ওয়েবডেস্ক: সলমন খানের সঙ্গে কেন সম্পর্কটা শেষ পর্যন্ত আর টেনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হল না, তার একটাই কারণ দর্শিয়েছিলেন ঐশ্বর্য রাই বচ্চন। জানিয়েছিলেন সাফ- “সলমন সন্দেহ করত আমি অন্য পুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে রয়েছি। এই নিয়ে কথা কাটাকাটি হতো, আমার গায়েও বাজে ভাবে হাত তুলেছে ও! সৌভাগ্যবশত আমার মুখে নির্যাতনের কোনো চিরস্থায়ী দাগ পড়ে যায়নি! তাই যেন কিছুই হয়নি, এ রকম ভাবে শুটিং করে যেতাম। কিন্তু রোজ মার খেতাম! এই ভাবে চলতে চলতে একদিন আত্মসম্মান বজায় রেখে সম্পর্কটা ভেঙে বেরিয়ে আসি!”

আরও পড়ুন: কৃষ্ণসার হত্যা: সলমনের জীবনের এই মামলায় নাম উঠতে পারত ঐশ্বর্যেরও?

যাই হোক, নায়িকার এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নানা সময়ে নানা বিবৃতিই দিয়েছেন সলমন খান! জানিয়েছিলেন, তিনি ঐশ্বর্যর গায়ে কোনো দিন হাত তোলেননি! কিন্তু তাতে জল্পনা থামেনি। কেন না, প্রাক্তন প্রেমিকাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করার জন্য এর আগে তিনি বলিউডে কুখ্যাত। শোনা যায়, এক সময়ের প্রেমিকা সোমি আলিকেও নিয়মিত মারধর করতেন তিনি। এক পার্টিতে বাজে ভাবে মাথায় মদ ঢেলে দিয়ে অপমানও করেছিলেন তাঁকে। সলমনের এই দুর্ব্যবহারের শিকার সঙ্গীতা বিজলানিও হয়েছিলেন বলে কানে আসে। যার দরুণ তিনিও সম্পর্ক ভাঙতে বাধ্য হন!

যাই হোক, ভাইরাল হওয়া ভিডিওয় সলমনের বক্তব্য, ঐশ্বর্যর গায়ে যদি সত্যিই হাত তুলতেন তিনি, তা হলে নায়িকাকে আর বেঁচে থাকতে হতো না! ভিডিওটা পুরনো, কিন্তু বলিউডের নারী-নির্যাতনের প্রেক্ষিতে ভেসে উঠেছে নতুন করে। শুনে নিতে পারেন একবার নায়কের জবানবন্দি!

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন