কথায় আছে লাইফ ইজ আনপ্রেডিকটেবল। কার কখন ডাক আসে কেউ বলতে পারেনা। যেকোনও মানুষ নিজের সৃষ্টি, নিজের কাজকে দেখে যেতে চান। বলিউড হোক বা টলিউড প্রত্যেক অভিনেতা বা অভিনেত্রীরা নিজেদের অভিনীত ছবি মুক্তির অপেক্ষা করেন। ছবিটি জনমানসে কতটা সাড়া ফেলল, কতটা ক্রিটিসাইজ হল, সবটাই জানতে চান তাঁরা। ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার নতুন উদ্যোমে কাজে মন দেন। কিন্তু সবসময় সবকিছু আগে থেকে ঠিক করা থাকে না।

বলিউডে এমন বেশ কিছু ছবি রয়েছে, যেখানে অভিনেতা বা অভিনেত্রীর আচমকা মৃত্যুর পর মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, ঋষি কাপুর, ইরফান খান, সুশান্ত সিং রাজপুত, মধুবালা, মিনা কুমারী, শ্রীদেবী।

করোনা আবহে সিনেমা প্রেমী মানুষদের কাঁদিয়ে বিদায় নিয়েছেন ইরফান খান। আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন। চিকিৎসাও চলছিল। মনের জোরে কাজও করছিলেন। ২০২০ সালে “ইংরেজি মিডিয়াম”ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল। এটি ছিল বড় পর্দায় মুক্তি পাওয়া তার শেষ ছবি। কিন্তু ছবিটি মুক্তি পেয়েছিল তার মৃত্যুর দু মাস আগে। ওটিটি প্লাটফর্মে তার মৃত্যুর পর মুক্তি পেয়েছে মার্ডার এট তিসরি মঞ্জিল।

সুশান্ত সিং রাজপুতের শেষ ছবি “দিল বেচারা”। তাঁর মৃত্যুর পর এই ছবিটি মুক্তি পায়। অভিনেতার মৃত্যুর পর ছবিটি ছবিটি মুক্তি পেলেও ভেঙেছে বেশ কিছু রেকর্ড। ছবিটি পরিচালনা করেছেন মুকেশ ছাবরা। ওটিটি প্ল্যাটফর্মে একেবারে বিনামূল্যে সিনেমা দেখার প্রথম সুযোগ পেয়েছিলেন দর্শকরা।

ভারতের অন্যতম সেরা অভিনেত্রী মধুবালা ১৯৬৯ সালে প্রয়াত হন। তাঁর মৃত্যুর প্রায় দু’বছর পর মুক্তি পেয়েছিল তাঁর শেষ ছবি জাল ওয়া।

শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় শুরু করেছিলেন মিনা কুমারী। দেখতে দেখতে 90 টি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। মীনা কুমারীর শেষ ছবি গোমতী কিনারি। অভিনয় শেষ করার পর মুক্তি পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারেননি তিনি। ১৯৭২ সালে মৃত্যু হয় তাঁর। মৃত্যুর কয়েক মাস পরে মুক্তি পায় ছবিটি।

২০২১ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কন্নড় ছবির সুপারস্টার পুনিত রাজকুমার। তাঁর শেষ ছবি জেমস মুক্তি পায় তাঁর মৃত্যুর পর।

২০২০ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান দক্ষিণী অভিনেতা চিরঞ্জীবী সারজা । ২০২১ সালে মুক্তি পেয়েছিল তাঁর শেষ ছবি রম্য।

কোটি কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে বিদায় নিয়েছিলেন হাওয়া হাওয়াই গার্ল। তাঁর শেষ ছবি জিরো। মৃত্যুর ১০ মাস পর মুক্তি পায় ছবিটি।

শুধু বলিউড নয়,টলিউডেও ঘটেছে এই একই ঘটনা। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুর পর মুক্তি পেয়েছে তাঁর শেষ ছবি বেলাশুরু।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন