jhulaghat

ওয়েবডেস্ক: বলিউডের পর্দায় অমর হয়ে আছে, এ রকম চরিত্রের সংখ্যা বড়ো কম নয়। হতে পারে তারা কাল্পনিক, হতে পারে তারা বাস্তবেরই অন্তর্ভুক্ত। এভাবে মিলিয়ে দেখলে শুরু হবে বড়ো পর্দার এক অবিস্মরণীয় মিছিল। আনন্দ, জয়, জেসিকা, নীরজা- এক এক করে সবাই দখল করে নেবেন দর্শকের মনে অটল আসন।

কিন্তু স্থান? এ রকম কোনো স্থানের স্মৃতি কি আছে বলিউডের পর্দায় যার আর বাস্তব অস্তিত্ব বলে কিছু নেই? শুধুমাত্র বলিউডের পর্দাই ধরে রেখেছে যার স্মৃতি?

খুঁজে পাওয়া দায় হবে। কেন না, এ রকম কোনো জায়গাতে এর আগে বলিউডের শুটিং হয়নি। সেই দিক থেকে ভারতের ছায়াছবির ইতিহাসে এক রেকর্ড তৈরি করতে চলল দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের নতুন ছবি। যশ রাজ ফিল্মসের প্রযোজনায় ‘সন্দীপ অউর পিঙ্কি ফরার’ নামে এই ছবির শুটিং চলছে ভারতের এমন এক গ্রামে, যার কিছু দিন পরে আর অস্তিত্ব থাকবে না।

নেপাল আর ভারতের সীমান্তে উত্তরাখণ্ডের এই গ্রামের নাম ঝুলপুর। মনোরম নিসর্গ আর ঝুলাঘাট নামে সেতু নিয়ে ভারতের মানচিত্রে জেগে রয়েছে সে। যদিও তাড়াতাড়ি তাকে ঘুমিয়ে পড়তে হবে। দুরন্ত কালী নদী বয়ে যাবে এই গ্রাম গ্রাস করে। তার পর সেই নদীতে চলবে পঞ্চেশ্বর বাঁধ বসানোর কাজ। দেখতে দেখতে বদলে যাবে গ্রামের ভৌগোলিক চেহারা। প্রায় মুছেই যাবে সে অতীতের রূপ নিয়ে।

ফলে, এই গ্রামকে পুরনো মহিমায় ফিরে পেতে হলে তাকাতে হবে পরিণীতি চোপড়া আর অর্জুন কাপুরের দিকে। তাঁরাই এই ছবির নায়ক-নায়িকা। গ্রামের নানা জায়গায় ঘুরে ফিরে শুটিংয়ের মধ্যে তাঁরা ধরে রাখছেন ঝুলপুর আর ঝুলাঘাটের স্মৃতি। উদ্যোগে জড়িয়ে আছে কলাকুশলীদেরও নাম। কিন্তু নায়ক-নায়িকাকে দিয়েই যেমন ছবি চেনেন বেশির ভাগ মানুষ, এখানেও তেমন ঝুলপুর-ঝুলাঘাটের স্মৃতির সঙ্গে জড়িয়ে থাকবে পরিণীতি-অর্জুনের নাম।

গ্রামবাসীরা তাই আপাতত সোৎসাহে যোগ দিয়েছেন শুটিং দলের সহায়তায়। বুঝতে পেরেছেন তাঁরা, ভিটেমাটি অমর হয়ে থাকবে কেবল পিঙ্কি আর সন্দীপের হাত ধরেই!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here