ওয়েবডেস্ক: এক দিকে যখন বলিউড তোলপাড় হয়ে চলেছে একের পর এক #MeToo বিবৃতিতে, জড়িয়ে যাচ্ছে প্রথিতযশাদের নাম যৌন হেনস্তার প্রেক্ষিতে, অন্য দিকে তেমনই উঠছে বিশেষ করে একটাই কথা- অভিযোগকারিণীদের অনেকেই ঘটনার অনেক বছর পরে মুখ খুলছেন কেন! এই যুক্তি দেখিয়েই ধরাশায়ী করে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে অভিযোগ! কিন্তু কঙ্গনা রানাউতকে যে এই যুক্তি দিয়ে কোণঠাসা করা যাবে না, সে কোনো নতুন কথা নয়। কেন না, তাঁর বক্তব্য মতো, হৃতিক রোশন তাঁর সুযোগ নিয়ে এক পাশে যে মুহূর্ত থেকে সরে যেতে চেয়েছিলেন, সেই মুহূর্ত থেকেই তাঁকে নিয়ে মুখ খুলেছিলেন তিনি। সম্প্রতি বিকাশ বহেলের স্বভাবের অন্ধকার দিকটি নিয়েও যেমন মন্তব্য করতে পিছ-পা হননি নায়িকা। আর সেই বক্তব্যের দ্বিতীয় দফাতেই নতুন করে আক্রমণের মুখে হৃতিককে নিয়ে এলেন তিনি!

আরও পড়ুন: বলিউডে হইচই! কঙ্গনার পরে দিশাকে কুপ্রস্তাব হৃতিকের? কাজ ছাড়তে বাধ্য বিব্রত দিশা?

“বিকাশ বহেলের সঙ্গে যা হয়েছে, একদম ঠিক হয়েছে! কিন্তু উনি তো আর একা নন, আরও অনেক এমন ব্যক্তি আছেন বলিউডে, যাঁরা মহিলাদের সঙ্গে ভদ্র ব্যবহার করতে জানেন না, তাঁদের ব্যবহার করেন, হেনস্তা করেন! এঁরা কম বয়সী মেয়েদের রক্ষিতা করে রাখেন আর স্ত্রীকে ঘরে সাজিয়ে রাখেন পুরস্কারের মতো; এঁদেরও তো শাস্তি হওয়া উচিত! আমি কিন্তু এই প্রসঙ্গে একেবারেই হৃতিক রোশনের কথা বলছি, ওঁর সঙ্গেও কারও কাজ করা উচিত নয়”, ফ্যান্টম ফিল্মস বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রসঙ্গকে এই কথাগুলো জানিয়েছেন নায়িকা!

ভেবে দেখলে, কঙ্গনার যুক্তিতে ধার রয়েছে! কেন না, বিকাশ বহেলের সঙ্গে ছবি করবেন না বলে বিবৃতি দিলেও হৃতিক কিন্তু ফের ছবির এডিটিংয়ে হাজিরা দিচ্ছেন! এখন এ হেন দ্বিচারিতা কেন, তার মীমাংসা কি কঙ্গনার যুক্তি ধরেই করতে হবে?

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন