ওয়েবডেস্ক: দুবাইয়ে ভাগ্নে মোহিত মারওয়ার বিয়ে থেকে যখন হোটেলে ফিরলেন নায়িকা, তখনও কিছু বোঝার উপায় ছিল না! হোটেলে ফিরে যখন টয়লেটে গেলেন, জানা গিয়েছে, তখনই না কি হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি। হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন!

আরও পড়ুন: দুনিয়া ছাড়লেন হাওয়া হাওয়াই, ৫৪ বছর বয়সেই প্রয়াণ কিংবদন্তির

sridevi and boney kapoor

কিন্তু দুবাই পুলিশ ব্যাপারটিকে এত সহজ করেও দেখছে না! সেই জন্যই ময়নাতদন্ত করছে তারা।

অন্য দিকে রাম গোপাল বর্মাও অনেক দিন আগে থেকেই জানিয়েছিলেন সংবাদমাধ্যমকে যে শ্রীদেবীর জন্য বনি কাপুরকে তিনি কোনো দিন ক্ষমা করবেন না! এ কথা বর্মা জানিয়েছিলেন ২০১৫ সালে, যখন ‘গানস অ্যান্ড থাইজ’ নামে তাঁর আত্মজীবনীটি প্রকাশিত হল।

আরও পড়ুন: শ্রীদেবীর প্রতি রাজীব গান্ধীর মসকরা, হাসিতে ভাসিয়ে ছিল গোটা পার্টি

sridevi

সেই আত্মজীবনীতে শ্রীদেবী সম্পর্কে একটি বিশেষণ প্রয়োগ করেছিলেন পরিচালক- ‘থান্ডারিং থাইজ’! লিখেছিলেন- বেশ অল্প বয়স থেকেই ওই থাই তাঁকে অনেক রঙিন স্বপ্ন উপহার দিয়েছে। সেই সব কিছু ভেঙে চুরমার হয়ে গেল, যখন এক ছবি নিয়ে আলোচনার সূত্রে বনি কাপুরের বাড়িতে গিয়ে রান্নাঘরে চা বানাতে দেখেন শ্রীদেবীকে!

আরও পড়ুন: অকস্মাৎ মৃত্যুর আগে কী করছিলেন শ্রীদেবী, ধরা দিল ভক্তের টুইটার ভিডিওয়

“শ্রীদেবীকে নিয়ে আমার সব স্বপ্ন সে দিনই তছনছ হয়ে গিয়েছিল! আমার স্বপ্নের দেবীকে নিজের বাড়িতে আটকে রেখে খাটাচ্ছেন বনি কাপুর- এর জন্য কোনো দিন তাঁকে ক্ষমা করব না”, লিখেছিলেন বর্মা। সে নিয়ে বিস্তর জলঘোলাও হয়, বনি কাপুর মামলা করবেন ঠিক করেন এবং টুইটের পর টুইটে তাঁকে তুলোধোনাও করেন বর্মা।

ram gopal varma

কিন্তু স্বপ্নসুন্দরীর প্রয়াণের খবর পেয়ে জানিয়েছেন বর্মা- ‘আমি শ্রীদেবীকে ঘৃণা করি!’

আরও পড়ুন: ম‌ৃত্যুর আগেই শ্রীদেবীর প্রয়াণের ইঙ্গিত পেয়েছিলেন বিগ বি, টুইট-ও করেছেন তা নিয়ে!

সত্যি বলতে কী, এ আদতে ভক্তের হাহাকার! কেন, তা জানার জন্য তাঁর বক্তব্যের সমগ্রে চোখ রাখতে হবে।

ram gopal varma

“আমি ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিই শ্রীদেবীকে সৃষ্টির জন্য এবং লুই লুমিয়েরকে ধন্যবাদ দিই ক্যামেরা সৃষ্টির জন্য যার মারফত শ্রীদেবীর সৌন্দর্য আমরা ধরে রাখতে পেরেছি! আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না যে শ্রীদেবী আর নেই, বিছানায় শুয়ে শুয়ে আমি কেবল ওঁর কথাই লিখে চলেছি! আমি শ্রীদেবীকে ঘৃণা করি! এই জন্যই ঘৃণা করি যে শ্রীদেবী আমায় বুঝিয়ে দিয়েছেন, তিনি আদতে রক্তমাংসের মানুষ ছিলেন। শ্রীদেবীর মৃত্যুর জন্য আমি ঈশ্বরকেও ঘৃণা করি! এবং মরে যাওয়ার জন্য ঘৃণা করি নায়িকাকে! কিন্তু আমি এখনও আপনাকে ভালোবাসি শ্রী, আপনি যেখানেই থাকুন, আমি আজীবন আপনাকে ভালোবেসে যাব”, লিখেছেন বর্মা!

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন