ওয়েবডেস্ক: অর্থাৎ এটা স্পষ্ট যে, যা রটে, তার অনেকটাই বিনোদুনিয়ায় ঘটে! মানে, গত পুজোর সময় ‘ককপিট’ বনাম ‘ইয়েতি অভিযান’-এর মুক্তি নিয়ে দেব এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যে যে নারদ-নারদ হয়েছিল, তা মিথ্যা খবর নয়! কেন না, এ বার সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে খোদ প্রসেনজিৎই যে স্বীকার করে নিলেন ব্যাপারটা!

dev and prosenjit chatterjee

সত্যি বলতে কী, দেব আর প্রসেনজিতের প্রতিদ্বন্দ্বিতা বরাবরই দেখে এসেছে টলিপাড়া। এমনকি, তাঁরা দু’জনে যখন এক সঙ্গে স‌ৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘জুলফিকার’ ছবি করলেন, তখনও দু’জনকে দেখা গিয়েছিল পরস্পরের প্রতিদ্বন্দ্বী চরিত্রেই। সেই বিবাদ এক ধাক্কায় সামনে এল যখন গত পুজোয় একই সময়ে মুক্তির তারিখ ধার্য হল দেবের ‘ককপিট’ আর প্রসেনজিতের ‘ইয়েতি অভিযান’-এর।

dev and prosenjit chatterjee

বিবাদ বাড়ল, যখন প্রসেনজিতের অনুরোধেও ছবির মুক্তি দেব পিছিয়ে দিলেন না। শুধু তা-ই নয়, ‘ককপিট’-এর ট্রেলারে প্রসেনজিৎ-অভিনীত চরিত্রের ঝলক দেখা গেল। অভিযোগ উঠেছিল, দেব এ ভাবে নিজের ছবির দিকে বেশি দর্শক টানতে চাইছেন! মানে একটা বিভ্রান্তি তৈরির প্রয়াস- এই ছবিতেও রয়েছেন দুই নায়ক!

dev and prosenjit chatterjee

সেই ব্যাপারটা যে খারাপ লেগেছিল, তা এত দিনে স্বীকার করে নিলেন প্রসেনজিৎ। ঝামেলা যে একটা হয়েছিল দু’জনের মধ্যে, তা স্বীকার করেছেন দেবও! “হ্যাঁ, এটা নিয়ে মনোমালিন্য হয়েছিল। কিন্তু আমরা ব্যাপারটাকে বাড়তে দিইনি! বরং, নিজেদের মধ্যে কথা বলে এ রকম যাতে ভবিষ্যতে আর না হয়, সেই দিকে মনোযোগ দিয়েছি”, জানিয়েছেন দেব।

dev and prosenjit chatterjee

তবে সব চেয়ে অবাক করবে প্রসেনজিতের বক্তব্য, “এক ইন্ডাস্ট্রিতে এ সব হয়েই থাকে‍! আমি আমার খারাপ লাগার ব্যাপারটা যখন দেবকে জানিয়েছিলাম, তখন সব সমস্যা মিটেও গিয়েছিল! আরে, এক সময়ে তো উত্তমকুমার, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যেও কথা বলা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু পয়লা বৈশাখের অনুষ্ঠানে বসুশ্রী সিনেমায় সৌমিত্র যখন সবাইকে প্রণাম করে উত্তমকুমারকে পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছেন, উনি ডেকে বললেন- আমি কিন্তু তোর দাদা! ব্যস, সৌমিত্র তখন কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন!”

তা হলে কি সরাসরি নিজেকে মহানায়ক আর দেবকে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তুলনা করলেন প্রসেনজিৎ? কে জানে!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here