার উল্টোটাই।

গত শনিবার থেকে টানা পাঁচ দিন শুটিং বন্ধ বাংলা মেগা সিরিয়ালের। আর্টিস্ট ফোরাম এবং প্রযোজকদের মতান্তরেই যে এই অচল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, তা নতুন করে বলার নয়। কিন্তু টেলিভিশনের মেগা সিরিয়ালের শুটিং বন্ধের জোরালো প্রভাব পড়তে চলেছে বাংলা চলচ্চিত্রেও। ইম্পা সূত্রে তেমনটাই আশঙ্কা জোরদার হচ্ছে। সব মিলিয়ে ইন্দ্রপুরী বা দাসানির মতো কর্মচঞ্চল স্টুডিওগুলিতে অচলাবস্থা কাটিয়ে উঠতে সমাধা্ন সূত্র খুঁজছে উভয়পক্ষই।

পাঁচ দিন মেগার কাজ বন্ধ থাকায় পুরনো এপিসোডগুলির রিপিট দেখিয়ে কোনো রকমে জোড়াতালি মেরে চলছে চ্যানেলগুলি। কিন্তু এ ভাবে যে দীর্ঘদিন দর্শককে বাংলা মেগায় আটকে রাখা যাবে না , তা ভালো ভাবেই বোঝেন প্রযোজকরা। তা সত্ত্বেও আর্টিস্ট ফোরামের দাবি-দাওয়াগুলির প্রত্যুত্তরে তাঁরা নিজেদের লোকসানের কথাই বলে চলেছেন। ফলে এমন সমস্যার জট কাটিয়ে পুনরায় স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের মৃদু ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে।

এমনিতে আর্টিস্ট ফোরামের ডাকা এই বন্‌ধ নিয়ে জিজ্ঞাসা চিহ্ন দেখা দিয়েছে। তাদের দাবি পূরণে যে ভাবে প্রযোজকরা অনড় মনোভাব দেখাচ্ছেন, তা তে কোনো কোনো মহল মনে করছে, এই বন্‌ধ হোক- এমনটা চাইতে পারে প্রযোজকদেরও কেউ কেউ। তা না হলে সমাধান সূত্র খোঁজার নামে কেন বন্‌ধকে দীর্ঘায়িত করা হচ্ছে।

অন্য দিকে, মেগা সিরিয়াল শিল্পীদের এই আন্দোলনে নাগরিক সমাজের একটা বড়ো অংশের কোনো সমর্থন নেই। আর পাঁচটা সামাজিক আন্দোলনকে ঘিরে যে ভাবে কলকাতার নাগিরক সমাজ সমর্থন জানিয়ে থাকে এ ক্ষেত্রে তার চিহ্নমাত্র নেই। উল্টে সোশ্যাল মিডিয়ায় মেগা সিরিয়াল নিয়ে মশকরা চলেছে। তাও আবার এমন একটা কঠিন সময়ে। যা দেখে অনেকেই এ ধরনের ট্রোলকে বিরুদ্ধ ‘প্রচার’ হিসাবেই দেখছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন