আরও পড়ুন: ইনস্টাগ্রামে আগুন ছড়ালেন ত্রিশালা দত্ত প্রেম, সম্পর্ক, যৌনতা সবই উঠে এসেছে ‘অ্যান অর্ডিনারি লাইফ’-এর পাতায় পাতায়। যেমন উঠে এসেছে নিহারিকা-নওয়াজের ঘনিষ্ঠতার কথা। ২০০৯ সালে ‘মিস লাভলি’ ছবির শুটিং-এর সময় থেকে পরিচয় দুই অভিনেতার। আলাপ গড়িয়ে ঘনিষ্ঠতা- প্রেম-সম্পর্ক। নওয়াজ তাঁর বইতে উল্লেখ করেছেন ‘মিস লাভলি’র সঙ্গে তাঁর প্রণয় পর্ব চলেছিল প্রায় বছর দেড়েক। অন্তরঙ্গতার বিবরণ স্বরূপ বইতে উল্লেখ রয়েছে দুজনের একসঙ্গে রাত কাটানোর মুহূর্তগুলোও। নিহারিকার দাবি তাঁদের সম্পর্ক টিকেছিল মেরে কেটে কয়েক মাস। “যেভাবে আমার চরিত্রটা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে, তা থেকে এটুকু স্পষ্ট, বই-এর বিক্রি বাড়াতে একটা মেয়েকে অসম্মান করতে এতটুকু বাধেনি ওঁর”। প্রথম কবে নিহারিকা এলেন অভিনেতার বাড়ি, তারপর নিহারিকার বাড়িতে নৈশভোজ এবং সেখান থেকে শুরু হওয়া ‘প্যাশনেট লাভ স্টোরি’, ‘অর্ডিনারি লাইফ’-এর পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ ধরা রয়েছে স্মৃতিকথায়। নিহারিকা ছাড়াও নওয়াজের আকাশ একসময় আলো করে থাকা অন্য নক্ষত্ররাও বাদ পড়েননি কেউই। নিউজার্সি থেকে আসা ইহুদি মেয়ে সুজেন-এর কথা বাদ পড়েনি সেখানে। নওয়াজের টানে সুদূর মার্কিন মুলুক থেকে মুম্বই পাড়ি দেওয়া সুজেনের। একসঙ্গেই থাকতেন দুজনে মুম্বইতে। প্রেম-পরিণয়-যৌনতা নিয়ে অকপট হওয়া জীবনকাহিনী নিয়ে কী বলছেন ‘বাবুমশাই বন্দুকবাজ’? নিহারিকার নাম না করেই নওয়াজ মন্তব্য করেছেন, “আমার লেখা অনেককেই খুশি করবে না আমি জানি। নিজের জীবনের একেবারে ব্যক্তিগত দিকগুলো তুলে ধরার সময় আমার মনেও ভয় ছিল, অস্বস্তি ছিল- লোকে কী ভাববে। তবে আমি তো সুপারস্টার নই। আমি একজন মানুষ। প্রত্যেক মানুষের ইচ্ছে করে নিজের জীবনের কথা অন্য কাউকে শোনায়। আমিও তাই শোনালাম। মানুষের চরিত্র তো আর বলিউড নায়কদের মতো হয় না। কিছু ভালো দিক থাকে, কিছু খারাপ। লিখতে হলে সত্যিটাই লিখব, নইলে লিখব না”।]]>

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন