bollywood

ওয়েবডেস্ক: বলিউডের ছবি কারখানার পক্ষে এ এক বিষম খবর বটেই! বিস্ফোরক যে তাতেও সন্দেহ নেই। এমন কথা বলার আগে বেশ কয়েকবার ভাববেন যে কোনো পরিচালক বা প্রযোজক। কিন্তু সে সবের তোয়াক্কা না করেই মুখ খুললেন করণ জোহর।

আসলে করণের এই মন্তব্য বিস্ফোরক বাণিজ্যিক দিক থেকে। ছবি যাতে বক্স অফিসে হিট করে, সেই জন্য তাতে যৌনাত্মক উপাদান রাখা ব্যবসারই পরিচিত এক অঙ্গ। বলিউড নানা সময়ে এই পদ্ধতি অবলম্বন করে ব্যবসা করেছে এবং করেই চলেছে। ছবিতে যৌন দৃশ্য না থাকলেও উত্তেজক উপাদানে ভরা আইটেম নম্বরও সেই ব্যবসায়িক নীতির দিকেই ইঙ্গিত করে। অথচ সাফ জানালেন করণ- ছবিতে আইটেম নম্বর রেখে তিনি এতদিন ভুল করে এসেছেন!

‘শি দ্য পিপল’ নামের এক অনলাইন পোর্টালে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নায়িকাদের শরীর-সংক্রান্ত এই মন্তব্যটি করেছেন করণ। “যে মুহূর্তে এক নারীকে কেন্দ্রে রাখা হয় এবং তাঁকে ঘিরে থাকে হাজার হাজার লুব্ধ দৃষ্টি, সেই মুহূর্তেই এক ভুল দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হয়। আমি আমার ছবিতে ইতিপূর্বে এই ভুল করে এসেছি। কিন্তু আর নয়! এবার থেকে আমার ছবিতে আর আইটেম নম্বর থাকবে না”, জানিয়েছেন তিনি।

হঠাৎ কেন এমন সিদ্ধান্ত নিলেন করণ? পরিচালক হিসেবে তাঁর কোনো ছবিতে আইটেম নম্বর দেখা না গেলেও প্রযোজিত ছবিতে তার ব্যবহারের উদাহরণ তো রয়েছে। ‘অগ্নিপথ’ ছবির ‘চিকনি চামেলি’, ‘ব্রাদার্স’ ছবির ‘মেরা নাম মেরি হ্যায়’ বা ‘দোস্তানা’র ‘শাট আপ অ্যান্ড বাউন্স’- রীতিমতো উত্তজেক পোশাকে যৌনপ্রতিমা হিসেবে তুলে ধরেছে ক্যাটরিনা কাইফ, করিনা কাপুর খান, শিল্পা শেঠি কুন্দ্রার মতো নায়িকাদের। তাহলে?

বলিউডের খবর বলছে, অন্য অনেক তারকার মতো করণ জোহর হালফিলে ব্যস্ত রয়েছেন নারী উন্নয়নের কাজে। সেই জন্যই এখন ভাবমূর্তি সাফ করতে তাঁর এহেন উদ্যোগ। ভিডিওটা দেখুন না, স্পষ্ট টের পাবেন ব্যাপারটা!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here