ওয়েবডেস্ক: মৃত্যু না হত্যা?

sridevi

দুবাইয়ের পাঁচতারায় শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই শুরু হয়েছিল জলঘোলা! দেহ দেশে ফিরতে দেরি হওয়ায় জল্পনা আর থামছিলই না! তার উপরে যখন দিল্লি পুলিশের প্রাক্তন এসিপি বেদ ভূষণ জানান, তিনি নায়িকার মৃত্যুর সময়ে দুবাইতেই ছিলেন এবং খবর পেয়ে পাঁচতারায় পৌঁছে তাঁর মনে হয়েছে সব প্রমাণ লোপাট করে দেওয়া হচ্ছে- তখন প্রয়াত নায়িকার মৃত্যুরহস্য এসে দাঁড়িয়েছিল গভীর জটের মাঝে!

boney kapoor, janhvi kapoor and khushi kapoor

সেই সব জল্পনা-কল্পনা নতুন করে উসকে দিল একটি বিস্ফোরক খবর! সেই খবর বলছে, শ্রীদেবীর একটি জীবন বিমা করানো ছিল। ওমানের একটি বিমা সংস্থা থেকে করানো যার মূল্য ২৪০ কোটি টাকা! এবং সেই বিমার শর্তাবলীতে স্পষ্ট উল্লেখ ছিল- একমাত্র নায়িকার যদি দুবাইতে মৃত্যু হয়, তা হলেই তাঁর পরিবার এই বিশাল অঙ্কের টাকাটা পাবে! এবং দুবাইতেই নায়িকার দেহাবসান হওয়ায় টাকাটা পাচ্ছেনও বনি কাপুর, বড়ো মেয়ে জাহ্নবী আর ছোটো মেয়ে খুশি!

সেই জায়গা থেকে এ বার ভক্তদের ক্ষোভ উপচে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বিশেষ করে দিল্লি উচ্চ আদালত যখন সুনীল সিং নামের এক ব্যক্তির করা নায়িকার মৃত্যুরহস্যের কিনারার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে, তখন ভক্তদের ক্ষোভের মাত্রা বাড়ছে বই কমছে না! সবারই এক দাবি- মামলা শীর্ষ আদালতে উঠুক, ঘটনাটির সুষ্ঠু তদন্ত হোক!

“মুশকিল হচ্ছে, দুবাই পুলিশ এ নিয়ে আমাদের সঙ্গে স্পষ্ট করে কথা বলতে চাইছে না! তাদের তরফে কোনো রকম সহযোগিতাই করা হচ্ছে না! এটা যে হবে সে আমি তখনই বুঝেছিলাম যখন নায়িকার মৃত্যুর খবর পেয়েই জুমেইরা এমিরেটস টাওয়ার্স-এ যাই! সেখানে গিয়ে যা দেখি, তাতে কর্মজীবনের অভিজ্ঞতা থেকে আমার মনে হয়েছে, মৃত্যুর আসল কারণের সব সাক্ষ্য-প্রমাণ লোপাট করে দেওয়া হচ্ছে! যাই হোক, আমরা হাল ছাড়ছি না! আমরা শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছি”, জানিয়েছেন দিল্লি পুলিশের প্রাক্তন এসিপি!

অন্য দিকে, টুইটারেতিরাও তাঁর বক্তব্যের সঙ্গে সহমত! ‘সুপ্রিম কোর্টের এ বার ঘটনায় হস্তক্ষেপ করা উচিত’, বলছেন এক টুইটারেতি! ‘অন্তত বিমা সংস্থার ঘটনাটা খতিয়ে দেখা উচিত’, মত অপরের! ‘তদন্ত যখন হচ্ছে না, তখন বোঝাই যাচ্ছে, দুবাই পুলিশকে ভালো মতো টাকা খাওয়ানো হয়েছে’- এমন সরাসরি অভিযোগও উঠছে টুইটারে!

আপনার কী মনে হয়? টুইটারেতি এবং দিল্লি পুলিশের প্রাক্তন এসিপি ঠিক কথাই বলছেন?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here