ওয়েবডেস্ক: নারীরা যৌনতা উদযাপন করছেন, এ ব্যাপারটা এখনও পর্যন্ত মেনে নেওয়ার মতো যথেষ্ট প্রাপ্তমনস্ক হয়নি দেশ! তৈরি নয় আদপেই- পুরুষের হস্তমৈথুনের মতো নারীর হস্তমৈথুনকেও স্বাভাবিক প্রবৃত্তিপূরণ বলে মেনে নিতে!

swara bhaskar

সেই জায়গা থেকে যখন ‘বীরে দি ওয়েডিং’ ছবির গোটা পর্দা জুড়ে স্বরা ভাস্করকে স্বমেহনে মগ্ন থাকতে দেখা গেল, ধিক্কার রব উঠল! বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায়! জনৈক টুইটারেতি লিখলেন- তিনি তাঁর ঠাকুরমাকে নিয়ে ছবিটা দেখতে গিয়েছিলেন! হস্তমৈথুনের দৃশ্যটি শুরু হওয়ার পরে তাঁরা দু’জনেই একপ্রকার ছিটকে প্রেক্ষাগৃহ থেকে বাইরে চলে আসেন! এসে ঠাকুরমা জানান, “আমি ভারতবর্ষ এবং আমি বীরে দি ওয়েডিং নিয়ে লজ্জিত”!

swara bhaskar

সন্দেহ নেই, কাথুয়া এবং উন্নাও গণধর্ষণ কাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে স্বরা যখন লিখেছিলেন, “আমি ভারতবর্ষ এবং আমি লজ্জিত”, তাঁর সেই বক্তব্যকেই টুইটারে বিদ্রুপ করা হল চিত্রনাট্যের এই জায়গাটির পরিপ্রেক্ষিতে!

এবং যে কোনো কারণেই হোক, এই একই বক্তব্য, তাও আবার হু-বহু, টুইটারে পোস্ট করতে থাকলেন অনেকেই! সবাই খড়্গহস্ত স্বরার এই স্বমেহন নিয়ে, হোক না তা অভিনয়! যদিও কিছু টুইটারেতি স্বরার পক্ষ নিয়ে এটা টুইট করতেও ছাড়লেন না- দেশ জুড়ে এত মানুষ তাঁদের ঠাকুরমাদের নিয়ে ছবিটা দেখতে যাচ্ছেনই বা কেন!

জনসমর্থন, অল্প হলেও, পাওয়ার পর আর চুপ করে রইলেন না নায়িকা! সাফ লিখলেন টুইটারে- “বোধ হয় কোনো তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা টিকিটের টাকাটা প্রযোজনা করছে… অন্তত টুইটগুলো তো বটেই”!

কিন্তু উত্তেজনা এটুকুতেই থেমে থাকছে না! এক টুইটারেতি স্বরার বিপক্ষে থাকা এই সবক’টা টুইটের একটা মারাত্মক ভুলও খুঁজে বের করেছেন! চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন- প্রতিবাদীরা হস্তমৈথুনের ইংরেজি শব্দটার বানান ভুল লিখছেন! যা হাসির খোরাক হয়েছে!

সঙ্গত কারণেই স্বরাও জয় দাস নামের এই টুইটারেতিকে ধন্যবাদ দিয়েছেন! জানিয়েছেন, কী ভাবে তাঁর টুইটার টাইমলাইনে আনন্দ এনে দিয়েছেন ওই ব্যক্তি! সঙ্গে লিখতে ভোলেননি- এহেন টুইটগুলো করার আগে বানান দেখে নেওয়ার কথাও!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here