kangana ranaut

ওয়েবডেস্ক: কোনো রকম বাধাই তিনি স্বীকার করেননি কোনো দিন। যখনই দেখেছেন কোনো পুরুষকে নারী নির্যাতনে লিপ্ত হতে, তার প্রতিবাদ করেছেন। অন্য নারীর হেনস্তার প্রসঙ্গে হাট করে খুলে দিয়েছেন নিজের লাঞ্ছনার লুকানো কথার দরজা। এবারেও তার ব্যতিক্রম হল না। ‘পদ্মাবতী’ বিতর্কে যখন দেশ জুড়ে জব্দ করার পরিকল্পনা চলছে দীপিকা পাড়ুকোনকে, তখন এই গা-জোয়ারি বন্ধ করার পথটি দেখিয়ে দিলেন তিনি।নিজের জীবন থেকে উদাহরণ তুলেই!

“এই গা-জোয়ারি অবশ্যই নিন্দনীয়। তবে এটা আমাদের দেশে খুব একটা অবাক হওয়ার মতো ব্যাপারও নয়। ভারতে চিরকালই পুরুষরা নারীকে গায়ের জোরে কোণঠাসা করার চেষ্টা করেছেন। মনে আছে, আমার বোন তখন স্কুলে পড়ে। সেই স্কুলেরই একটা ছেলে ওর মুখে অ্যাসিড ছোড়ার চেষ্টা করেছিল। আর আমাকেই দেখুন না! কয়েকটা সত্যি কথা বলেছি বলে এই পুরুষশাসিত ইন্ডাস্ট্রির এক নায়ক আমায় জেলে পাঠাতে চাইছেন”, বলছেন নায়িকা।

বক্তব্যে এভাবে হৃতিক রোশনকে কটাক্ষ করেই এহেন কট্টর সমস্যার সমাধানে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। “আসলে পিতৃতন্ত্র আর লিঙ্গবিদ্বেষের মূলে আমাদের আঘাত করা উচিত। তবে যদি জনজাগরণ হয়! এছাড়া ব্যক্তিগত পরিমণ্ডলে কাউকে এমন করতে দেখলে সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে বোঝানো উচিত। আর কোনো উপায় নেই এই গা-জোয়ারি বন্ধ করার”, উপদেশ কঙ্গনার।

তবে বক্তব্যে শুধুই পুরুষদের কোণঠাসা করেননি তিনি। মুক্তকণ্ঠে স্বীকার করেছেন পুরুষদের উপর নারীর নির্যাতনের বিষয়টিও। “মানতে বাধ্য, গা-জোয়ারি শুধু পুরুষরাই করেন না। মেয়েরাও করেন। সেই জন্যই একটা সচেতনতা গড়ে তোলা প্রয়োজন। আমার মনে হয়, এ কাজ সিনেমা ছাড়া আর অন্য কোনো মাধ্যমে সম্ভব নয়। কেন না, একটা ছায়াছবি মানুষকে যে পরিমাণে প্রভাবিত করতে পারে, তেমনটা আর কিছুই পারে না”, জানিয়েছেন নায়িকা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here