হলিউডের সবচেয়ে হাই প্রোফাইল দাম্পত্যের একটি ভাঙতে চলেছে। স্বামী ব্র্যাড পিটের বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করেছেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। কারণটা ‘মিটমাটের অযোগ্য’। আদালতের নথি অনুযায়ী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকেই আলাদা হয়ে গিয়েছেন এই দম্পতি।

 জোলি তাঁদের ছয় সন্তানকে নিজের কাছে রাখতে চেয়ে আদালতে আবেদন করেছেন। আবেদনে পিটকে সন্তানদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়ার সুযোগের কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি জোলি তাঁর ‘সমস্ত গয়নাগাটি এবং অন্যান্য ব্যক্তিগত জিনিস’ নিজের কাছে রাখারও আবেদন করেছেন। আলাদা হয়ে যাওয়ার পরবর্তী কালের উপার্জন এবং সম্পদ নিজের কাছে রাখার কথা আবেদনে বললেও, সেগুলি পরে চিহ্নিত করা হবে।

সন্তানদের অধিকার নিয়ে জোর লড়াই হতে চলেছে, এমন খবর ইতিমধ্যেই বাজারে ছেয়ে গেলেও, দু’পক্ষ থেকেই দাবি করা হয়েছে যে তাঁরা সন্তানদের সমস্যার ব্যাপারে অত্যন্ত সচেতন। সন্তানদের ব্যাক্তিগত পরিসরে যেন হস্তক্ষেপ না করা হয়, সেই ব্যাপারেও সকলের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে দুই শিবির থেকে। পিট বলেছেন,’ গোটা ব্যাপারটায় আমি অত্যন্ত যন্ত্রণায় আছি, কিন্তু এই মুহূর্তে সবচেয়ে জরুরি আমাদের সন্তানদের ঠিক মত বেড়ে ওঠা’।

জোলি ও পিটের বিয়ে ২০১৪ সালের আগস্টে হলেও, তাঁদের সম্পর্ক সেই ২০০৪ থেকে, যখন তাঁরা ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস স্মিথ’ ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন।

২০১২ সালে দম্পতি তাঁদের এনগেজমেন্টের কথা ঘোষণা করেন। ২০১৩-য় স্তন ক্যান্সারের সম্ভাবনা দেখতে পেয়ে নিজের দুটি স্তনই অস্ত্রোপচার করে বাদ দেন অ্যাঞ্জেলিনা। তখন পিট তাঁর পাশেই ছিলেন। ২০১৪ সালে একটি ছোট ব্যাক্তিগত অনুষ্ঠানে বিয়ে সেরে নেন ওরা দুজন। ২০১৫ সালে জোলি ফের শিরোনামে আসেন। ক্যান্সারের আশঙ্কায় নিজের ডিম্বাশয় এবং ফ্যালোপিয়ান টিউবও অস্ত্রোপচার করে বাদ দেন তিনি। সেই বছরই ‘বাই দ্যা সি’ ছবির প্রোমোশনে নিজেদের লড়াই ও পারস্পরিক নির্ভরতার কথা তুলে ধরেছিলেন দম্পতি। ছবিটি ছিল একটি সমস্যাদীর্ণ দাম্পত্য সম্পর্ক নিয়ে।

জোলি রাষ্ট্রপুঞ্জের উদ্বাস্তু বিভাগের  বিশেষ দূত। এই সপ্তাহেই নিউইয়র্কে রাষ্ট্রপুঞ্জের বিশেষ অধিবেশন বসছে। অধিবেশন উদ্বাস্তু সমস্যা নিয়ে সরগরম হবে বলে ধারণা ওয়াকিবহাল মহলের। এমন অবস্থায় জোলি প্রচারের আলো অধিবেশন থেকে নিজের দিকে টেনে নিলেন ১২ বছরের সম্পর্কে ইতি টানতে চেয়ে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here