নয়াদিল্লি: এক লক্ষ অনলাইন ভোট পেল ‘ইন্টারকোর্স’ শব্দটা। অনুষ্কা শর্মা ও শাহরুখ খান অভিনীত ইমতিয়াজ আলির আগামী ছবি ‘যব হ্যারি মেট সেজল’-এ এই শব্দটি ব্যবহার করায় প্রবল বিচলিত হয়ে পড়েছিলেন সেন্সর বোর্ডের প্রধান পহলাজ নিহালনি। তিনি শব্দটি রাখার ক্ষেত্রে জনতার অনলাইন ভোট নেওয়ার কথা বলেছিলেন। তিনি আরও জানিয়েছিলেন যদি এক লক্ষ জনতা এই শব্দটি রাখার পক্ষে ভোট দেন তবে এটাই বুঝতে হবে পৃথিবী বদলেছে। মানুষের ভাবধারাও বদলেছে। দেশের মানুষেরও চিন্তারও পরিবর্তন হয়েছে। তাঁরা চাইছেন, ১২ বছরের ছেলেমেয়েরাও এই শব্দটির মানে জানুক। এক লক্ষ ভোট পেলে তিনি ‘ইন্টারকোর্স’ শব্দটি ছবিতে রাখবেন। শুধু তা-ই নয় প্রোমো, ট্রেলারেও রাখবেন। তা না হলে শব্দটি বাদ দিতে হবে। আর তিনি বলেছিলেন, শুধুমাত্র বিবাহিত এবং ৩৬ বছরের বেশি বয়সের মানুষদের ভোটই এখানে বৈধ বলে গণ্য করা হবে।

 

একটি নিউজ চ্যানেলকে তিনি চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। এক লক্ষ ভোট পেলে তিনি এই ছবিকে ‘অ্যাডাল্ট’ বলে চিহ্নিত করবেন না। কিন্তু শব্দটা এক লক্ষ কুড়ি হাজার ভোট পেয়েছে। এ বার তিনি কী করবেন? পহলাজ বলছেন, বাজি ধরাই ভুল হয়েছিল তাঁর।

এই হাস্যকর পরিণতির মুখোমুখি হয়ে তিনি যে দারুণ অস্বস্তিতে পড়েছেন তা তাঁর আচরণে স্পষ্ট। আর তা ধরা পড়েছে ওই চ্যানেলের এক জন  প্রতিবেদকের মুখোমুখি হওয়ার মূহূর্তে।

যাই হোক চ্যানেলটি শুধু যে প্রয়োজনীয় ভোট পেয়েছে তাই নয়, উলটে নিহালিনির নিজের পরিচালিত ছবিতে কীভাবে যৌনতার শব্দ, বাক্যাংশ ব্যবহার করা হয়েছে, তাও দেখিয়েছে । পাশাপাশি সেই ছবিগুলো যে ‘ইউ’ মার্কা হিসেবে ছাড়পত্রও পেয়ে গেছে সেই তথ্যও তুলে ধরেছে এই চ্যানেল।

‘যব হ্যারি মেট সেজল’ ছবিটি ৪ আগস্ট মুক্তি পাওয়ার কথা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন