ওয়েবডেস্ক: ২০০৩ সাল থেকে বলিউডে কাজ করতে শুরু করেছেন তিনি। কিন্তু খ্যাতির শীর্ষে মাহি গিলকে পৌঁছে দিয়েছিল ২০০৮ সালের ‘দেব ডি’! তার পর আর পিছনে ফিরে তাকানোর কথা নয়!‍ কিন্তু সেই ২০০৮ সাল থেকে শুরু করে বর্তমানের ২০১৮ সাল পর্যন্ত নায়িকার কেরিয়ারে উল্লেখযোগ্য ছবি বলতে কেন রয়ে গেল স্রেফ তিগমাংশু ধুলিয়ার ‘সাহেব, বিবি অউর গ্যাংস্টার’ সিরিজের ছবিগুলোই?

A post shared by Mahie Gill (@mahieg) on

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এ নিয়ে মুখ খুলেছেন মাহি! জানিয়েছেন, তাঁর কেরিয়ারের প্রায় ভরাডুবির নেপথ্যে না কি রয়েছে বলিউডের অন্যতম হিট সিরিজ ছবি ‘দাবাং’!

নায়িকার বক্তব্য শুনে চমকে উঠতেই হয়! কেন না, সলমন খানের ছবিতে কাজ করে কেউ বলিউডে কাজ পান না- এমনটা সচরাচর হয় না! তা হলে? মাহির যুক্তিটা ঠিক কী?

আরও পড়ুন: প্রযোজকরা বলত রাতপোশাক পরে আসতে, বলিউডের কাস্টিং কাউচ নিয়ে বিস্ফোরক মাহি গিল

A post shared by Mahie Gill (@mahieg) on

“দেব ডি’ ছবিতে অভিনয়ের পরে আমার কেরিয়ার বেশ ভালোই এগোচ্ছিল! নানা ছবি থেকে ডাক পাচ্ছিলাম! কিন্তু সর্বনাশটা হল দাবাং করতে গিয়ে! তখন বুঝতে পারিনি যে সিদ্ধান্তটা আমায় এমন ভাবে বসিয়ে দেবে! ‘দাবাং’-এর পর থেকেই প্রযোজকরা আমায় কেবল ছোটো চরিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব দিতে থাকলেন, কেউই প্রায় নায়িকা হওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছিলেন না”, খোলাখুলি জানাচ্ছেন নায়িকা!

A post shared by Mahie Gill (@mahieg) on

তাই যদি হয়, তা হলে ‘দাবাং ২’-তেও কেন অভিনয় করলেন তিনি? “এখন আমার মনে হয়, ব্যাপারটা স্রেফ ভাগ্য ছাড়া আর কিছুই নয়! তাই আফশোস না করে দাবাং সিরিজের পরের ছবিটাও করেছিলাম”, দাবি তাঁর!

#Selfie

A post shared by Mahie Gill (@mahieg) on

পাশাপাশি, ‘সাহেব, বিবি অউর গ্যাংস্টার’ তাঁকে কী ভাবে বলিউডে টিঁকে থাকতে সাহায্য করেছে, সে কথাও সিরিজের তিন নম্বর ছবি মুক্তির আগে জানাতে ভুলছেন না নায়িকা! “কেরিয়ারের এই ছবিটা নিয়ে আমি সত্যিই গর্বিত! প্রথম যখন আমরা ছবিটা করি, কল্পনাই করিনি যে এটা এতটা হিট হয়ে যাবে! কিন্তু যত দিন যাচ্ছে, ছবি আর তার সঙ্গে চরিত্রগুলো আরও জাঁকালো হয়ে উঠছে! এটাই এই সিরিজের মজা”, বলছেন মাহি!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here