pad man

ওয়েবডেস্ক: এত দিন পর্যন্ত ‘মেনস্ট্রুয়েশন ম্যান’ তকমাটা বরাদ্দ ছিল কেবল অরুণাচলম মুরুগানান্তমের জন্য। কিন্তু এবার অক্ষয় কুমারকেও বলতেই হবে ‘মেনস্ট্রুয়েশন ম্যান’! কলাগাছের ছাল দিয়ে স্যানিটারি প্যাড বানিয়ে দেশের নারীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন যিনি, তামিলনাড়ুর সেই অরুণাচলম মুরুগানান্তমকে তো তিনিই জনপ্রিয় করলেন ছায়াছবির পর্দায়। তাঁর জীবনকে নিয়ে এলেন অগণিত মানুষের চোখের সামনে।

তবে নায়ক সম্ভবত মুরুগানান্তমের কৃতিত্বের কথা মাথায় রেখেই ‘মেনস্ট্রুয়েশন ম্যান’-এর তকমায় ভাগ বসাতে চান না। সেই জন্য তিনি বেছে নিয়েছেন ‘প্যাড ম্যান’ শব্দবন্ধটি। আর তা নিয়েই সদ্য মুক্তি পেয়েছে আর বালকি পরিচালিত, টুইঙ্কল খান্না প্রযোজিত অক্ষয় কুমারের নতুন ছবি ‘প্যাড ম্যান’-এর ট্রেলার। কী বলছে তা?

প্যাড ম্যান জোর দিচ্ছে স্বাস্থ্য সচেতনতার দিকটিতে। বলছে, লজ্জা নয়, বরং ভারতের সব নারীকে জোর দিতে হবে সুস্থ জীবনযাপনে। আর সেই কাজে পুরুষকে হতে হবে নারীর সহায়ক। ঠিক যেমনটা করেছিলেন মুরুগানান্তম, দাঁড়িয়েছিলেন নববিবাহিত স্ত্রীর পাশে।

জানা যায়, ১৯৯৮ সালে মুরুগানান্তম একদিন দেখেন নববিবাহিতা স্ত্রী শান্তা কিছু একটা লুকিয়ে যাচ্ছে! জিগ্যেস করে জানতে পারেন, শান্তা ঋতুস্রাব রোধের কাপড়টা স্বামীর কাছ থেকে লুকিয়ে রাখতে চাইছিলেন! মুরুগানান্তম জানিয়েছিলেন, তিনি খুবই অবাক হয়ে যান! “কেন না এত নোংরা একটা কাপড় দিয়ে আমি আমার স্কুটারটাও মুছতে চাইব না”, অকপট স্বীকারোক্তি তাঁর!

এর পরের ঘটনাটা অনেকগুলো আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত। মুরুগানান্তমের ওষুধের দোকানে স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনতে যাওয়া, তার দাম দেখে অবাক হওয়া এবং উপলব্ধি করা যে শুধুমাত্র দামের জন্যই ভারতের অনেক গ্রামীণ মহিলা তা ব্যবহার করতে পারেন না। অতঃপর শুরু হয় সংগ্রামপর্ব- প্রথমে তুলো দিয়ে সস্তায় স্যানিটারি ন্যাপকিন বানানোর চেষ্টা এবং বেশ কয়েকবার ঠোক্কর খেতে খেতে শেষপর্যন্ত কলাগাছের ছাল দিয়ে স্যানিটারি প্যাড নির্মাণ!

ট্রেলারে উঠে এসেছে মুরুগানান্তমের জীবনের এই সব ঘটনাই! তবে অপেক্ষাকৃত হালকা ভাবে। যে কারণে ট্রেলারের শুরুতেই শোনা যাচ্ছে অমিতাভ বচ্চনের গলায়- বিদেশের কাছে সুপারম্যান আছে, ব্যাটম্যান আছে। আর ভারতের কাছে আছে প্যাড ম্যান। তার পর একে একে ধরা দিয়েছে নায়কের নানা ভাবে, নানা জিনিস দিয়ে স্যানিটারি প্যাড বানানো, পরখ করে দেখা এবং তা প্রচার করতে গিয়ে সমাজে অপদস্থ হওয়ার কাহিনি।

ছবিতে মুরুগানান্তমের স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন রাধিকা আপটে। এ ছাড়া এক সাংবাদিকের ভূমিকায় দেখা যাবে সোনম কাপুরকে, যিনি লড়াইয়ের দিনে পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন নায়কের। মনে থাকতে পারে, এর আগে ছবির একটি মোশন পোস্টারে সোনম শিখিয়েছিলেন অক্ষয়কে, কী ভাবে ‘প্যাড’ শব্দটা উচ্চারণ করা উচিত। সেখানে শোনা গিয়েছিল, নায়ক শব্দটা উচ্চারণ করতে ইতস্তত করছেন। ঠিক যেমন স্যানিটারি প্যাড নিয়ে লুকোচুরির ভাব রয়েছে সমাজেও।

ভিডিওয় ক্লিক করে দেখে নিন ট্রেলারটি। আপনাকে মুগ্ধ করবেই মুরুগানান্তমের জীবনের কাহিনি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here