bharat

ওয়েবডেস্ক : কেন প্রিয়ঙ্কা ‘ভারত’ ছবি ছেড়ে দিলেন? এর উত্তর দিতে গিয়ে প্রথমে ভদ্রতার মোড়কে গা বাঁচিয়ে উত্তর দিয়েছিলেন সলমন। কিন্তু ক্রমশ বোধ হয় গায়ের জ্বালাটা বাড়তে শুরু করল। তাই ধীরে ধীরে কথায় তার বহিঃপ্রকাশ হতে থাকে। তবে এ বার দু’ তরফের বিশ্বস্ত সূত্র উভয়ের সম্পর্কে যা কথা শোনালেন তাতে তো আর মাথা ঠিক রাখা যায় না।

ভাবছেন তো কেন? আর কেন – সলমনের বিশ্বস্ত সূত্রের মুখ থেকে বেরিয়ে এলো একটা গোপন তথ্য। যে তথ্য এই কয়েকবারে সলমন ভুল করেও বলেননি। নিজের মধ্যেই চেপে রেখেছিলেন। ওই সূত্র যা জানিয়েছে তা শুনে সব মিলিয়ে মনে হবেই হবে প্রিয়ঙ্কা এক প্রকার মরিয়া ছিলেন এই ছবিতে কাজ করার জন্য। সূত্র জানিয়েছে, প্রিয়ঙ্কা নাকি সলমনের সঙ্গে এই ছবিতে অভিনয় করার জন্য দুবাইতে সলমনের সঙ্গে আলাদা ভাবে দেখাও করেছিলেন। অনুরোধও করেছিলেন। তা ছাড়াও আগেই সলমন বলেছেন, সলমনের বোন অর্পিতাকে হাজার বার ফোনও করেন পিগি চমপস। সঙ্গে ছবির প্রযোজক আলি আব্বসকেও বহুবার ফোন করেছিলেন। তা সত্ত্বেও কাজটা পাওয়ার পর তা ছেড়ে দিলেন?

প্রিয়ঙ্কার কোনো এক বিশ্বস্ত সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, এই কাজ ছাড়ার আসল কারণ হলেন দু’জন অভিনেতা। এক জন তাবু আর এক জন দিশা। এঁরাও এই ছবির সঙ্গে যুক্ত। ফলে নায়িকা হিসেবে তিনি যথাযথ গুরুত্ব পাবেন কিনা, তা নিয়ে প্রি,আঙ্কার সন্দেহ তৈরি হয়। তা ছাড়া প্রিয়ঙ্কা সদ্যই জানতে পেরেছেন সলমন নাকি সাংঘাতিক লেট লতিফ। অনিয়মিত। কাজের সময়ে দেরি করে আসাটা তাঁর অভ্যাস। আর এই কারণটাও নাকি এই কাজ ছাড়ার জন্য অন্যতম ভূমিকা নিয়েছে। তার কারণ হল হলিউডের মতো জায়গায় এত দিন পেশাদারি পরিবেশে কাজ করার পর এই ধরনের কাজের পরিবেশ মানিয়ে নেওয়া প্রিয়ঙ্কার পক্ষে অসুবিধার। তাই তিনি কাজটাই ছেড়ে দিয়েছেন। তাতে না থাকবে বাঁশ আর না বাজবে বাঁশি।

তাহলে এই সব জেনে কী মনে হচ্ছে আপনাদের? আসল ব্যাপারটা কী বলুন তো?

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন