ওয়েবডেস্ক: পুরোটাই কি তা হলে শক্তি আর তা ব্যবহারের খেলা? মানে, এই যে এত দিন ধরে ক্ষমতাশালীরা যথেচ্ছ ব্যবহার করেছে মেয়েদের, সেটা পাওয়ার প্লে-র একটা দিক। এ বার সেই ক্ষমতার টেবিলটা ঘুরে যাচ্ছে মেয়েদের দিকে, যখন তাঁরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন নিজের যৌন হেনস্তা নিয়ে! আর এই দুইয়ের মাঝে দাঁড়িয়ে রুক্মিণী মৈত্র কি সেই পাওয়ার প্লে আর তার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা মেয়েদের নিয়ে অপবাদটাকেই তুলে আনলেন প্রকাশ্যে?

আরও পড়ুন: #Metoo এবার টলিউডেও, সৃজিত মুখার্জির বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ, উত্তর দিলেন পরিচালক

রুক্মিণী কী করতে চলেছেন বা বলা ভালো করার কথা তুলেছেন সবে, সে কথায় আসার আগে মেয়েদের নিয়ে অপবাদ বিষয়টাকে একটু স্পষ্ট করা উচিত! ওই যে কথায় বলে না- মেয়েরাই মেয়েদের সব চেয়ে বড়ো শত্রু! তা, এক মেয়ে অন্যের বিপক্ষে গেলে প্রকারান্তরে লাভবান যে কোনো না কোনো পুরুষই হন, সেও নতুন কিছু নয়! এ বার প্রশ্ন হল, আচমকা কেন নড়ে-চড়ে বসেছে টলিপাড়া? তা হলে কি সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের পরে টলিপাড়ার অন্য প্রভাবশালীদের নামও এ বার একে একে উঠে উঠে আসতে চলেছে? আর সেই জায়গা থেকে অভিযোগের নিশানায় রয়েছেন দেবও?

রুক্মিণীর টুইট অন্তত সে রকমই ইঙ্গিত দিচ্ছে! সাম্প্রতিক টুইটে প্রস্তাব তুলেছেন নায়িকা- “আমার মনে হয়, আমার এ বার একটা #SheToo আন্দোলন শুরু করা উচিত, সেই সব মেয়েদের বিরুদ্ধে যাঁরা অন্য পক্ষের পুরুষটি সিঙ্গল নন জেনেও কুরুচিকর প্রস্তাব দেন!” আশ্চর্য ব্যাপার, রুক্মিণীর এই বক্তব্যকে সমর্থন করে জবাব দিয়েছেন অনিকেত চট্টোপাধ্যায়- “নিশ্চয়ই, চ্যারিটি শুড বিগিন অ্যাট হোম!” তা হলে কি এ বার প্রকাশ্যে আসতে চলেছে দেবের কোনো কুকীর্তি? কী মনে হয়?

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন