ওয়েবডেস্ক: “অক্ষয়, তৈমুর কিন্তু তোমার পক্ষে এক বড়োসড়ো হুমকি! বলছি তোমাকে, বিশ্বাস করো! ফ্যান ফলোয়িংয়ের দিক থেকে তো ও তোমায় ছাপিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা রাখেই! আর যদি তৈমুরের সঙ্গে একটা ছবি করো, দেখবে তোমার থেকে বেশি উপার্জন ও করছে! ব্যাপারটা ভুলো না, সরাসরি চ্যালেঞ্জ করছি তোমায়”!

মুম্বইয়ের লোকমত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অক্ষয় কুমারকে উদ্দেশ্য করে এ কথা যখন বলেছিলেন করিনা কাপুর খান, ভাবতেও পারেননি, ব্যাপারটা বুমেরাং হয়ে ফিরে আসবে তাঁরই দিকে! মানে নিজেকে দেশের কনিষ্ঠতম সুপারস্টারের মা বলে দাবি করলেও আদতে যে স্রেফ বয়সের দিক থেকেই কনিষ্ঠ, ছেলের স্টারডম যে এর মধ্যেই ছাপিয়ে গিয়েছে তাঁর জনপ্রিয়তাও, সেটা আঁচ করে উঠতে পারেননি বেগমজান!

এখন পেরেছেন বই কি! তাও বিলক্ষণ! পরিণামে মা আর ছেলের মধ্যে এই খ্যাতির কেন্দ্রে থাকা নিয়ে মনোমালিন্যও শুরু হয়ে গিয়েছে!

আসলে করিনা যেখানেই যান, সেখানেই উঠে আসে তৈমুরের কথা! লোকের এখন তাঁর চেয়েও বেশি আগ্রহ তৈমুরকে নিয়ে। সোনম কাপুর আর আনন্দ আহুজার বিয়ের সকালেই যেমন ব্যাপারটা দেখে বিরক্ত হয়ে তৈমুরকে নিয়ে বিবাহবাসরে চলে গিয়েছিলেন সইফ আলি খান! ফটোগ্রাফারদের সুযোগই দেননি ভালো করে তৈমুরের ছবি তোলার! তা নিয়ে নবাবে আর বেগমে বচসাও হয়েছে প্রকাশ্যে। পরিণতিতে যখন একাই লেন্সের সামনে দাঁড়ালেন করিনা, দেখা গেল, ভদ্রতাবোধে খানকয়েক ক্লিক ক্লিক আওয়াজ হল স্রেফ!

কিন্তু সব কিছুকে ছাপিয়ে গেল সাম্প্রতিক ঘটনা! যেখানে দেখা গেল, কেউ করিনার ছবি তুলতেই চাইছেন না! ছেলেকে নিয়ে স্টুডিওর দরজায় গাড়ি থেকে নামার পরে করিনাকে জুম আউট করে ক্যামেরার লেন্স কেবলই ধরতে চাইল তৈমুরকে! ছোটে নবাব এখন হাঁটতে শিখেছে, ফলে তাকে নিয়ে আগ্রহও বাড়তির দিকে!

এবং এই প্রথম করিনা বিব্রত বোধ করলেন ঘটনায়। ছেলেকে ঠেলতে ঠেলতে নিয়ে যেতে চাইলেন স্টুডিওর ভিতরে! ও দিকে, তৈমুর তাতে রাজি নয়! সে এগিয়ে যেতে চায় ফটোগ্রাফারদের দিকে! ভিডিও দেখুন, দেখবেন বেশ কষ্ট করেই ছেলেকে নিয়ে ভিতরে গেলেন করিনা!

কর্মফল, তাই না?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here