ওয়েবডেস্ক: উৎসব তো আনন্দের! নির্দিষ্ট দিনটা পেরিয়ে যায় ঠিকই কালের নিয়মে, কিন্তু আনন্দের রেশ থেকে যায় আজীবন! সেটাই স্বাভাবিক, সেটাই কাম্য। কিন্তু পরিবর্তে উৎসব যদি বিষাদ ডেকে আনে আজীবনের জন্য, তা কি আদৌ বাঞ্ছনীয়?

এই প্রশ্নগুলোই দীপাবলীর আগে বেশ কিছু দিন ধরে ছুড়ে দিচ্ছেন টলিউডের মিমি চক্রবর্তী। সত্যি বলতে কী, এ ভাবে একটানা নিরাপদ উৎসবের প্রচার চালানো ছাড়া তাঁর করণীয়ও কিছু নেই! চট করে তো আর সবাই কান দেবেন না শব্দবাজির বিরুদ্ধবার্তায়! বরং, কান ঝালাপালা হয়ে গেলেও হয় নিজেরা পটকা ফাটাবেন দীপাবলীতে, নয় তো অন্যদের জুলুম স্রেফ সয়ে নেবেন!

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Mimi (@mimichakraborty) on

 

View this post on Instagram

 

Happy Diwali

A post shared by Mimi (@mimichakraborty) on

আরও পড়ুন: জীবনের সব চেয়ে বড়ো অধ্যায় যশের হাত ধরে শুরু করছেন মিমি, জানালেন ভায়া ইনস্টাগ্রাম

কিন্তু মিমি সইছেন না! বরং, নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেল মারফত একটা জনসচেতনতা তৈরির প্রয়াসে কোমর বেঁধেছেন। অবোলা প্রাণী তো বটেই, পাশাপাশি মানুষের পক্ষেও শব্দবাজি কতটা ক্ষতিকর, তা তুলে ধরছেন পরিসংখ্যান দিয়ে!

মিমির একেবারে সাম্প্রতিক দুই শব্দবাজি-বিরোধী পোস্ট জানাচ্ছে, গত শতকে শব্দবাজির দৌরাত্ম্যে দেশে বয়স্ক মানুষের মৃত্যুর হার ৩৪৪৭! ডেঙ্গির মতো মারণ ব্যাধিও এই সংখ্যার ধারে-কাছে ঘেঁষতে পারেনি- সেখানে নজিরটা আটকে রয়েছে ২৪২৯-এ! আবার যদি প্রাণীদের কথা ধরা হয়, তা হলে মিমির দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে- দীপাবলী চলে গেলেও আতসবাজির দৌলতে যে দূষণ হয়, তাতে ফি বছর ২৩৫০-এর কাছাকাছি পশু-পাখি দুর্ভোগে পড়ে!

 

View this post on Instagram

 

🙏🙏🙏HAPPY DIWALI

A post shared by Mimi (@mimichakraborty) on

 

View this post on Instagram

 

#SayNoTOSound say yes to a #HappyDiwali

A post shared by Mimi (@mimichakraborty) on

নায়িকা কিন্তু ভুল কিছু বলছেন না! তাঁর মতো আমাদেরও এ বার থেকে শব্দবাজি দূরে সরিয়ে স্রেফ আলোয় উৎসব সার্থক করে তুললে হয় না?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here