তাজবেঙ্গল হোটেলের লবিতে বসে অপেক্ষায়, বেগম জানের দেখা কখন পাব? হঠাৎ ম্যাট লাল রঙের শাড়ি পরে এগিয়ে এসে বললেন কেমন আছিস তোরা ? (হাসি) মনে হল এই সেই মেয়ে যে বাঙালি না হয়েও কলকাতার কন্যা।যার প্রথম ছবি শুরু বাংলা ছবি দিয়ে। তবে আজ শুধু জানালেন তাঁর বেগমজান ছবির কথা। শুনলেন রাকা রায়।

প্রঃ খুব সুন্দর লাগছে। কখন পৌঁছলে কলকাতা?

উঃ (হাসি হাসি মুখ করে) সকাল ৬টা। তারপর থেকে সমানে চলছে তোদের সঙ্গে আড্ডা।

প্রঃ তাহলে বেগমজান মুক্তি পাচ্ছে পয়লা বৈশাখ।

উঃ একদম। এটাতো বাঙালির নববর্ষ, তবে এইসময় অন্ধ্রপ্রদেশও নানাভাবে উদযাপন করে। তবে আমি বলব এই বছর আমার দর্শকরা বেগমজান দেখে নববর্ষ শুরু করুক।

প্রঃ এই ছবিটি প্রথমে তোমার কাছেই গেছিল, তখন শুরু করতে পারোনি। কিন্তু পরে যখন আবার ছবিটি করার সুযোগ আসে তখন কেমন লাগলো?

উঃ আসলে প্রথমে যখন সৃজিত ছবিটি নিয়ে আসে তখন ছবিটি দুটি ভাষায় তৈরি করবে ভেবেছিল সৃজিত। কিন্তু আমার শরীর ভালো ছিল না বলে করতে পারিনি। কিন্তু পরে যখন আবার সুযোগ এলো, আমার খুব ভালো লেগেছে। এবার আর সুযোগ হাতছাড়া করিনি। আমি দেখেছি রাজকাহিনি। দারুণ লেগেছে। আশা করি বেগমজানও দারুণ লাগবে দর্শকদের।

প্রঃ বেগমজান চরিত্রটি করতে কীভাবে প্রস্তুতি নিয়েছ?

উঃ আসলে আমি এটার জন্য পুরোপুরি নির্ভর করেছি স্ক্রিপ্টের উপর। সৃজিত যেভাবে চিত্রনাট্য এঁকেছেন, তাতে আমার খুব সুবিধা হয়েছে। এছাড়া দেশভাগের সময়ের নানা বই থেকে রেফারেন্স পেয়েছি।

প্রঃ চরিত্রটির মধ্যে কী বিশেষত্ব দেখলে?

উঃ দেখো দেশভাগ নিয়ে অনেক ছবিই হয়েছে। কিন্তু সেই প্রেক্ষাপটের প্রজাদের নিয়ে প্রথম কোনো ছবি। তাবায়াফদের নিয়ে ছবি হয়েছে, কিন্তু তাবায়াফ আর বারবনিতা একদম আলাদা। 

প্রঃ নাসিরজি’র সঙ্গে অভিজ্ঞতা কেমন?

উঃ দেখো ওঁর সঙ্গে যত ছবি করছি ততোই মনে হচ্ছে নতুন কিছু শিখলাম। এই ছবিতেও নতুন নাসিরকে খুজে পেলাম। ইসকিয়া তারপর ডার্টি পিকচার, সত্যি উনি ইনস্টিটিউট। অনেক শিখেছি ওঁর কাছে।

প্রঃ ছবিতে আশাজি গান গেয়েছেন। আপনি লিপ দিয়েছেন।

উঃ হ্যাঁ কী বলবো আমি আপ্লুত। ভাবুন ৮ বছর পর আশাজি আবার গাইল। আর আমি ওঁর গাওয়া গানে লিপ দিচ্ছি। এটা আমার কাছে স্বপ্নপূরণের মত। ভাবুন অনু মালিকের সুর, আশাজির গান, আর অবশ্যই সৃজিত-এর ভাবনায় চিত্রগ্রহণ, অসাধারণ অভিজ্ঞতা।

প্রঃ রাজকাহিনি সব বাঙালি দেখেছে। কেন বেগমজান দেখবে ? এটাতো রিমেক।

উঃ বা, আমি আছি তো ছবিতে।(হাসি) না আসলে রিমেক হলেও ছবিতে অনেক অদলবদল হয়েছে। এখানে ছবি শুরু হচ্ছে ২০১৬ সাল থেকে, ফিরে যাচ্ছে ১৯৪৭ সালে আবার সমকালে ফিরছে। তাছাড়া অনেক পরিবর্তন করা হয়েছে। যেগুলো সিনেমা দেখতে গেলে বোঝা যাবে।

প্রঃ পরের ছবি কী আসছে?

উঃ পরের ছবি পরে বলবো। এখন শুধু বেগমজান।(হাসি) তুমারি সুলু নামে একটি ছবির কাজ শুরু হবে।

প্রঃ সৃজিত অন্যধারার ছবি করেন। তুমিও তাই। বক্স অফিস সাফল্য নিয়ে কি ভয় করছে?

উঃ ভয় করে কি লাভ আছে? কাজ তো হয়ে গেছে। আমি অন্য ধরনের কাজ করতেই ভালবাসি। দর্শকও আমার কাছে অন্যকিছুই চায়। তাই দেখতেই হবে বেগমজান।

প্রঃ নববর্ষে বাঙ্গালিদের কি বলবে ঘরের মেয়ে বিদ্যা?

উঃ একটাই কথা বলবো খুব ভালো থাকুন। নতুন বছর শুরু হোক ভালো ভাবনা দিয়ে, ভালো ছবি দেখে। ঋতুপর্ণা খুব ভালো করেছিলেন। আমার কাজটা আমার মতো। সমাজের সব মেয়ে যেন বেগমজানের মত মানসিকতা নিয়ে বাঁচতে পারে। শুভ নববর্ষ আমার তরফ থেকে। নমস্কার। তুমিও ভালো কাটিও নববর্ষ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here